ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৯ জুলাই, ২০১৮, ৪ শ্রাবণ ১৪২৫
Beta Version
Sharp AC

ছাত্রলীগকর্মী হত্যা মামলার প্রধান আসামি খুন


গো নিউজ২৪ | তবিবর রহমান, যশোর প্রকাশিত: জানুয়ারি ৭, ২০১৮, ০৪:৪০ পিএম আপডেট: জানুয়ারি ৭, ২০১৮, ০৫:৩৬ পিএম
ছাত্রলীগকর্মী হত্যা মামলার প্রধান আসামি খুন
Sharp AC

যশোরের ঝিকরগাছা ছাত্রলীগের কর্মী মিলন হত্যা মামলার প্রধান আসামি রাজু সরদারের (৩০) লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার ভোরে মণিরামপুর উপজেলার স্মরণপুর গ্রামের বড়খাল এলাকার একটি সরিষাক্ষেত থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়। পুলিশের ধারণা, সন্ত্রাসীদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে রাজুর মৃত্যু হয়েছে। নিহত রাজু সরদার ঝিকরগাছা উপজেলার কৃষ্ণনগর সরদার পাড়ার রবিউল সরদারের ছেলে। তার বিরুদ্ধে হত্যাসহ অন্তত ২৮টি মামলা রয়েছে।

জানতে চাইলে মণিরামপুর থানার ওসি মোকাররম হোসেন জানান, রোববার ভোরে যশোরে মণিরামপুর উপজেলার স্মরণপুর গ্রামের বড় খাল এলাকার একটি সরিষা ক্ষেতে এক যুবকের রক্তাক্ত লাশ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিলে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

পরে রাজু সরদারের লাশ সনাক্ত হয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠানো হবে। ধারণা করা হচ্ছে সন্ত্রাসীদের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে রাজু নিহত হয়েছে। তবে গুলিবিদ্ধ নাকি ধারালো অস্ত্রের আঘাতে মৃত্যু হয়েছে সেটি ময়নাতদন্ত ছাড়া নিশ্চিত করা যাচ্ছে না। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

নিহত রাজু সরদারের ভাই বাবু সরদার সাংবাদিকদের জানান, তার ভাইকে কে বা কারা হত্যা করেছে নিশ্চিত নয়। রোববার সকালে মণিরামপুরের একটি সরিষাক্ষেতে লাশ পাওয়া গেছে। তবে রাজু পুলিশের ভয়ে বাড়িতে ঘুমাতে পারতো না। পুলিশ তাকে আটকের চেষ্টা করছিল। রাতে কোথায় ছিল জানি না।

স্থানীয়রা জানায়, যশোরের ঝিকরগাছায় আওয়ামী লীগের দুটি গ্রুপ সক্রিয় রয়েছে। একটি গ্রুপে নেতৃত্বে যশোর-২ আসনের সংসদ সদস্য মনিরুল ইসলামের আর্শীবাদপুষ্ট ঝিকরগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুসা মাহমুদ। অপর গ্রুপের নেতৃত্বে উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম। নিহত রাজু সরদার মনিরুল ইসলামের অনুসারী হিসেবে পরিচিত।

গত ১৬ ডিসেম্বর মুসা মাহমুদের অনুসারী ছাত্রলীগ কর্মী মিলন হত্যা মামলার প্রধান আসামি ছিলেন রাজু সরদার। অপরদিকে ৬ জানুয়ারি মুসা মাহমুদের অনুসারী সন্ত্রাসী পালসার বাবু র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। তিনি মনিরুল গ্রুপের অনুসারী আব্বাস মোল্লা হত্যা মামলার প্রধান আসামি ছিলেন। দুইদিনের ব্যবধানে দুই গ্রুপের দুই শীর্ষ সন্ত্রাসী নিহত হলেন। আর এক মাসের ব্যবধানে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের দুই কর্মী প্রাণ হারিয়েছে। আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের দ্বন্দ্বে অশান্ত হয়ে উঠেছে ঝিকরগাছা।

জানতে চাইলে ঝিকরগাছা থানার ওসি আবু সালেহ মাসুদ করিম বলেন, সন্ত্রাসী রাজু সরদারের বিরুদ্ধে ছাত্রলীগ কর্মী মিলন হত্যাসহ ২৮ মামলা রয়েছে। পুলিশ তাকে আটক করেনি। মণিরামপুর থানার একটি মাঠ থেকে তার লাশ উদ্ধার হয়েছে শুনছি। ঝিকরগাছায় সন্ত্রাসীদের দুটি গ্রুপের মধ্যে বিরোধ আছে। অভ্যন্তরীণ বিরোধের জের ধরে হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটতে পারে।

গোনিউজ২৪/কেআর

অপরাধ চিত্র বিভাগের আরো খবর
৭মাস ধরে কিশোরীকে দল বেঁধে ধর্ষণ, অত:পর...

৭মাস ধরে কিশোরীকে দল বেঁধে ধর্ষণ, অত:পর...

আমার প্রাণপাখি তানিয়া উড়াল দিছে!

আমার প্রাণপাখি তানিয়া উড়াল দিছে!

মোবাইলে লুডু জুয়া, বিপথগামী যুবসমাজ

মোবাইলে লুডু জুয়া, বিপথগামী যুবসমাজ

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি নারীর ১২ টুকরা লাশ

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি নারীর ১২ টুকরা লাশ

এক অভিজাত নারী চোরের গল্প

এক অভিজাত নারী চোরের গল্প

কী কারণে এই নৃশংস হত্যাকাণ্ড?

কী কারণে এই নৃশংস হত্যাকাণ্ড?

Best Electronics AC mela