১০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, শুক্রবার ২৪ নভেম্বর ২০১৭ , ১:৩৩ অপরাহ্ণ

মাঠে থৈ থৈ পানি, তলিয়ে গেছে আমন ধান


গো নিউজ২৪ | উপজেলা প্রতিনিধি আপডেট: ১৭ আগস্ট ২০১৭ বৃহস্পতিবার
মাঠে থৈ থৈ পানি, তলিয়ে গেছে আমন ধান

নন্দীগ্রাম (বগুড়া): নাগর নদীর বাঁধ ধসে বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার দুটি ইউনিয়নের ১ হাজার ২০ হেক্টর জমির আমন ধান পানির নিচে তলিয়ে গেছে। দুর্ভোগে পড়েছে ১৭টি গ্রামের প্রায় ৭ শতাধিক পরিরার।

ভারী বর্ষণ ও উজান থেকে মেনে আসা পানিতে উপজেলার পশ্চিম সীমান্তের নাগর নদী ভরে যায়। এতে করে গত মঙ্গলবার রাতে থালতা মাঝগ্রাম ইউনিয়নের পারশুন এলাকার বাঁধ ধসে যায়। ফলে পাশের গ্রামের মাঠগুলোতে পানি ঢুকে পড়ে। এছাড়া কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে ভাটরা ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামের মাঠ পানিতে প্লাবিত হয়। ফলে জমির ফসল হুমকির মুখে পড়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, উপজেলার থালতা মাজগ্রাম ইউনিয়নের বাঘাদহ, পারঘাটা, গুলিয়া, কৃষ্ণপুর, ঘুনপাড়া, জামালপুর, গোপালপুর, বনগ্রাম, পারশুন ও ভাটরা ইউনিয়নের নাগরকান্দি, দমদমা, ডেওবাড়ি, বৃষ্ণপুর, শশিনগর, চাতরাগাড়ি, কালিয়াগাড়ি, মূলকুড়ি মাঠ পানিতে থৈ থৈ করছে। পানিতে তলিয়ে গেছে কমপক্ষে ১ হাজার ২০ হেক্টর জমির আমন ধান।

পারঘাটা গ্রামের আবুল হোসেন, আইয়ুব আলী জানান, এই এলাকার বেশিরভাগ কৃষকের জমি এখন পানির নিচে। তারা অবিলম্বে নাগরনদী খননের দাবি জানান।

স্থানীয়দের অভিযোগ, পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষের নাগর নদীর বাঁধের দিকে নজর নেই। বাঁধ ধসে যাওয়ার বিষয়টি তাদের জানানোর পড়েও দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। এখন পর্যন্ত পানি উন্নয়ন বোর্ডের কেউ এখানে আসেনি।

উপজেলা কৃষি অফিসার মুহা. মশিদুল হক জানান, নাগর নদীর পানি দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ কারণে পারশুন বাঁধ ধসে থালতা মাজগ্রাম ও ভাটরা ইউনিয়নের ১৭টি গ্রামের ১০২০ হেক্টর জমির আমন ধান তলিয়ে গেছে। তবে কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে কৃষকদের ক্ষতি পুষিয়ে দেয়ার জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

গো নিউজ২৪/এমবি