ঢাকা মঙ্গলবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ৭ ফাল্গুন ১৪২৫

ডাকসু নির্বাচন, ছাত্রদলের প্রার্থী হচ্ছেন কারা?


গো নিউজ২৪ | নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ৬, ২০১৯, ১০:৫৮ এএম
ডাকসু নির্বাচন, ছাত্রদলের প্রার্থী হচ্ছেন কারা?

ঢাকা: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে চলতি সপ্তাহেই। বেশির ভাগ সংগঠনের পক্ষ থেকে ভোটকেন্দ্র একাডেমিক ভবনে করার দাবি থাকলেও ডাকসুর গঠনতন্ত্র অনুযায়ী নির্বাচনের ভোটকেন্দ্র হচ্ছে হলেই৷ আর নির্বাচন হচ্ছে নির্ধারিত তারিখেই৷

আগামী ১১ মার্চ অনুষ্ঠেয় ডাকসু নির্বাচন সামনে রেখে মঙ্গলবার চূড়ান্ত প্রস্তুতিমূলক সভা করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

সভা শেষে বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের সহউপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক মুহাম্মদ সামাদ জানান, নির্ধারিত ১১ মার্চ নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্য রেখেই আমরা কাজ করছি। আগামী সাত দিনের মধ্যেই নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে।

এদিকে (ডাকসু) নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে বিএনপি। ১৯৯০ সালে ডাকসুর সর্বশেষ নির্বাচনে বিএনপি অংশ নিয়েছিল এবং জয়ীও হয়েছিল। ওই নির্বাচনে বিএনপির প্যানেল ছিল আমান-খোকন-আলম পরিষদ। সেই সময়ে রাজপথ কাঁপানো ছাত্রনেতা আমানউল্লাহ আমান, খায়রুল কবির খোকন ও নাজিমউদ্দিন আলমের নেতৃত্বাধীন প্যানেল জয়ী হয় ডাকসু নির্বাচনে।

ডাকসুর কর্তৃত্ব নিয়ে ছাত্রদল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সরকারবিরোধী তুমুল আন্দোলন গড়ে তুলেছিল। সর্বদলীয় ছাত্র-সংগ্রাম পরিষদের ব্যানারে সব ছাত্র সংগঠনকে এক কাতারে নিয়ে এসে রাজপথে আন্দোলন গড়ে তুলেছিল। একটি পর্যায়ে সেই আন্দোলন এতটাই তীব্র থেকে তীব্র হয়ে উঠেছিল যে, সরকারের বিদায় ঘণ্টা বেজেছিল।

বিএনপির ভ্যানগার্ড ছাত্রদলের সেই সোনালি সময়টা এখনও ভোলেনি রাজনীতি সচেতনরা। বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতারাও সেই আন্দোলন আবারও দেখতে চান। এ কারণেই ডাকসু নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা।

এ লক্ষ্যে নিয়েই যোগ্য প্রার্থী খুঁজছে বিএনপির ভ্যানগার্ড ছাত্রদল। তবে সংগঠনটির শীর্ষ নেতাদের প্রায় সবাই বয়স্ক হওয়ায় প্রার্থী খুঁজতে ঘাম ঝরছে সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের। দলের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার নেতাদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ত্রিশ বছর ও এমফিলের যোগ্যতা দিয়ে দলের শীর্ষ নেতাদের কেউই প্রার্থী হতে পারছেন না। ছাত্রদলের সবশেষ কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা করা হয় ২০১৪ সালে। এতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হন যথাক্রমে রাজিব আহসান ও আকরামুল হাসান।

রাজিব আহসান ১৯৯৫-৯৬ শিক্ষাবর্ষে ঢাবি বাংলা বিভাগে ভর্তি হন, সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসান অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগে ভর্তি হন ১৯৯৭-৯৮ শিক্ষাবর্ষে। দুজনেই চল্লিশোর্ধ্ব বয়স।

বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি আল মেহেদী তালুকদার ২০০২-০৩ শিক্ষাবর্ষে অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগে, সাধারণ সম্পাদক আবুল বাশার ২০০৩-০৪ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হন তৎকালীন সংস্কৃত ও পালি বিভাগে ভর্তি হন। তাদের দুজনেরই বয়স ত্রিমের ওপর।

ফলে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় ও বিশ্ববিদ্যালয় কমিটির মূল নেতাদের কেউই প্রার্থী হতে পারছেন না। এ কারণে যোগ্য প্রার্থী সংকট দেখা দিতে পারে বিএনপির ভ্যানগার্ড ছাত্রদলে।

তবে দলটির শীর্ষ নেতারা বলছেন, সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে পরিচিতি আছে, নেতিবাচক কর্মকাণ্ডে জড়ানোর রেকর্ড নেই, ফল ভালো এবং সাংগঠনিক প্রজ্ঞার অধিকারী- এমন শিক্ষার্থীদেরই ভিপি-জিএস-এজিএস পদে ভাবা হচ্ছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ২০০৭-৮ সেশনে ভর্তি হওয়া নাসির উদ্দিন নাসির বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রদলের সহ সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি বলছেন, এখনও প্রার্থী চূড়ান্ত হয়নি। ছাত্রদল বিশ্ববিদ্যালয়ে সহাবস্থান চায়। ভয়মুক্ত, সন্ত্রাসহীন ও আস্থাশীল পরিবেশে নির্বাচন করতে চায়। এজন্য ভোটকেন্দ্র হলের বাইরে রাখারও দাবি জানিয়েছি। কিন্তু প্রশাসন সে দাবি মানেনি। শিক্ষার্থীবান্ধব, সৃজনশীল নেতৃত্ব, পরিশ্রমী ও মেধাবীরাই ছাত্রদলের প্যানেলে নির্বাচন করবে।

 গো নিউজ২৪/এমআর

শিক্ষা বিভাগের আরো খবর
৬ দফা দাবিতে উপাচার্যের কার্যালয় ঘেরাও

৬ দফা দাবিতে উপাচার্যের কার্যালয় ঘেরাও

ঢাবি ফিন্যান্স অ্যালামনাই এসোসিয়েশন এফএএ‍‍`র পূণর্মিলনী অনুষ্ঠিত

ঢাবি ফিন্যান্স অ্যালামনাই এসোসিয়েশন এফএএ‍‍`র পূণর্মিলনী অনুষ্ঠিত

রাতভর বোমা ভেবে বেগুন পাহারা

রাতভর বোমা ভেবে বেগুন পাহারা

বুধবারের এসএসসি পরীক্ষা পেছাল

বুধবারের এসএসসি পরীক্ষা পেছাল

আইসিটি প্রশ্নের অন্য পৃষ্ঠায় ক্যারিয়ার শিক্ষা, পরীক্ষা বাতিল 

আইসিটি প্রশ্নের অন্য পৃষ্ঠায় ক্যারিয়ার শিক্ষা, পরীক্ষা বাতিল 

ডাকসু নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থী যারা

ডাকসু নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থী যারা