ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৩ মে, ২০১৯, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

নারী দিবসে সমঅধিকার চাইলাম, সমদায়িত্ব নিবো না?


গো নিউজ২৪ | ফারজানা আক্তার প্রকাশিত: মার্চ ৮, ২০১৯, ০৮:৫৩ এএম আপডেট: মার্চ ৮, ২০১৯, ১২:৩৪ পিএম
নারী দিবসে সমঅধিকার চাইলাম, সমদায়িত্ব নিবো না?

আমাদের সমাজের নারীরা আসলে মানসিক দাসত্বে বন্দী। পুরুষতান্ত্রিক সমাজে আমাদের বেড়ে উঠা। আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী পুরুষরা মূলত নারীদের নিয়ন্ত্রণ করে। পরিবারে একজন মেয়ে যেভাবে বেড়ে উঠে, একজন ছেলে কখনোই সেভাবে বেড়ে উঠে না। একজন মেয়ে বেড়ে উঠার প্রতিটা ধাপে ধাপে নানান রকম প্রতিকূলতার মুখোমুখি হয়। অন্যদিকে একজন ছেলে স্বাধীনভাবে, আদর সোহাগে পরিবারে সমাজে বেড়ে উঠে। পরিবারে বাবার কথায় শেষ কথা, মা শুধু নীরবে মাথা একপাশে কাত করে সম্মতি জানায়। মাকে দেখে তার মেয়ে শিখে, এই মেয়ে আবার একসময় মা হয়, তাকে দেখে আবার তার মেয়ে শিখে। 

মা যদি মাথাটা একপাশে কাত না করে, মাথাটা উঁচু করে মতামত দেওয়া শিখতো, বাবা যদি তার কথাকে শেষ কথা না ধরে মায়ের কাছ থেকে মতামত চাইতো, ঘরের ছেলেটার মতো করে মেয়েটাও মানুষ হতো, মেয়েদের ঘরের কাজ আর বাচ্চাকাচ্চা মানুষ করাকে যদি কাজ বলে মূল্যায়ন করা হতো তাহলে মেয়েরা মানসিকভাবে অনেকটা শান্তিতে থাকতো। মানসিক এই শান্তিটাই মানসিক দাসত্ব থেকে মুক্তি দিতে তাদের সাহায্য করতো। 

নারীদের পথ চলা অতীতে সহজ ছিলো না, বর্তমানেও নেই এবং হয়তো ভবিষ্যতেও থাকবে না। নিজ যোগ্যতা বলে নারীকে নিজের হাতে নিজের চলার পথ তৈরী করতে হবে। অন্যের উপর নির্ভরশীলতা কমাতে হবে, নিজ হাতে দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিতে হবে। আমার নিজের চোখে দেখা কিছু কর্মজীবী মেয়ের কথা বলি। তারা নিজের বেতনের টাকা পার্লার এবং শপিংয়ের পিছনে খরচ করে। স্বামীর টাকায় সংসার চলে এবং তাদের বাদ বাকি হাতখরচ স্বামীর কাছ থেকে নেয়। তারা মনে করে তার নিজের উপার্জিত টাকা একান্ত তার নিজের, আর স্বামীর উপার্জিত টাকা তার এবং সংসারের। মন মানসিকতা যদি 'এই' হয় তাহলে নারী মুক্তি কি আসলে সম্ভব? 

নারী দিবসে সমঅধিকার চাইলাম, সমদায়িত্ব নিবো না? নারী দিবসে নারীরা মুক্ত হতে চায়। কিন্তু এই মুক্তটা কিসের থেকে হতে চায়? পুরুষদের থেকে , নাকি মানসিক দাসত্ব থেকে? 

'বাসা থেকে আমার বিয়ে দেখছে, প্লিজ তুমি কিছু একটা করো।' যতদিন পর্যন্ত শিক্ষিত নারীরা পুরুষদের এমন কথা বলবে ততদিন নারী দিবস পালন করে লাভ হবে না। নারী দিবসের মূল লক্ষ্য নারীদের মুক্তি, নারীদের সমঅধিকার আদায় করা। 'তুমি কিছু একটা করো' বলে নারী যখন স্বেচ্ছায় নিজের দায়িত্বটুকু অন্যের কাঁধে চাপিয়ে দেয় তখন তার মুক্তি কিভাবে হবে?

গো নিউজ২৪/আই

মতামত বিভাগের আরো খবর
বালিশ কাহিনী

বালিশ কাহিনী

রাষ্ট্রীয় ভাবে উপেক্ষিত চা শ্রমিক দিবস!

রাষ্ট্রীয় ভাবে উপেক্ষিত চা শ্রমিক দিবস!

‘তিন মাস ধরে চাকরি নেই, বাচ্চার জন্য দুধ চুরি করলেন বাবা’

‘তিন মাস ধরে চাকরি নেই, বাচ্চার জন্য দুধ চুরি করলেন বাবা’

ব্রিটিশ ডিপ্লোমেট আনোয়ার চোধুরী সত্যিই ব্যতিক্রম!

ব্রিটিশ ডিপ্লোমেট আনোয়ার চোধুরী সত্যিই ব্যতিক্রম!

বিএনপির ব্যর্থতা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন ভিপি নুর

বিএনপির ব্যর্থতা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন ভিপি নুর

চাকরি পেতে পারো তুমি, তবুও তোমায় বানাব না স্বামী!

চাকরি পেতে পারো তুমি, তবুও তোমায় বানাব না স্বামী!