২৫ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩, শনিবার ১০ ডিসেম্বর ২০১৬ , ৮:৫৮ পূর্বাহ্ণ

কিছু মানুষ কেন বেশি হাসে?


গো নিউজ২৪। বাংলাদেশ সময়: ২১৫১ ঘণ্টা, ০৮ নভেম্বর ২০১৫। | ডেস্ক নিউজ। আপডেট: ০৮ নভেম্বর ২০১৫ রবিবার
কিছু মানুষ কেন বেশি হাসে?
কিছু মানুষ কেন বেশি হাসে

আপনি কি সামান্য একটি কৌতুক শুনেই হেসে কুটি কুটি হন? নাকি কোনো হাসির ঘটনা দেখলেও আপনার মুখ থমথমে হয়ে থাকে? এটা আসলে নির্ভর করে আপনার জিনের উপর।

নর্থওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটি র মনোবিজ্ঞানের গবেষক Claudia Haase যৌথ একটি গবেষণার রিপোর্টে বলেন, ‘কেন কোনো মানুষ অনেক বেশি হাসে এবং কেন কিছু মানুষ অনেক শান্ত থাকে এটা অনেক বড় রহস্য।’

Illinois এর আরেক গবেষণা বলে, ‘যখন আমরা কোনো হাসির জিনিস দেখি তখন কে কীভাবে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে তা নিয়ন্ত্রণে DNA এর বড় ভূমিকা আছে। মানুষের সংস্কৃতি ও ব্যক্তিত্বেরও বড় ভূমিকা আছে এতে।’

মস্তিস্ক থেকে নিঃসৃত সেরোটোনিন মানুষের মন-মেজাজ, রুচি ও আশা-আকাঙ্ক্ষাকে নিয়ন্ত্রণ করে। মস্তিস্ক থেকে সেরোটোনিন নিঃসৃত হয়ে সেরেটোনিন ট্রান্স পোর্টারের মাধ্যমে নার্ভের সাথে সংযোগ স্থাপন করে।

১৯৯০ সালে গবেষক Zeroed দেখেন যে, আপনার দেহে কত কপি সেরোটোনিন ট্রান্সপোর্টার তৈরি হচ্ছে তা নির্ভর করে 5HTTLPR নামক জিন- এর প্রভাবে। প্রত্যেক মানুষ তার পিতা-মাতার কাছ থেকে শর্ট অ্যালিল ও লং অ্যালিল এই দুই কপি জিন পেয়ে থাকে। দুই দশকের গবেষণায় পাওয়া গেছে যে, এই শর্ট অ্যালিলই নেগেটিভ ইমোশনের জন্য দায়ী।

‘Live Science’ এ প্রকাশিত প্রতিবেদনে পাওয়া যায় যে, যে সকল মানুষের দুই কপি শর্ট অ্যালিল আছে তারা বেশি হাসে। যাদের একটা শর্ট ও একটা লং অ্যালিল আছে তারা মধ্যম হাসে এবং যাদের দুটোই লং অ্যালিল তারা কম হাসে।

বিজ্ঞানী Haase, ‘Live Science’ কে বলেন, ‘জিনের এই শর্ট ভার্সনই মানুষকে অনেক বেশি সেন্সেটিভ করে- যা তাদের জীবনে ভালমন্দ দুই রকম প্রভাবই ফেলে।’

তিনি আরো বলেন, ‘5HTTLPR জিন এর শর্ট ভার্সন যাদের আছে সেই সব মানুষ জাঁকজমক পূর্ণ বিয়ে করে এবং তারা নেতিবাচক পরিবেশ এড়িয়ে চলে।’

Young’s তার একটি গবেষণায় পান যে, শর্ট অ্যালিল এর মানুষদের মস্তিষ্কের থ্যালামাস বড় থাকে, যা আবেগ উৎপন্ন করতে সহায়তা করে।