ঢাকা শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৬ আশ্বিন ১৪২৬

অবশেষে বিসিএস ক্যাডার সন্তানের ঘরে ঠাই হলো সেই মায়ের


গো নিউজ২৪ | নিজস্ব প্রতিনিধি: প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৩, ২০১৯, ০৯:২৯ পিএম
অবশেষে বিসিএস ক্যাডার সন্তানের ঘরে ঠাই হলো সেই মায়ের

নির্জন একটি বাড়িতে একা থাকেন ৮০ বছরের এক বৃদ্ধা মা। তার তিন ছেলের একজন বিসিএস ক্যাডার ও অন্য দুজন ব্যবসায়ী। তারা নিজেদের পরিবার নিয়ে আলাদা থাকেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চতর ডিগ্রি নেওয়া মেয়ে থাকেন স্বামীর বাড়িতে। 

মঙ্গলবার (২২ জানুয়ারি) বিকেলে ফেনী পৌরসভার ১৫ নম্বর ওয়ার্ড মধুপুর থেকে মৃদুল সাহা নামের এক বৃদ্ধা মাকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। কক্সবাজার থেকে বিসিএস ক্যাডার ছেলের দেওয়া খবরে পুলিশ ও স্থানীয় কাউন্সিলর লাশ উদ্ধার করতে গিয়ে দেখেন ওই বৃদ্ধা এখনো জীবিত। নিজের মলমূত্রে ডুবে আছেন তিনি।

ফেনী পৌরসভার ১৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবু ইউছুপ ভূঁইয়া বাদল জানান, ওই বৃদ্ধা মায়ের মেজ ছেলে সুশান্ত সাহা কক্সবাজার থেকে ফোন দিয়ে জানান তার মা ঘরে মারা গেছেন। সেখান থেকে তার মায়ের লাশ উদ্ধার করতে হবে। পরে তিনি পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘরের দরজা ভেঙে ওই বৃদ্ধাকে মলমূত্র থেকে উদ্ধার করেন। পরে ওই মায়ের দায়িত্বভার গ্রহণ করে ফেনীর সামাজিক সংগঠন, সিভিল সার্জন ও জেলা পুলিশ।

স্থানীয় বাসিন্দা নুর মোহাম্মদ জানান, অসুস্থ মাকে রেখে বিলাসী জীবন যাপন করছেন মৃদুল সাহার পাঁচ ছেলে-মেয়ে। অবশেষে হাসপাতালে তার মেয়ে শর্বরী সাহা এলেও তিনি মায়ের কাছে যাননি। দূর থেকে খবর নেওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ তাকে আটকে রাখেন।

ওই বাড়ির বাসিন্দা শুভ সাহা জানান, দীর্ঘ চার বছর ধরে মধুপুরের এই বাড়িতে একা থাকেন ওই বৃদ্ধা। তার দুই ছেলে বাপ্পি সাহা ও বিপুল সাহা ফেনী শহরে চালের আড়তের মালিক। তার বাবা হরিপদ সাহার রেখে যাওয়ার চালের আড়তে ব্যবসায়ীক কাজে ব্যস্ত থাকায় মায়ের খোঁজ নেননি তারা। স্ত্রী-ছেলে-মেয়ে নিয়ে আলাদা থাকেন তারা। অপর ছেলে সুশান্ত সাহা বিসিএস ক্যাডার (অতিরিক্ত উপপরিচালক, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, কক্সবাজার)। থাকেন কক্সবাজার। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উচ্চ শিক্ষা নেওয়া মেয়ে শর্বরী সাহা ও গৃহিণী সুমি সাহা থাকেন শ্বশুরালয়ে।

এদিকে বুধবার বিকালে জেলা পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে ফেনী জেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্যপরিষদের সভাপতি শুকদেব নাথ তপন,সদর থানা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক লিটস সাহার সমঝোতায় বৃদ্ধাকে তার সন্তানদের হাতে তুলে দেয়া হয়। একই সঙ্গে বৃদ্ধা মায়ের সার্বিক দায়িত্ব দেয়া হয় সদর থানা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক লিটস সাহার ওপর।

বিসিএস ক্যাডার ছেলে সুসান্ত কুমার সাহা ও উচ্চশিক্ষিতা কন্যা সরমিলা সাহা বলেন, আমরা অনেক ভুল করেছি। আমরা আর ভুল করতে চাই না। মায়ের দায়িত্ব নিয়ে মানুষের মতো মানুষ হয়ে সমাজে প্রতিষ্ঠা পেতে চাই।

গো নিউজ২৪/আই

নারী ও শিশু বিভাগের আরো খবর
সেদিন আমি স্নানও করিনি, যদি ওই অবস্থায় দেখে ফেলে!

সেদিন আমি স্নানও করিনি, যদি ওই অবস্থায় দেখে ফেলে!

বাল্য বিয়ে বন্ধ করলো কিশোরী ক্লাবের সদস্যরা

বাল্য বিয়ে বন্ধ করলো কিশোরী ক্লাবের সদস্যরা

নারী দিবসের ইতিকথা

নারী দিবসের ইতিকথা

অন্তঃসত্ত্বার কারণে ইউএনওকে ওএসডি করায় সংসদে ক্ষোভ

অন্তঃসত্ত্বার কারণে ইউএনওকে ওএসডি করায় সংসদে ক্ষোভ

ভাইরাল বউ-এর প্রথা ভাঙার গল্প!

ভাইরাল বউ-এর প্রথা ভাঙার গল্প!

সমাজে একঘরে থিম্মাক্কাকে ‘পদ্মশ্রী’ সম্মান

সমাজে একঘরে থিম্মাক্কাকে ‘পদ্মশ্রী’ সম্মান