ঢাকা সোমবার, ০৮ মার্চ, ২০২১, ২৩ ফাল্গুন ১৪২৭

শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তে কাদের মির্জার অব্যাহতি স্থগিত


গো নিউজ২৪ | নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২১, ১০:১৩ পিএম
শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তে কাদের মির্জার অব্যাহতি স্থগিত

বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জাকে উপজেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী কমিটি থেকে অব্যাহতি দেওয়ার মাত্র দুই ঘণ্টা পরই তা প্রত্যাহার করা হয়েছে। নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যক্ষ খায়রুল আনম সেলিম এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, নোয়াখালী আওয়ামী লীগের বিষয়ে আলোচনা নেত্রীর (শেখ হাসিনা) টেবিলে রয়েছে। তাই নেত্রীর সিদ্ধান্তের জন্য কাদের মির্জাকে অব্যাহতির চিঠি প্রত্যাহার করা হয়েছে। 

এর আগে শনিবার (২০ জানুয়ারি) বিকেল ৪টার দিকে আবদুল কাদের মির্জাকে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী কমিটির সদস্য পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। জেলা আওয়ামী লীগের প্যাডে এক চিঠিতে তাকে এ অব্যাহতি দেওয়া হয়। তাতে নোয়াখালী আওয়ামী লীগের সভাপতি এএইচএম খায়রুল আনম চৌধুরী সেলিম ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ একরামুল করিম চৌধুরীর স্বাক্ষর করেন। অব্যাহতির সঙ্গে দলীয় গঠনতন্ত্রপরিপন্থী কাজে জড়িত থাকার অভিযোগে কাদের মির্জাকে দল থেকে চূড়ান্তভাবে বহিষ্কারের জন্য আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদে সুপারিশ করা হয়।

দল থেকে অব্যাহতি পাওয়ার প্রতিক্রিয়ায় শনিবার রাত পৌনে ৮টার দিকে ঢাকা পোস্টকে আবদুল কাদের মির্জা বলেন, আমাকে বহিষ্কার করার একরামুল করিম চৌধুরী কে? আমাকে বহিষ্কারের ক্ষমতা নেই তার।

তিনি বলেন, তার নিজের (একরামুল করিম চৌধুরী) কমিটির অনুমোদন নেই; আসছে আমাকে বহিষ্কার করতে। আমার নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যদি বলেন আমি বহিষ্কার, তাহলে আমি তার কথা মাথা পেতে নেব। এছাড়া অন্য কারও কথা কিংবা বহিষ্কারে আমার কিছু যায় আসে না।

কাদের মির্জা বলেন, আমাকে বহিষ্কারের কিছুই নেই। জেলা আওয়ামী লীগের সঙ্গে আমার কোনো সম্পৃক্ততা নেই। এটি একটি অবৈধ কমিটি। এই কমিটির অস্তিত্ব নেই। আমাকে বহিষ্কারের ক্ষমতা নেই তাদের। 

কাদের মির্জাকে অব্যাহতি দেওয়ার পর নোয়াখালী-৪ আসনের সাংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরী ঢাকা পোস্টকে বলেন, আমি সম্মেলনের মাধ্যমে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হয়েছি। আমি উনাকে অব্যাহতি দিতে পারি। উনি যা ইচ্ছা বললেই হবে না।

আবদুল কাদের মির্জা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই। শনিবার তার অব্যাহতির প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, কয়েক সপ্তাহ ধরে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর সন্ত্রাসী লেলিয়ে দিয়ে গুরুতর আহত করেছেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির নেতৃবৃন্দ ও নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ সম্পর্কে মিথ্যা, অশালীন ও আপত্তিকর বক্তব্য দিয়েছেন তিনি। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে লাইভে এসে সংগঠনবিরোধী অশোভনীয় মন্তব্য ও নেতাকর্মীদের হুমকি দিয়েছেন। এসব অভিযোগে আবদুল কাদের মির্জাকে সংগঠনের সব কার্যক্রম থেকে অব্যাহতি দেওয়া হলো।

দেশজুড়ে বিভাগের আরো খবর
স্বপ্নের সিঁড়িটা থেমে গেল অন্তরার

স্বপ্নের সিঁড়িটা থেমে গেল অন্তরার

পাঁচ ভাই-বোনের একই দিনে বিয়ে

পাঁচ ভাই-বোনের একই দিনে বিয়ে

ভাড়াটিয়া সংকট কাটছে না খুলনার বাড়িওয়ালাদের

ভাড়াটিয়া সংকট কাটছে না খুলনার বাড়িওয়ালাদের

শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তে কাদের মির্জার অব্যাহতি স্থগিত

শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তে কাদের মির্জার অব্যাহতি স্থগিত

মতলব উত্তরে আ.লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা

মতলব উত্তরে আ.লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা

পটিয়ায় গুলিতে কাউন্সিলর প্রার্থীর ভাই নিহত

পটিয়ায় গুলিতে কাউন্সিলর প্রার্থীর ভাই নিহত