ঢাকা মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর, ২০১৯, ৫ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬

১৫ বছর পর স্ত্রীর পরকীয়া প্রেমিককে খুন


গো নিউজ২৪ | নিজস্ব প্রতিনিধি: প্রকাশিত: আগস্ট ২৬, ২০১৯, ০৭:২৭ পিএম
১৫ বছর পর স্ত্রীর পরকীয়া প্রেমিককে খুন

অবশেষে উদঘাটন হয়েছে যশোরে কৃষক মিনারুল হত্যার রহস্য। ১৫ বছর আগের পরকীয়ার প্রতিশোধ নিতে তাকে খুন করে হাফিজুর রহমান।

সদর উপজেলার সালতা গ্রামে ১৪ আগস্ট রাতে খুন হন মিনারুল। তদন্তে এ রহস্য উদঘাটন ও হত্যার অভিযোগে হাফিজুর রহমান নামে ওই ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

১৮ আগস্ট এ হত্যার ঘটনায় পুলিশ নিহত মিনারুলের স্ত্রী সাথী বেগম ও আলাউদ্দিন নামে এক ব্যক্তিকে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে। সাথী বেগমকে পাঁচ দিন পর থানা থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়। তার আগে ছাড়া পান আলাউদ্দিন। এরপর শনিবার  তদন্তের দায়িত্ব পায় পিবিআই। রোববার রাতে তারা এ হত্যা রহস্য উদঘাটন করে।

পিবিআই যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এমকেএইচ জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, সদর উপজেলার সালতা মাঠপাড়ার মৃত সদর আলী মোল্লার ছেলে মিনারুল ইসলাম ওসমানপুর গ্রামের চাঁদ আলী মোল্লার ছেলে আব্দুল মান্নানের বন্ধু। সেই সুবাদে ১৫ বছর আগে তিনি আব্দুল মান্নানের বাড়িতে দর্জির কাজ শেখার জন্য যাতায়াত করতেন। সেখানে যাতায়াতের এক পর্যায়ে বন্ধুর বড়ভাই হাফিজুর রহমানের (৪৮) স্ত্রীর সঙ্গে তার অবৈধ সম্পর্ক গড়ে ওঠে। একদিন রাতে হাফিজুর রহমান তার স্ত্রীর সঙ্গে মিনারুল ইসলামের শারীরিক সম্পর্ক দেখে ফেলেন। বিষয়টি অবশ্য হাফিজুর কাউকে বলেননি। মিনারুল এ জন্য তার কাছে ক্ষমা চেয়ে নেন। কিন্তু স্ত্রীর অবৈধ সম্পর্ক মেনে নিতে পারেননি হাফিজুর। তিনি স্ত্রীকে তালাক দেন। পরে এক নারীকে তিনি ফের বিয়ে করেন। কিন্তু প্রথম স্ত্রীকে তিনি ভুলতে পারেননি।

পিবিআই জানায়, এ বছরের ১৩ আগস্ট ঈদের পরদিন রাত ১টার দিকে মিনারুলের বাড়ি গিয়ে হাফিজুর তাকে ঘুম থেকে ডেকে তোলেন। পরে তারা দু’জনে বাড়ির পাশের আমবাগানের নিচে বসে বিড়ি খান। পরদিন ১৪ আগস্ট রাত সাড়ে ১০টার দিকে হত্যার উদ্দেশ্যে হাফিজুর খালি গায়ে একটি দা নিয়ে মিনারুলের বাড়ির কাছে জনৈক ইসমাইলের বাগানে লুকিয়ে রাখেন। এরপর তিনি মিনারুলের বাড়ি গিয়ে তার সঙ্গে দেখা করেন। পরে তিনি বাড়ির বাইরে গিয়ে সুযোগের অপেক্ষায় থাকেন। এ সময় বাড়িতে মিনারুলের স্ত্রী মোবাইল ফোনে ভারতীয় সিআইডি সিরিয়াল দেখছিলেন।

সূত্র জানায়, ওই রাতে মিনারুল বাড়িতে গরুর জন্য বিচালি কাটছিলেন। এক পর্যায়ে তিনি দুই আঁটি বিচালি গাদায় রাখতে গেলে রাস্তা থেকে তাকে ডাক দেন হাফিজুর। পরে মিনারুলকে কৌশলে ইসমাইলের বাগানে নিয়ে ‘ম্যাগনেট জাতীয় কিছু আছে’ জানিয়ে তাকে খুঁজতে বলেন। এ সময় মিনারুল টর্চলাইট দিয়ে তা খুঁজতে শুরু করলে, লুকিয়ে রাখা দা দিয়ে আচমকা তার ওপর হামলা চালান হাফিজুর। তিনি এ সময় তাকে কুপিয়ে হত্যা করেন। পরে দা নিয়ে বাড়ি চলে যান।

সূত্র জানায়, হাফিজুরের স্বীকারোক্তিতে তার ঘরের খাটের নিচ থেকে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত দা উদ্ধার করা হয়েছে।

পিবিআই জানায়, শনিবার বিকেল পৌনে ৩ টার দিকে তারা ওসমানপুর গ্রাম থেকে হাফিজুরকে আটক করেন। 

এদিকে আদালত সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, রবিবার আটক হাফিজুরকে আদালতে সোপর্দ করে পিবিআই। এ সময় তিনি সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট গৌতম মল্লিকের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন। পরে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

গো নিউজ২৪/আই

দেশজুড়ে বিভাগের আরো খবর
অতিরিক্ত লবণ কেনায় ২ ক্রেতাকে জরিমানা

অতিরিক্ত লবণ কেনায় ২ ক্রেতাকে জরিমানা

সিলেটে লবন নিয়ে লঙ্কাকাণ্ড

সিলেটে লবন নিয়ে লঙ্কাকাণ্ড

গাঁজার বস্তার ওপর গভীর ঘুম

গাঁজার বস্তার ওপর গভীর ঘুম

রাজস্থলীতে দু’পক্ষের গোলাগুলিতে ৩ জন নিহত

রাজস্থলীতে দু’পক্ষের গোলাগুলিতে ৩ জন নিহত

ট্রাক থেকে পেঁয়াজ কিনতে গিয়ে ২ জন গুলিবিদ্ধ

ট্রাক থেকে পেঁয়াজ কিনতে গিয়ে ২ জন গুলিবিদ্ধ

হরিনাকুণ্ডে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ একজন নিহত

হরিনাকুণ্ডে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ একজন নিহত