ঢাকা রবিবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৯, ৫ কার্তিক ১৪২৬

৫০ রাঘব বোয়ালের নাম বলেছেন ‘ক্যাসিনো খালেদ’


গো নিউজ২৪ | নিজস্ব প্রতিনিধি: প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৯, ০৪:৫৬ পিএম আপডেট: সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৯, ০৫:১৪ পিএম
৫০ রাঘব বোয়ালের নাম বলেছেন ‘ক্যাসিনো খালেদ’

সদ্য বহিস্কৃত যুবলীগ নেতা ক্যাসিনো খালেদের মুখ থেকে বেরিয়ে আসছে একের পর এক বিস্ময়কর ঘটনা ও একেকজন রাঘব বোয়ালের নাম। বাণিজ্য ও টেন্ডারবাজিতে সহায়তাকারী বেশ কিছু রাজনৈতিক নেতা, সরকারি কর্মকর্তা ও পুলিশ কর্মকর্তার নাম ইতোমধ্যে পুলিশের কাছে বলেছেন তিনি।

খালেদ মাহমুদের মুখ থেকে এমন অন্তত ৫০ জনের নাম শুনে রীতিমতো বিস্মিত জিজ্ঞাসাবাদকারী পুলিশ কর্মকর্তারা।

আরো পড়ুন<<>>বালিশকাণ্ডের ‘হেড মাস্টার’ জি কে শামীম

বিশেষ করে মতিঝিল ক্লাবপাড়ার ক্যাসিনোগুলো থেকে পুলিশ প্রকাশ্যে মাসোহারা নিয়ে যেত। গুলশান থানায় অস্ত্র ও মাদক আইনে দায়ের করা দুই মামলায় সাত দিনের রিমান্ডে নেওয়া খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া জিজ্ঞাসাবাদে এসব চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছেন বলে জানা গেছে।

ঢাকা মহানগর (দক্ষিণ) যুবলীগের সদ্য বহিষ্কৃত সাংগঠনিক সম্পাদক এই খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়ার রাজত্ব ছিল অনেক বিস্তৃত। রাজধানীর ১৭টি ক্লাবে ক্যাসিনো নিয়ন্ত্রণ, টেন্ডারবাজি, পশুর হাটের চাঁদাবাজি, মাছের বাজার নিয়ন্ত্রণ থেকে শুরু করে জমি দখলের কাজে জুড়ি নেই তার। নিজের সম্পদ, অর্থ উপার্জন, ক্যাসিনো ব্যবসার তথ্য ডিবির জিজ্ঞাসাবাদে অকপটে স্বীকার করেছেন তিনি। খালেদ মাহমুদের বর্ণনায় টেন্ডার বাণিজ্যের নিয়ন্ত্রণ, প্রভাবশালী ব্যক্তি ও সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে অবৈধ আর্থিক লেনদেনের চিত্র উঠে এসেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র দাবি করেছে, জিজ্ঞাসাবাদে খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া বলেছেন, ‘এক চিফ ইঞ্জিনিয়ারের সঙ্গে খাতির আছে। আমি টাকা দিয়ে কাজ নেই। এই যেমন একটা কাজের জন্য তাকে ১৯ কোটি টাকা দিয়েছি।’ ক্যাসিনোর টাকা কার কাছে যায়নি—এমন বিস্ময়সূচক মন্তব্য করে তিনি বলেন, সংসদ সদস্য, স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা, পুলিশ ও প্রভাবশালী মহলের অনেকের পকেটেই যেত। ঢাকায় ৮০-৯০টি হাইরাইজ বিল্ডিং করেছি। এসব টেন্ডার আমি পেয়েছি। সবকিছুর নিয়ন্ত্রণ থাকে অফিসের হাতে। কে টেন্ডার পাবে, কে কী করবে—এসব তো তারা নির্ধারণ করে। এতে নির্দিষ্ট একটা পারসেন্ট দেওয়ার বিষয় থাকে। একটি কাজ পেতে তাদের ৫ কোটি টাকাও দিতে হয়েছে। ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী নেতা থেকে সরকারি কর্মকর্তারাও এই অর্থপ্রাপ্তি থেকে বাদ যেতেন না। স্থানীয় প্রকৌশল অধিদপ্তরের আগারগাঁও অফিসের এক কর্মকর্তাকে ৫ লাখ টাকা দিয়েছিলাম। কারণ আমার ৫০ লাখ টাকার একটি বিল আটকে রেখেছিলেন তিনি।’

জিজ্ঞাসাবাদ বিষয়ে ডিবির একটি সূত্র জানায়, খালেদ সংসদ সদস্য, রাজনৈতিক নেতা, পুলিশ ও সরকারি কর্মকর্তাদের অন্তত ৫০ জনের নাম বলেছেন, যাদের সঙ্গে তার অর্থ লেনদেন হয়েছিল।

এদিকে, মতিঝিল ও ফকিরাপুল এলাকায় কমপক্ষে ১৭টি ক্লাব নিয়ন্ত্রণ করতেন যুবলীগের এই নেতা। এর মধ্যে ১৬টি ক্লাব লোকজন দিয়ে আর ফকিরাপুল ইয়ংম্যানস ক্লাবটি সরাসরি তিনি পরিচালনা করতেন। প্রতিটি ক্লাব থেকে প্রতিদিন কমপক্ষে ১ লাখ টাকা নিতেন তিনি। এসব ক্লাবে সকাল ১০টা থেকে ভোর পর্যন্ত ক্যাসিনো বসে।

খিলগাঁও-শাহজাহানপুর হয়ে চলাচলকারী গণপরিবহন থেকে নিয়মিত টাকা দিতে হতো খালেদকে। শাহজাহানপুর কলোনি মাঠ, মেরাদিয়া ও কমলাপুর পশুর হাট নিয়ন্ত্রণ করতেন তিনি। খিলগাঁও রেলক্রসিংয়ে প্রতিদিন রাতে মাছের হাট বসে। সেখান থেকে মাসে কমপক্ষে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দেওয়া হতো তাকে। এ কথায় খালেদ ছিলেন সব কিছুর নিয়ন্ত্রক।

গো নিউজ২৪/আই

এক্সক্লুসিভ বিভাগের আরো খবর
প্রধানমন্ত্রী-যুবলীগ বৈঠকের আলোচনা

প্রধানমন্ত্রী-যুবলীগ বৈঠকের আলোচনা

সংসদ সদস্য পদ হারাচ্ছেন বুবলী!

সংসদ সদস্য পদ হারাচ্ছেন বুবলী!

মহানবীকে (স.) নিয়ে কটূক্তি, যা বললেন ভোলার এসপি 

মহানবীকে (স.) নিয়ে কটূক্তি, যা বললেন ভোলার এসপি 

গণভবনে ঢুকতে দেওয়া হয়নি শেখ মারুফকে

গণভবনে ঢুকতে দেওয়া হয়নি শেখ মারুফকে

যে কারণে রণক্ষেত্র ভোলা

যে কারণে রণক্ষেত্র ভোলা

কাউন্সিলর রাজীবের বিরুদ্ধে যত অভিযোগ

কাউন্সিলর রাজীবের বিরুদ্ধে যত অভিযোগ