১৫ আষাঢ় ১৪২৪, বৃহস্পতিবার ২৯ জুন ২০১৭ , ৩:০৮ অপরাহ্ণ

হাতীবান্ধায় মুক্তিযোদ্ধার বসতবাড়ি ভেঙে দেয়ার অভিযোগ


গো নিউজ২৪ | জেলা প্রতিনিধি আপডেট: ১৮ এপ্রিল ২০১৭ মঙ্গলবার
হাতীবান্ধায় মুক্তিযোদ্ধার বসতবাড়ি ভেঙে দেয়ার অভিযোগ

লালমনিরহাট প্রতিনিধি: জেলার হাতীবান্ধা উপজেলার ধওলাই এলাকায় এক মুক্তিযোদ্ধার বসতবাড়ি ভেঙে দেয়া অভিযোগ পাওয়া গেছে। 
মঙ্গলবার দুপুরে হাতীবান্ধার এসিল্যান্ড আজিজুর রহমার আদালতের আদেশে এ বসত বাড়ি ভেঙে দিয়েছেন বলে দাবি করেন।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আকতার আলী বলেন, “২০১০ সালে আমি ওই এলাকায় জমি কিনে পরিবার নিয়ে বসবাস করে আসছি।  মঙ্গলবার দুপুরে হঠাৎ করে হাতীবান্ধার এসিল্যান্ড আজিজুর রহমানসহ একদল পুলিশ আমাকে আমার বাড়ি ভেঙে নিয়ে যেতে বলেন।  আমি কি কারণে বাড়ি ভেঙে নিয়ে যাবো জানতে চাইলে কোনো উওর দেননি এসিল্যান্ড।  এসিল্যান্ড এ সংক্রান্ত কোনো কাগজপত্রও দেখাতে পারেনি।  ওই সময় নওদাবাস ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সম্পাদক হোসেন আলীসহ বিএনপি-জামায়াত-শিবিরের লোকজন আমার বসতবাড়ি ভাঙচুর করেন।  বাধা দিতে গেলে তারা আমার স্ত্রী লতিফা বেগমকে মারধর করেন।  

পরে স্থানীয় লোকজন আমার স্ত্রীকে উদ্ধার করে হাতীবান্ধা হাসপাতালে ভর্তি করান।  ওই হামলায় আমার মেয়ে শেফালী বেগম ও নাতি শামীমকেও মারধর করেন বিএনপি নেতা হোসেনের লোকজন।  আমি বর্তমানে স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে খোলা আকাশের নিচে পড়ে আছি।”

ওই ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী কলেজছাত্রী সাবিনা আক্তার বলেন, “স্বাধীন দেশে একজন মুক্তিযোদ্ধার বাড়ি জামায়াত-শিবিরের লোকজন ভাঙচুর করে এটা মেনে নিতে কষ্ট হচ্ছে।  আমি এ ঘটনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করছি। ”

বসতবাড়ি ভাঙচুরের ঘটনায় অভিযুক্ত বিএনপি নেতা হোসেন আলী বলেন, “আমি এ জমির ক্রয়সূত্রে মালিক হয়েছি।  দখল পেতে আদালতে মামলা করেছি।  রায় পেয়েছি তাই জমি দখল নিতে এসেছি। “

হাতীবান্ধার এসিল্যান্ড আজিজুর রহমান বলেন, “আমি লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা সহকারী জজ আদালতের একটি আদশ পালন করতে এসেছি মাত্র।  এর বাইরে আমি কিছুই বলতে পারবো না। ”

গোনিউজ২৪/এম