ঢাকা মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭

দুই বিদ্যালয়ের হাস্যকর নাম


গো নিউজ২৪ | নিজস্ব প্রতিনিধি প্রকাশিত: আগস্ট ৯, ২০২০, ১১:১০ এএম
দুই বিদ্যালয়ের হাস্যকর নাম

গ্রামের নাম ‘খনকারীপাড়া’। কিন্তু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নাম ‘ঋণকারী পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়’। ‘গন্ধা’ গ্রামে অবস্থিত বিদ্যালয়ের নাম ‘গনজা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়’। হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার এ দুই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নাম নিয়ে এলাকায় হাসি-ঠাট্টা চলছে দীর্ঘদিন ধরে।

স্থানীয়রা নাম সংশোধনের দাবি জানালেও তা এখনও বাস্তবায়িত হয়নি। তবে সম্প্রতি শ্রুতিমধুর না হলে বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তনের উদ্যোগ নেয় সরকার। এরপর থেকে ওই দুই বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তনের দাবিতে আরো স্বোচ্চার হয়ে উঠেছেন এলাকাবাসী।

জানা গেছে, উপজেলার কুর্শি ইউনিয়নের খনকারীপাড়া গ্রামে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৭৯ সনে। গ্রামের নামেই বিদ্যালয়ের নামকরণ হওয়ার কথা। তবে ভুলবশত খনকারীপাড়ার পরিবর্ততে লেখা হয় ঋণকারী পাড়া। একই অবস্থা নবীগঞ্জ পৌর এলাকায় অবস্থিত গন্ধা গ্রামের বিদ্যালয়েও। ভুলবশত সেখানে লেখা হয়েছে গনজা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

এলাকার প্রবীণরা জানিয়েছেন, সরকারিভাবে নামকরণের সময় বানান ভুল হয়েছে। এনিয়ে হাসিঠাট্টা করেন বাইরে থেকে আসা লোকজন। বিব্রতকর অবস্থায় পড়ে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা। যেহেতু সরকারিভাবে নাম পরিবর্তনের সুযোগ এসেছে; এ বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি দাবি জানিয়েছেন তারা।  

ঋণকারীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লিটন দাশ জানান, মূলত গ্রামের নামেই বিদ্যালয়ের নাম। কিন্তু ভুলবসত খনকারীপাড়া না লেখে ঋণকারিপাড়া লেখা হয়েছে। এ নাম উচ্চারণ করতে বিব্রতবোধ করে শিক্ষার্থীরা। এটি পরিবর্তনের জন্য কিছুদিন পূর্বে আবেদন করা হলেও কাজ হয়নি।

‘গনজা’ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহিনুর আক্তার চৌধুরী পান্না জানান, গ্রামের নামে স্কুল। কিন্তু টাইপিংয়ে যুক্তবর্ণ লিখতে এই ভুল হয়েছে। গনজা শব্দের কোনো ভিত্তি নেই। ইতোপূর্বে নাম পরিবর্তনের উদ্যোগ নিলেও কাজ হয়নি।

নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন এ ব্যাপারে বলেন, শ্রুতিমধুর নয়; এমন বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তন প্রসঙ্গে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে চিঠি এসেছে। এ নিয়ে শিক্ষা কমিটির উদ্যোগে মিটিং করা হবে। নাম পরিবর্তনের জন্য আমরা প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করবো।

গোনিউজ২৪/এন

শিক্ষা বিভাগের আরো খবর
ভ্যাকসিন দেশে না আসা পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার দাবি

ভ্যাকসিন দেশে না আসা পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার দাবি

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে সিদ্ধান্ত শিগগিরই: শিক্ষামন্ত্রী

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে সিদ্ধান্ত শিগগিরই: শিক্ষামন্ত্রী

শূন্য পদে ৫৭ হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগের উদ্যোগ

শূন্য পদে ৫৭ হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগের উদ্যোগ

প্রাথমিক শিক্ষকদের জন্য অর্থ মন্ত্রনালয়ের চূড়ান্ত নির্দেশনা

প্রাথমিক শিক্ষকদের জন্য অর্থ মন্ত্রনালয়ের চূড়ান্ত নির্দেশনা

ছুটি কি আরও বাড়বে, নাকি খুলে দেয়া হবে স্কুল-কলেজ

ছুটি কি আরও বাড়বে, নাকি খুলে দেয়া হবে স্কুল-কলেজ

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে মন্ত্রণালয়ের জরুরী নির্দেশনা

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে মন্ত্রণালয়ের জরুরী নির্দেশনা