ঢাকা মঙ্গলবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৪ পৌষ ১৪২৫

খুলে দেয়া হচ্ছে চন্দ্রা-এলেঙ্গা ফোর লেন    


গো নিউজ২৪ |  মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি  প্রকাশিত: জুন ১২, ২০১৮, ১২:১২ পিএম
খুলে দেয়া হচ্ছে চন্দ্রা-এলেঙ্গা ফোর লেন    

নিত্য নিরব যানজটপ্রবন ঢাকা- টাঙ্গাইল মহাসড়ক। যেখানে চলাচলকারী যাত্রী সাধারণের নিত্য সঙ্গী যানজট। দেশের অন্যতম যানজটপ্রবণ এই মহাসড়ক ঢাকা-টাঙ্গাইল কেমন হবে এবারের ঈদ যাত্রা সেই ভাবনা সকলের। মহাসড়কে চলাচলকারী চালক ও যাত্রীদের মনে শঙ্কা থাকলেও প্রশাসন নিয়েছে ব্যাপক প্রস্তুতি।আজ থেকে খুলেদেয়া হচ্ছে চন্দ্রা থেকে এলেঙ্গা পর্যন্ত চার লেন রাস্তা।

ঢাক-টাঙ্গাইল মহাসাড়ক যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। গত কয়েক বছরের নির্বিঘ্ন  ঈদযাত্রার চেয়ে এবার রয়েছে আরো বেশি প্রস্তুতি। এবারের ঈদযাত্রা নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করতে গাজীপুরের চন্দ্রা থেকে টাঙ্গাইলের এলেঙ্গা পর্যন্ত প্রায় ৭০ কিলোমিটার মহাসড়ক তিনটি সেক্টরে ভাগ করে ১০ ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে জেলা প্রশাসন ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। তবে ফোর লেনের নির্মাণ কাজের খোঁড়াখুঁড়ি ও খানা খন্দক নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন অনেকে।

সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ঈদে ঘরমুখো মানুষকে আশ্বস্ত করে বলেছেন আজ ১২ জুনের মধ্যে গাজিপুরের চন্দ্রার ত্রিমোড় থেকে টাঙ্গাইলের এলেঙ্গা পর্যন্ত ৭০ কিলোমিটার সড়কের চার লেন খুলে দেয়া হবে। সড়কের কারনে কোন যানজট হবেনআ বলে তিনি উল্লেখ করেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, দেশের যানজটপ্রবণ মহাসড়কের মধ্যে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক অন্যতম। এই মহাসড়কটি দিয়ে প্রতিদিন ২৬টি জেলার ৮ থেকে ১০ হাজার যানবাহন চলাচল করে থাকে। ঈদ মৌসুমে তা আরো কয়েক গুণ বৃদ্ধি পায়।বছরের প্রায় প্রতিদিনই কমবেশি যানজট লেগে থাকে সড়কটিতে। কোন কোন দিন যানজট দিন ও রাত গড়িয়ে যায়। এতে সাধারণ যাত্রী ও চালকদের সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হয়। এছাড়া ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ফোর লেনের কাজ শুরু হওয়ার পর থেকে সড়কটিতে মানুষের দুর্ভোগ অনেকাংশে বেড়ে গেছে। এর মধ্যে ধেরুয়া রেলক্রসিং যানজট সৃষ্টির অন্যতম একটি পয়েন্ট। যমুনা রেল সংযোগ সড়ক দিয়ে কমপক্ষে ১২টি ট্রেন চলাচল করে। এতে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের ধেরুয়া রেল ক্রসিংয়ে প্রতিদিন ২৪ বার বেরিয়ার ফেলতে হয়। এখানে সৃষ্ট যানজট কোন কোন সময় দীর্ঘস্থায়ী হওয়ায় সাধারণ যাত্রীদের দুর্ভোগ পোহাতে হয়। বিশেষ করে ঈদের সময় এই দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করে। এই দুর্ভোগ থেকে পরিত্রাণ পেতে ঈদের সময় মহাসড়কটিতে যানজটমুক্ত রাখতে বিশেষ কিছু ব্যবস্থা নিয়েছে প্রশাসন এবং আইন শৃঙ্খলা বাহিনী।

এদিকে মহাসড়কে ফোর লেনের নির্মাণ কাজের খোঁড়াখুঁড়ি ও খানাখন্দক নিয়ে শঙ্কা রয়েছে অনেকের মধ্যে। বৃষ্টি নামলেই গতি কমে যায় গাড়ির চাকার, শুরু হয় যানজট। সরেজমিনে দেখা গেছে মহাসড়কের মির্জাপুর বাইপাসে আন্ডারপাস নির্মাণের জন্য উভয় পাশে মাটি গর্ত করা হয়েছে। অনেকটা ঝুঁকির মধ্যে চলাচল করছে যানবাহন। নির্মাণ কাজে কর্তব্যরত প্রকৌশলী পাপ্পি বলেন, ঈদযাত্রার জন্য যাতে কোন অসুবিধা না হয় তার জন্য আমরা নজর রাখছি। আন্ডারপাসের গর্ত খুব শীঘ্রই ভরে ফেলা হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

মির্জাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ একেএম মিজানুল হক জানান, গাজীপুরের চন্দ্রা থেকে টাঙ্গাইলের এলেঙ্গা পর্যন্ত ৭০ কিলোমিটার মহাসড়কের মধ্যে মির্জাপুর অংশের যানজটপ্রবণ এলাকা মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজ থেকে জামুর্কী পর্যন্ত প্রায় ৩০ কিলোমিটার মহাসড়ককে দুইটি সেক্টরে ভাগ করা হয়েছে। এতে ক্যাডেট কলেজ থেকে ধেরুয়া রেল গেট পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করবে গোড়াই হাইওয়ে পুলিশ এবং ধেরুয়া থেকে জামুর্কী পর্য়ন্ত দায়িত্ব পালন করবে টাঙ্গাইল জেলা পুলিশ। জেলা পুলিশের নির্দেশ মোতাবেক মির্জাপুর থানার আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা সদা প্রস্তুত রয়েছে যানজটমুক্ত রাখতে এবং যাত্রীদের নিরাপত্তা দিতে।

মির্জাপুর অংশে ১৭ টি পয়েন্টে অবস্থান নিয়ে আইন -শৃঙ্খলা বাহিনী দায়িত্ব পালন করবে। এ বিষয়ে টাঙ্গাইলে একটি সমন্বয় সভাও হয়েছে। সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ঈদের সময় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক যানজটমুক্ত রাখতে কমপক্ষে ১০ ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে ওসি মিজানুল হক জানিয়েছেন। উল্লেখযোগ্য ব্যবস্থাগুলোর মধ্যে রয়েছে মোবাইল পেট্রোলিং, স্ট্রাইকিং ফোর্স, হোন্ডা মোবাইল, ফিক্সড ডিউটি, লিং রোডে বাঁশকল স্থাপন, রেকার ব্যবস্থা, ঈদের তিনদিন আগে ট্রাক লড়ি ও কাভার্ড ভ্যান চলাচল বন্ধ রাখা, ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলাচল করতে না দেয়া, আরিচা রোডের কালামপুর থেকে বালিয়া-উয়ার্শী-মির্জাপুর নতুন রাস্তাাটি টাঙ্গাইল অভিমুখে সচল রাখা ও ফোর লেন নির্মাণ কাজে নিয়োজিতদের জরুরী মুহূর্তে প্রস্তুত রাখা। এছাড়া একজন ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে একাধিক ভ্রাম্যমাণ আদালত মহাসড়কে দায়িত্ব পালন করবেন বলে মির্জাপুরের ইউএনও ইসরাত সাদমীন জানিয়েছেন। অন্যদিকে দুর্ঘটনা বা অনাকাক্সিক্ষত ঘটনার জন্য মির্জাপুর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সদস্যরাও সতর্ক দৃষ্টিতে থাকবে বলে তিনি জানান।

উত্তরবঙ্গে চলাচল করা হানিফ পরিবহনের চালক হুমায়ুন জানান, সড়কের বেহাল দশা আর নির্মাণকাজে ধীরগতির কারণে এখনই যে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে, ঈদের ছুটিতে ভোগান্তি আরও বাড়বে। তবে যানজট নিরসনে যদি জেলা পুলিশ ও হাইওয়ে পুলিশ তৎপর থাকে তাহলে মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক রাখাও সম্ভব বলে মনে করেন তিনি।

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে বাস চালান সুমন সাহা। রাস্তার হাল অবস্থা বর্ণনা করতে গিয়ে তিনি বেলন, ‘বর্তমানে মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে খানাখন্দ রয়েছে। অন্যদিকে মহাসড়কে চলছে চারলেনের কাজ। ঈদের আগে সড়কের খানাখন্দ ঠিক করা না হলে এবং চারলেনের কাজ সম্পন্ন না হলে এই মহাসড়কে যানজটের সৃষ্টি হবে।

ঢাকায় একটি প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকুরীরত একজন কর্মকর্তা একে এম কামরুল হক বলেন প্রতিবছর ঈদ এলেই মহাসড়কের কথা মনে করে দুশ্চিন্তায় পড়ে যাই। প্রশাসন যদিগ সঠিক ব্যবস্থা গ্রহন করে তবে আমাদের ঈদ যাত্রা স্বস্তির হবে।

আরেকজন চাকুরীজিবী জাহিদুল আলম বিপ্লব এই মহাসড়ক নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে বলেন প্রশাসন ও পুলিশ বাহিনী কাযকর পদক্ষেপ নিলে আমদের ঈদ যাত্রা নির্বিঘ্ন হবে বলে আমি মনে কনি।

গোড়াই হাইওয়ে থানার ওসি একেএম কাউসার বলেন, ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন করতে এবং সড়ক যানজটমুক্ত রাখতে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের কালিয়াকৈর রেলব্রিজ থেকে করটিয়া পাইপাস এলাকা পর্যন্ত মির্জাপুর হাইওয়ে পুলিশ প্রস্তত থাকবে। এবারের ঈদে যানজট হবেনা বলে তিনি জানান।

টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় বলেন এবারের ঈদ যাত্রা নির্বিঘ্ন করতে আইন শৃংখলা বাহিনী সদা প্রস্তুত। গাজিপুরের চন্দ্রা থেকে টাঙ্গাইলের এলঙ্গা পর্যন্ত মহাসড়ক সচল রাখতে ৮শ পুলিশ সদস্য কাজ করবে তিনি উল্লেখ করেন।

গো নিউজ২৪/এমআর

দেশজুড়ে বিভাগের আরো খবর
ধর্ষণের শিকার দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী

ধর্ষণের শিকার দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী

র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২

র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২

প্রার্থীর ব্যক্তিত্বই নৌকার বিজয় এনে দেবে

প্রার্থীর ব্যক্তিত্বই নৌকার বিজয় এনে দেবে

আপন বুদ্ধিমত্তায় বাল্যবিয়ে বন্ধ করলেন ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী

আপন বুদ্ধিমত্তায় বাল্যবিয়ে বন্ধ করলেন ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী

প্রাণনাশের হুমকিতে বগুড়ায় আশ্রয়

প্রাণনাশের হুমকিতে বগুড়ায় আশ্রয়

অসুস্থ শ্রমিকদের জন্য বুড়িমারীতে দিনব্যাপী স্বাস্থ্য ক্যাম্প

অসুস্থ শ্রমিকদের জন্য বুড়িমারীতে দিনব্যাপী স্বাস্থ্য ক্যাম্প