ঢাকা সোমবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৯, ৩ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬

মহাকাশে ‘স্বর্ণবৃষ্টি’


গো নিউজ২৪ | নিউজ ডেস্ক: প্রকাশিত: আগস্ট ২৯, ২০১৯, ০৪:২৬ পিএম আপডেট: আগস্ট ২৯, ২০১৯, ১০:২৬ এএম
মহাকাশে ‘স্বর্ণবৃষ্টি’

মহাকাশে বৃষ্টির মতো সোনা ঝরে পড়ছে বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। এমনকি তারা দাবি করেছেন, পৃথিবীতে থাকা বহু মূল্যবান সোনা এবং প্লাটিনাম জাতীয় ভারি ধাতুর অধিকাংশই মহাকাশ থেকে ঝরে পড়েছে। আর পেছনে মূল ভূমিকা পালন করেছে ‘কিলানোভা’।

মহাকাশে দুইটি নিউট্রন তারার সংঘর্ষ বা কৃষ্ণগহ্বরের সঙ্গে কোনও নিউট্রন তারার একত্রীকরণে যে বিস্ফোরণ ঘটে, তাকেই বলা হয় ‘কিলানোভা’।

এর আগে মহাকাশ গবেষকরা এক গবেষণায় জানিয়েছেন, ২০১৬ সালে টেলিস্কোপে প্রথম ‘কিলানোভা’ ধরা পড়ে। তবে সেসময় সেটি সম্পর্কে তেমন কিছু বুঝতে পারেননি বিজ্ঞানীরা। 

মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার সবকটি টেলিস্কোপেই সেসময় ঘটনাটি ধরা পড়েছিল। এরপর ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে আরও একটি কিলানোভা টেলিস্কোপে ধরা পড়ে। সে সময় বিজ্ঞানীরা গামা রশ্মির বিস্ফোরণ লক্ষ করেন।

বিজ্ঞানীরা লক্ষ্য করেন, কিলানোভার ফলে বহুমূল্যবান সোনা এবং প্লাটিনাম এর মতো ধাতু মহাকাশে ছড়িয়ে পড়ে।

দুই কিলোনোভার পর্যবেক্ষণ মিলিয়ে সম্প্রতি একটি গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়েছে যুক্তরাজ্যের মান্থলি নোটিশেস অব দ্য রয়্যাল অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল সোসাইটির সাময়িকীতে।

গবেষণা প্রতিবেদনে মহাকাশ বিজ্ঞানীরা দাবি করেন, পৃথিবীতে যত সোনা ও প্লাটিনাম রয়েছে, তা কোনো নিউট্রন তারার সংঘর্ষ থেকে পাওয়া। 

গবেষণাপত্রটির লেখক ও মেরিল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যোতির্বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী বিজ্ঞানী এলেনোরা ত্রোজা জানান, ২০১৬ ও ২০১৭ সালের কিলানোভার সমস্ত পর্যবেক্ষণ হুবহু মিলে গেছে।

গো নিউজ২৪/আই

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগের আরো খবর
পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসছে দানবীয় উল্কাপিণ্ড

পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসছে দানবীয় উল্কাপিণ্ড

ফেসবুকে নিউজ ট্যাব চালু, টাকা পাবে সংবাদমাধ্যম

ফেসবুকে নিউজ ট্যাব চালু, টাকা পাবে সংবাদমাধ্যম

সমাজের ‍‍`পঞ্চম স্তম্ভ‍‍` ফেসবুক: জাকারবার্গ

সমাজের ‍‍`পঞ্চম স্তম্ভ‍‍` ফেসবুক: জাকারবার্গ

মাত্র ৫ সেকেন্ড অক্সিজেন শূন্য হলে কি ঘটবে পৃথিবীতে?

মাত্র ৫ সেকেন্ড অক্সিজেন শূন্য হলে কি ঘটবে পৃথিবীতে?

ঢাবি ক্যাম্পাসে ‘জোবাইক’ এর যাত্রা শুরু

ঢাবি ক্যাম্পাসে ‘জোবাইক’ এর যাত্রা শুরু

চলে গেলেন মাহাশূন্যে হাঁটা প্রথম মানব

চলে গেলেন মাহাশূন্যে হাঁটা প্রথম মানব