ঢাকা সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২ ফাল্গুন ১৪২৬

মাগুরায় ‘রিফাত স্টাইলে’ লিসানকে কুপিয়ে হত্যা


গো নিউজ২৪ | নিজস্ব প্রতিনিধি: প্রকাশিত: জুলাই ৭, ২০১৯, ০৬:২২ পিএম আপডেট: জুলাই ৭, ২০১৯, ০৬:৫৫ পিএম
মাগুরায় ‘রিফাত স্টাইলে’ লিসানকে কুপিয়ে হত্যা

এবার মাগুরা শহরতলীর বাটিকাডাঙ্গা এলাকার মডার্ন মোড়ে বরগুনার রিফাত হত্যার স্টাইলে (ছুরিকাঘাতে) হত্যার ঘটনা ঘটেছে। রোববার দুপুরে প্রকাশ্যে লিসান (১৮) নামে এক কলেজ ছাত্রকে হত্যা করা হয়েছে। 

নিহত লিসান আঠারোখাদা ইউনিয়নের মঠবাড়ি এলাকার রফিকুল ইসলামের ছেলে। তিনি সরকারি হোসেন শহীদ কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র ছিলেন। এ ঘটনায় লিসানের বন্ধু দিপু গুরুতর আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

জানা গেছে, কলেজ শেষে মোটরসাইকেলে তিন বন্ধুকে নিয়ে ঘুরতে বের হন লিসান। তারা বাটিকাডাঙ্গা এলাকার শিবরামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে পৌঁছালে তাদের মোটরসাইকেল থামিয়ে বুকে ও পেটে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে ওই গ্রামের টিপু মিয়ার ছেলে সোহেল।

এসময় বাধা দিতে গেলে বন্ধু দিপুকে ছুরিকাঘাত করা হয়। এতে গুরুতর আহত হন দিপু। ঘটনার পরপর তাদের মাগুরা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করা হলে দুপুর দেড়টার দিকে লিসানের মৃত্যু হয়। 

লিসানের ওপর হামলার উদ্দেশ্য সম্পর্কে পুলিশ বা এলাকাবাসী সঠিক কোনো ধারণা দিতে পারেনি। তবে হামলাকারী সোহেল ও তার পরিবারের সঙ্গে অপরাধ জগতের সংশ্লিষ্টতার অনেক তথ্য জানা গেছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, সোহেলের বাবা টিপু এবং চাচা লিপু অতীতে যশোরে বসবাস করতেন। সেখানে বিভিন্ন অপরাধ কর্মের সঙ্গে তারা জড়িয়ে পড়েন। যে কারণে বছর পনের আগে তারা সেখান থেকে লুকিয়ে মাগুরা চলে আসেন। বাড়ি তৈরি বসবাস করছিলেন শিবরাপুর গ্রামেই। কিন্তু এখানেও পরিবারটি নানা বিরোধে জড়িয়ে পড়ে। প্রায়ই বিভিন্ন থানা থেকে পুলিশ তাদের পরিবারের কাউকে না কাউকে আটক করে নিয়ে যায় বলে দেখা যায়।

এ বিষয়ে মাগুরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম বলেন, ঘটনার পরপর পুলিশের সবকটি ইউনিটকে একটিভ করা হয়েছে। হত্যাকাণ্ডে সঙ্গে জড়িত অপরাধীকে আটক করতে শহর থেকে বেরিয়ে যাবার প্রতিটি পয়েন্ট সিল করে দেয়া হয়েছে। আশা করি খুব শিগগিরই তাকে আটক করা সম্ভব হবে।

গো নিউজ২৪/আই

দেশজুড়ে বিভাগের আরো খবর
সিএনজি-ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৩ 

সিএনজি-ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৩ 

বাবাকে হত্যায় ছেলেসহ ৪ জনের ফাঁসি

বাবাকে হত্যায় ছেলেসহ ৪ জনের ফাঁসি

প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে গিয়ে নিজেই ফেঁসে গেলেন যুবদল নেতা

প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে গিয়ে নিজেই ফেঁসে গেলেন যুবদল নেতা

টং দোকানে চা পানে অসুস্থ ১১, দোকানী অজ্ঞান

টং দোকানে চা পানে অসুস্থ ১১, দোকানী অজ্ঞান

বিয়ে ৪ দিন পর, কুকুর বাঁচাতে গিয়ে জীবন গেল শিক্ষিকার

বিয়ে ৪ দিন পর, কুকুর বাঁচাতে গিয়ে জীবন গেল শিক্ষিকার

‘৬৪ জেলায় আমার মতো ছেলে জন্ম নিলে দেশে সরকার লাগতো না’

‘৬৪ জেলায় আমার মতো ছেলে জন্ম নিলে দেশে সরকার লাগতো না’