ঢাকা রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ৮ আশ্বিন ১৪২৫
Sharp AC

বাংলাদেশি সাবিনাকে ‘গোল মেশিন’ অ্যাখ্যা ভারতীয় ক্লাবের


গো নিউজ২৪ | স্পোর্টস ডেস্ক প্রকাশিত: এপ্রিল ১৪, ২০১৮, ০১:১৭ পিএম আপডেট: এপ্রিল ১৪, ২০১৮, ০৭:২২ এএম
বাংলাদেশি সাবিনাকে ‘গোল মেশিন’ অ্যাখ্যা ভারতীয় ক্লাবের
Sharp AC

লিওনেল মেসি কিংবা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোরাও এমন। দেখা গেল তিন-চার ম্যাচে দল হয়তো ১০ গোল করেছে, সেখানে তাদের গোলসংখ্যা অর্ধেকেরও বেশি। আসলে শুধু মেসি-রোনালদো নন, দুনিয়ার তাবৎ জাত স্ট্রাইকারেরাই এমন। বাংলাদেশের যেমন সাবিনা খাতুন, ইন্ডিয়ান উইমেন্স লিগে তার দলের করা ১১ গোলের ৬টি-ই সাবিনার।

তাই বলে মেসি-রোনালদোর সঙ্গে তুলনা? না, সেই ধৃষ্টতা হচ্ছে না। ওটা সাবিনার উত্তুঙ্গ ফর্মের সামান্য উদাহরণ। যে উদাহরণে মজেছে ভারতের মেয়েদের ফুটবল। বাংলাদেশের প্রথম নারী ফুটবলার হিসেবে বাইরের কোনো ক্লাবে খেলা সাবিনাকে নিয়ে প্রতিবেদন করেছে ‘গোল ডট কম ইন্ডিয়া’। তাদের শিরোনাম,‘ভারতের উইমেন্স লিগে বাংলাদেশের উপহার সাবিনা’।

প্রতিবেদনে ২৪ বছর বয়সী এ স্ট্রাইকারের প্রশংসা করা বলা হয়েছে, ‘সাবিনার মধ্যে সিথু (তার দল) গোলমেশিন খুঁজে পেয়েছে’। বাগাড়ম্বর নয়, সত্যি কথা। ভারতে মেয়েদের এই ফুটবল লিগে সাবিনা সিথু এফসির হয়ে গোল করেছেন টানা চার ম্যাচে। এ চার ম্যাচে তার দলও জিতেছে। আবার সেই গ্রুপপর্বের শেষ ম্যাচে সাবিনা গোল পাননি, দলও জেতেনি। তার মানে কী সাবিনা গোল না পেলে সিথু জেতে না?

হয়তো তা নয়। কিন্তু ইন্ডিয়ান উইমেন্স লিগের(আইডব্লিউএল) নতুন নিয়ম যে ভারতে বাংলাদেশি নারী ফুটবলারদের জাত চিনিয়েছে তা অস্বীকারের পথ নেই। তারা দেশের বাইরের ফুটবলারদের খেলার পথ খুলে দেওয়া হয়েছে এ বছর। ম্যাচের দিন সর্বোচ্চ দুজন ‘বিদেশি’ খেলোয়াড় স্কোয়াডে ঠাঁই পাবেন, এর মধ্যে একজন থাকবেন মূল একাদশে।

বিদেশি খেলোয়াড় হিসেবে সাবিনা সিথুর একাদশে থাকার লড়াইয়ে হারিয়ে দিয়েছেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত টটেনহামের তানভি হ্যানসকে। প্রথম ম্যাচে তানভির বদলি হিসেবে মাঠে নেমেছিলেন সাবিনা। পরের পাঁচটি ম্যাচেই খেলেছেন একাদশে। আর তাই সিথুর হয়ে তানভির আর মাঠে নামা হচ্ছে না। সতীর্থ থেকে বন্ধু বনে যাওয়া সাবিনার সঙ্গে একাদশে থাকার লড়াইয়ে হেরে তানভিও নাকি ক্লাব ছাড়ছেন।

এ ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে তানভি নিজেই বলেছেন, ‘ইংল্যান্ডে খেলার যোগ্যতা রাখে সাবিনা।’ যোগ্যতা থাকলেও সাবিনা কখনো সে সুযোগ পাবেন কি না, তা সময়ই বলে দেবে। আপাতত ভারতে মেয়েদের লিগ মাতানোর সঙ্গে টুর্নামেন্টটি সাবিনা নিজেও বেশ উপভোগ করছেন। ‘ভারতীয় ফুটবলের দুর্গা’ খ্যাত অর্জুন পুরস্কারজয়ী দেশটির নারী ফুটবলার ওনিয়ম বেমবেম দেবী তার প্রেরণা, ‘ক্যারিয়ার শুরুর সময় ওনিয়ম বেমবেম দেবীর খেলা দেখেছি। এখন খেলা ছেড়ে কোচিং করছেন। তিনি সত্যিকারের প্রেরণা।’
বাংলাদেশের মেয়ে ভিনদেশের ক্রীড়াঙ্গনে সবার মন জয় করে চলছেন—এ ব্যাপারটা ভীষণ গর্বের। দেশের ফুটবলের বেহাল অবস্থা একদিন সাবিনাদের দিয়েই ঘুচবে—এ আশা তো করাই যায়।-প্রথম আলো

গোনিউজ২৪/এআর
 

খেলা বিভাগের আরো খবর
১৯ বছরের পুরনো রেকর্ড ভাঙলেন ইমরুল-মাহমুদউল্লাহ

১৯ বছরের পুরনো রেকর্ড ভাঙলেন ইমরুল-মাহমুদউল্লাহ

আফগানিস্তানের চাই ২৫০

আফগানিস্তানের চাই ২৫০

উপেক্ষিত ইমরুলই ভরসা বাংলাদেশের

উপেক্ষিত ইমরুলই ভরসা বাংলাদেশের

বিপদের পরও মাঠে নামলেন ভারতীয় ব্যাটসম্যান

বিপদের পরও মাঠে নামলেন ভারতীয় ব্যাটসম্যান

মুশফিকের নতুন মাইলফলক

মুশফিকের নতুন মাইলফলক

শান্ত’র এশিয়া কাপ শেষ!

শান্ত’র এশিয়া কাপ শেষ!

Best Electronics AC mela