ঢাকা সোমবার, ২৬ আগস্ট, ২০১৯, ১১ ভাদ্র ১৪২৬

মিন্নিকে নিয়ে বেশি উৎসাহিত হওয়া ঠিক নয়: হাইকোর্ট


গো নিউজ২৪ | নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশিত: জুলাই ২৮, ২০১৯, ০৩:১৬ পিএম আপডেট: জুলাই ২৮, ২০১৯, ০৯:১৬ এএম
মিন্নিকে নিয়ে বেশি উৎসাহিত হওয়া ঠিক নয়: হাইকোর্ট

বরগুনায় চাঞ্চল্যকর রিফাত শরীফ হত্যার মূল আসামিদের বাদ দিয়ে পুলিশ যেন শুধু গ্রেফতার মামলার প্রধান সাক্ষী ও তার স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিকে নিয়ে উৎসাহী না হয়।

রোববার বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ মন্তব্য করেছেন। তবে রিফাত হত্যার তদন্ত পিবিআই বা সিআইডিতে স্থানান্তরের আবেদন উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ করে দেন হাইকোর্ট।

আদালত রিটকারী আইনজীবীকে উদ্দেশ্যে করে বলেন, পুলিশের তদন্তে অসন্তুষ্ট হলে মিন্নির পরিবারের কেউ আদালতে আসতে পারে। স্বাধীন দেশে এটা সবার অধিকার।

প্রসঙ্গত, ২৬ জুন সকালে প্রকাশ্যে বরগুনা সরকারি কলেজ গেটের সামনে রিফাতকে কুপিয়ে আহত করা হয়। গুরুতর আহত অবস্থায় বরিশাল নেওয়ার পর তিনি মারা যান। এ ঘটনায় রিফাতের বাবা আবদুল হালিম দুলাল শরীফ বাদী হয়ে ১২ জনকে আসামি করে বরগুনা থানায় হত্যা মামলা করেন।

পরে ১৬ জুলাই সকালে বাবার বাসা থেকে মিন্নিকে জিজ্ঞাসাবাদ ও তার বক্তব্য রেকর্ড করতে বরগুনা পুলিশলাইনসে নিয়ে যায় পুলিশ। এর পর দীর্ঘ ১০ ঘণ্টার জিজ্ঞাসাবাদ শেষে রাত ৯টায় মিন্নিকে রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। পর দিন মিন্নিকে আদালতে হাজির করা হয়। আদালতে তার পক্ষে কোনো আইনজীবী ছিলেন না। আদালত মিন্নির পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর করেন আদালতের বিচারক মো. সিরাজুল ইসলাম গাজী।

পর দিন বৃহস্পতিবার বরগুনার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন সংবাদ সম্মেলনে জানান, মিন্নি তার স্বামী রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন। এ হত্যার পরিকল্পনার সঙ্গেও তিনি যুক্ত ছিলেন।

গত শুক্রবার বিকালে মিন্নি একই আদালতে তার স্বামী রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। পরে আদালত তাকে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

গো নিউজ২৪/এমআর

জাতীয় বিভাগের আরো খবর
খাগড়াছড়িতে সেনাবাহিনীর সাথে গোলাগুলি, নিহত ৩

খাগড়াছড়িতে সেনাবাহিনীর সাথে গোলাগুলি, নিহত ৩

ডেঙ্গু কেড়ে নিল আরো একটি স্বপ্ন

ডেঙ্গু কেড়ে নিল আরো একটি স্বপ্ন

নুসরাত হত্যাকাণ্ড: মাদ্রাসা কমিটির অবহেলা পায়নি তদন্ত কমিটি

নুসরাত হত্যাকাণ্ড: মাদ্রাসা কমিটির অবহেলা পায়নি তদন্ত কমিটি

চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে মেয়র সাঈদ

চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে মেয়র সাঈদ

৫ দফা দাবিতে লাখো রোহিঙ্গার সমাবেশ

৫ দফা দাবিতে লাখো রোহিঙ্গার সমাবেশ

বিয়ের কাবিননামায় কুমারী শব্দ আর থাকছে না

বিয়ের কাবিননামায় কুমারী শব্দ আর থাকছে না