ঢাকা বুধবার, ১৯ জুন, ২০১৯, ৫ আষাঢ় ১৪২৬

সাক্ষীর হাত-পা কেটে হত্যা করলো আসামিরা


গো নিউজ২৪ | নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশিত: জুন ১৩, ২০১৯, ০২:৫৬ পিএম আপডেট: জুন ১৩, ২০১৯, ০৮:৫৬ এএম
সাক্ষীর হাত-পা কেটে হত্যা করলো আসামিরা

নাটোর: জেলার গুরুদাসপুরের স্বামী পরিত্যাক্ত নারী সফুরা খাতুন হত্যা মামলার সাক্ষী জালাল উদ্দিনকে আদালতে সাক্ষ্য দিতে যাওয়ার পথে কুপিয়ে হত্যা করেছে মামলার আসামিরা।

বৃহস্পতিবার রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় জালাল। নিহত জালাল উদ্দিন উপজেলার যোগিন্দ্র নগর গ্রামের আমজাদ হোসেনের ছেলে।

গুরুদাসপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোজাহারুল ইসলাম খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।  

জানা গেছে, ২০১৩ সালের ১৩ মে উপজেলার যোগেন্দ্র নগর গ্রামের ওই নারীকে শারীরিক নির্যাতনের পর হত্যা করে নদীতে ফেলে দেয় সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনায় নিহতের ভাই বাদী হয়ে সাইফুল ইসলাম, শরিফুল ইসলাম, রফিকুল ইসলামসহ আরো কয়েকজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে মামলা করেন। মামলায় জালাল উদ্দিনকে প্রধান সাক্ষী করা হয়।

সেই হত্যা মামলায় আজ আদালতে সাক্ষীর হাজিরার দিন নির্ধারিত ছিল। সকালে জালাল উদ্দিন সাক্ষ্য দিতে আদালতে যাওয়ার জন্য বাড়ি থেকে বের হলে পথে যোগেন্দ্র নগর বাজারের কাছে ওই মামলার আসামিরা ধারালো অস্ত্র নিয়ে তার ওপর হামলা করে। এ সময় তারা জালাল উদ্দিনের ডান হাত কেটে নেয় এবং বাম হাতসহ পা কুপিয়ে জখম করে।

পরে স্থানীয়রা আহত অবস্থায় উদ্ধার করে তাকে প্রথমে গুরুদাসপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। জালালের অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (রামেক) পাঠানো হয়। পরে রামেকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা যায়।

গো নিউজ২৪/এমআর

দেশজুড়ে বিভাগের আরো খবর
নদীতে ভেসে উঠল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর লাশ     

নদীতে ভেসে উঠল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর লাশ     

যাত্রীবাহী সুন্দরবন-১০ লঞ্চে আগুন

যাত্রীবাহী সুন্দরবন-১০ লঞ্চে আগুন

পিস্তল রেখে নামাজে এসআই, এসে দেখেন গায়েব

পিস্তল রেখে নামাজে এসআই, এসে দেখেন গায়েব

সমকামিতায় বাধ্য করার শ্রমিকনেতা নুরুলকে হত্যা

সমকামিতায় বাধ্য করার শ্রমিকনেতা নুরুলকে হত্যা

স্ত্রী বাড়ি চলে যাওয়ায় দুই শ্যালককে গাছে বেঁধে মারধর

স্ত্রী বাড়ি চলে যাওয়ায় দুই শ্যালককে গাছে বেঁধে মারধর

গর্ত ভরাট কাজের উদ্বোধন করলেন নুনু মিয়া

গর্ত ভরাট কাজের উদ্বোধন করলেন নুনু মিয়া