ঢাকা মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট, ২০১৯, ৫ ভাদ্র ১৪২৬

জিলহজ মাসের প্রথম ১০ দিন যে কাজ নিষেধ 


গো নিউজ২৪ | ইসলাম ডেস্ক: প্রকাশিত: আগস্ট ১৩, ২০১৮, ০৮:৪৭ এএম
জিলহজ মাসের প্রথম ১০ দিন যে কাজ নিষেধ 

গতকাল সন্ধ্যায় জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা যাওয়ায় আজ (১৩ আগস্ট) জিলহজ মাসের ১ তারিখ। যারা কোরবানি করার সামর্থ রাখে কিংবা সামর্থ রাখে না, তাদের সবার জন্য জিলহজ মাসের প্রথম ১০ দিন অর্থাৎ কোরবানি করার আগ পর্যন্ত কিছু বিধি-নিষেধ রয়েছে। যা পালনে রয়েছে অনেক সাওয়াব।

জিলহজ মাস আসার সঙ্গে সঙ্গে যে বিষয়গুলো মেনে চলা জরুরি-

এক. মাথার চুল কাটা কিংবা মাথা ন্যাড়া করা।

দুই. হাত ও পায়ের নখ কাটা।

তিন. মোচ ছেঁটে ছোট করা।

চার. শরীরের অযাচিত পশম কাটা কিংবা পশম বিলুপ্তকারী ওষুধ ব্যবহার করা।

আরো পড়ুন<> সন্তানকে নামাজী করে তোলার কিছু কার্যকরী উপায়      

যদি কেউ কোরবানির আগে এ কাজগুলো করে অর্থাৎ চুল, চামড়া বা নখ কাটে তার জন্য কোনো জরিমানা নেই। তবে আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাইতে হবে। তাই যে ব্যক্তি কোরবানি করবে সে ব্যক্তি জিলহজ মাসের প্রথম ১০দিন চুল, চামড়া বা নখ কাটা থেকে বিরত থাকবে। তবে অনেকে এ কাজগুলোকে হারাম বলেছেন।

জিলহজ মাসের প্রথম ১০ দিন উল্লেখিত কাজগুলো থেকে বিরত থাকা প্রসঙ্গে রাসূল (সা.) এর সুস্পষ্ট নির্দেশনা দিয়েছেন। হাদিসে এসেছে-

হজরত উম্মে সালমা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, যখন জিলহজ-এর ১০ দিন আসে এবং তোমাদের কেউ কুরবানি করার নিয়ত করে; তখন সে যেন নিজের চুল ও চামড়ার কোনো অংশ না কাটে।   (মুসলিম)

আরো পড়ুন<> কোরবানির পশু সংক্রান্ত করণীয় ও বর্জনীয় 

হাদিসের নির্দেশনা অনুযায়ী জিলকদ মাসের শেষ দিকে উল্লেখিত কাজগুলো সেরে ফেলা উচিত। যাতে জিলহজ মাসের শুরু থেকে কুরবানির দিন পর্যন্ত এ কাজগুলো করা না লাগে।  সে আলোকে আজ থেকে এ কাজগুলো করা যাবে না।

গো নিউজ২৪/এমআর

ইসলাম বিভাগের আরো খবর
দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে উঁচু মসজিদ নির্মিত হচ্ছে বাংলাদেশে

দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে উঁচু মসজিদ নির্মিত হচ্ছে বাংলাদেশে

একজন প্রেসিডেন্টের হজ! 

একজন প্রেসিডেন্টের হজ! 

বিশ্বের সবচেয়ে বেশি পশু কোরবানি হয়েছে বাংলাদেশে

বিশ্বের সবচেয়ে বেশি পশু কোরবানি হয়েছে বাংলাদেশে

রাতে আসছে প্রথম ফিরতি হজ ফ্লাইট

রাতে আসছে প্রথম ফিরতি হজ ফ্লাইট

মক্কায় এবার ৬৯ বাংলাদেশি হাজির মৃত্যু

মক্কায় এবার ৬৯ বাংলাদেশি হাজির মৃত্যু

ত্যাগ ও আনন্দের মহিমায় উদ্ভাসিত হোক ‘ঈদ’

ত্যাগ ও আনন্দের মহিমায় উদ্ভাসিত হোক ‘ঈদ’