ঢাকা বুধবার, ১৯ জুন, ২০১৯, ৫ আষাঢ় ১৪২৬

ডিভোর্স না দেয়ায় গৃহবধূর বাবার বাড়িতে সুমনের নির্দেশে হামলা


গো নিউজ২৪ | নিজস্ব প্রতিনিধি: প্রকাশিত: জুন ৮, ২০১৯, ০৮:০৮ পিএম আপডেট: জুন ৮, ২০১৯, ০৮:১৬ পিএম
ডিভোর্স না দেয়ায় গৃহবধূর বাবার বাড়িতে সুমনের নির্দেশে হামলা

স্বামীর সাথে সম্পর্ক ছিন্ন না করায় কুমিল্লার মনোহরগঞ্জে এক গৃহবধূর (তাহমিনা আক্তার) বাবার বাড়িতে হামলার অভিযোগ উঠেছে। গত বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার ধিকচান্দা গ্রামের মৈশান বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

অভিযোগকারী গৃহবধূ ধিকচান্দা গ্রামের আব্দুল গনির মেয়ে। তার স্বামী বচইড় গ্রামের আবুল হাসেমের ছেলে সাফায়েত হোসেন মিন্টু।

গৃহবধু বলেন, প্রায় ১ বছরের সম্পর্কের পর ২০১৬ সালের ১৬ মে কোর্টে আমাদের বিয়ে হয়। তবে আমাদের বিয়ে মেনে নেয়নি স্বামীর পরিবার। আমাকে বিয়ে করার জন্য মিজানুর রহমান সুমন (মামা শ্বশুর) আমার স্বামীকে বিভিন্নভাবে নির্যাতন করে।

পরবর্তীতে আমার মামা শ্বশুর এলাকার প্রভাবশালী মিজানুর রহমান সুমন ও খলিলুর রহমান মামুন তাকে (সাফায়েত হোসেন মিন্টু) আবারো বিয়ে করতে বাধ্য করে। পাশের গ্রাম ঝলমে গোপনে রাতের আধারে এ বিয়ে সম্পন্ন হয়। 

এর মাঝে গর্ববতী হয়ে পড়েন ওই গৃহবধু। তবে দুটি মৃত জমজ সন্তানের জন্ম দেন তিনি।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজে মাস্টারস পড়ুয়া নির্যাতিতা গৃহবধু জানান, তাকে বিভিন্ন সময়ে মিজানুর রহমান সুমনের লোকজন হয়রানি করতো। তার ছবি বিকৃতি করে ফেসবুকে গুজব ছড়াতো।

পরবর্তীতে তিনি আবারো গর্ববতী হন এবং কন্যা সন্তানের জন্ম দেন।

তিনি বলেন, ক্ষমতার দাপটে মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে আমার স্বামীকে আটক করে জেলে পাঠায় মিজানুর রহমান সুমন। পরে আমি জামিনে জেল থেকে বের করি।

নির্যাতিতা গৃহবধুর ভাষ্য, আমার মামা শ্বশুর মিজানুর রহমান সুমন আমাদের সম্পর্ক মেনে নেয়ার কথা বলে আমার স্বামীকে ডেকে নেয়। এরপর তাকে আটক করে রাখে। এবং নির্দেশ দেয়, যাতে আমাকে নির্যাতন করে। 

কেন? উত্তরে গৃহবধূ বলেন, আমার এক হাত নেই, এটাই হলো তাদের সমস্যা। কিন্তু আমার স্বামীর তো কোনো সমস্যা নাই এ নিয়ে। জন্ম থেকে আমার এই প্রতিবন্ধকতা, এটা আমার স্বামী মেনে নিয়েছে। কিন্তু তারা মানতে নারাজ। মামা শ্বশুরের কথা মতো আমার স্বামী আমার উপরে যৌতুকের জন্য নির্যাতন শুরু করে। পরবর্তীতে আমার বাবা-মা ১ লাখ টাকা যৌতুন দেয়।

এসব ঘটনায় থানায় দুটি জিডিও করেন এই গৃহবধূ।

তিনি বলেন, সন্তানকে নিয়ে শ্বশুর বাড়িতে গেলে এলাকার জাহাঙ্গীর মেম্বার, মামা শ্বশুর খলিলুর রহমান মামুন, শ্বশুর আবুল হাসেম, স্বামী সাফায়েত হোসেন মিন্টু আমাকে মারধর করে। সন্তান আমার কোলে থাকায় বুকে প্রচন্ড আঘাত পায় সে। সেই আঘাতের ব্যাথায় সন্তান আমার গত ৩১ মে মারা যায়। 

এঘটনা থানায় জানালে, পুলিশ এসে জাহাঙ্গীর মেম্বার ও আমার শ্বশুর আবুল হাসেমকে গ্রেফতার করে। তবে আমিই তাদেরকে পুলিশের হাত থেকে ছাড়িয়ে আনি। জানালেন তাহমিনা আক্তার। 

এদিকে মামা শ্বশুর খলিলুর রহমান মামুনের আশ্বাসে কোনো মামলা করেনি গৃহবধূ।

এর কয়েকদিন পর গৃহবধূর বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠে অবৈধ সন্তান জন্ম দিয়েছেন তিনি। ঘটনাটি মিথ্যা অভিযোগ উল্লেখ্য করে গৃহবধূ তাহমিনা বলেন, ঘটনাটি পুরোপুরি মিথ্যা। এর আগেও তারা এমন অনেক মিথ্যা অভিযোগ করেছে। এমনকি আমার ছবি বিকৃতি করে ফেসবুকে ছড়িয়ে দিয়েছে।

আর এসব ঘটনার জেরে গত বৃহস্পতিবার ৬ জুন আমার বাবার বাড়িতে হামলা করে মিজানুর রহমান সুমনের লোকজন। যারা হামলা করেছে তাদের কয়েকজনকে আমি চিনি। হামলাকারীদের মধ্যে কয়েকজন হলো- দিকছান্দা গ্রামের মোকসেদ মাষ্টারের ছেলে রুবেল, জাহাঙ্গীর মেম্বার, আলমগীর ও খোরশেদ। বললেন গৃহবধূ।

তিনি বলেন, হামলাকারীরা আমার মা ও বড় বোনকে মারধর করে। আমাদের ঘর ভাঙচুর করে। স্বর্ণলোঙ্কার ও নগদ ৪ লাখ নিয়ে যায় তারা।

হামলায় আহত গৃহবধুর বড় বোন বলেন, আমার দুর সম্পর্কের দেবর বাবু আর আমার ছোট ভাই মামুনকে খোজ করে। এরপরই তারা হামলা করে। আঘাত পেয়ে আমি অজ্ঞান হয়ে পড়ে যাই।

‘আমাকে বিয়ে করার আগে আমার স্বামী আরো দুটি বিয়ে করে। এবং আমার বিয়ের পরে আরো একটি। তবে তার কোনো স্ত্রীকেই মেনে নেয়নি তার পরিবার।’ যোগ করেন গৃহবধূ তাহমিনা। 

হামলার ঘটনা সম্পর্কে মনোহরগঞ্জ থানার ওসির কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এ সম্পর্কে কোনো অভিযোগ আমাদের কাছে আসেনি।’

এ ঘটনায় মিজানুর রহমান সুমনের ছোট ভাই খলিলুর রহমান মামুনকে একাধিকবার ফোন করেও কোনো উত্তর পাওয়া যায়নি। 

গো নিউজ২৪/জাবু/জেড

দেশজুড়ে বিভাগের আরো খবর
নদীতে ভেসে উঠল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর লাশ     

নদীতে ভেসে উঠল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর লাশ     

যাত্রীবাহী সুন্দরবন-১০ লঞ্চে আগুন

যাত্রীবাহী সুন্দরবন-১০ লঞ্চে আগুন

পিস্তল রেখে নামাজে এসআই, এসে দেখেন গায়েব

পিস্তল রেখে নামাজে এসআই, এসে দেখেন গায়েব

সমকামিতায় বাধ্য করার শ্রমিকনেতা নুরুলকে হত্যা

সমকামিতায় বাধ্য করার শ্রমিকনেতা নুরুলকে হত্যা

স্ত্রী বাড়ি চলে যাওয়ায় দুই শ্যালককে গাছে বেঁধে মারধর

স্ত্রী বাড়ি চলে যাওয়ায় দুই শ্যালককে গাছে বেঁধে মারধর

গর্ত ভরাট কাজের উদ্বোধন করলেন নুনু মিয়া

গর্ত ভরাট কাজের উদ্বোধন করলেন নুনু মিয়া