৩০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, বৃহস্পতিবার ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ , ৪:১৪ অপরাহ্ণ

‘সালমান আত্মহত্যা করে নাই, সামিরার পরিবার তাকে খুন করছে’(দেখুন)


গো নিউজ২৪ | বিনোদন প্রতিবেদক আপডেট: ০৭ আগস্ট ২০১৭ সোমবার
‘সালমান আত্মহত্যা করে নাই, সামিরার পরিবার তাকে খুন করছে’(দেখুন)

ঢাকা: ‘সালমান শাহ্ আত্মহত্যা করে নাই। সালমান শাহকে খুন করা হয়েছে। আমার স্বামী করাইছে আমার ভাইরে দিয়ে। এটা আমার স্বামী করাইছে। সামিরার ফ্যামেলী এই খুনটা করাইছে। সবাই মিলে সব চাইনিজ মানুষ মিলে এই খুনটা করছে। সালমান শাহ্ আত্মহত্যা করে নাই। সালমান শাহ্ কে খুন করা হয়েছে। আমি রুবি এখানে ভেগে এসেছি। আমি যে ভাবে পারি আমি যেনো ঠিক মতো সাক্ষী দিতে পারি, আপনারা আমার জন্য দোয়া করেন। আমাকে খুন করার চেষ্টা করা হচ্ছে।’

সোমবার সকাল থেকেই সোশাল মিডিয়ায় এমন একটি ভিডিও ভাইরাল হয়ে গেছে। যে ভিডিওতে রুবি সুলতানা নামের একজন সালমান হত্যাকাণ্ড নিয়ে উপরের কথাগুলো বলছিলেন। ভিডিও বার্তায় যে নারীটি সালমান শাহর হত্যা নিয়ে কথা বলেছেন, সেই নারীও সালমান হত্যা কাণ্ডের প্রথম দশজন আসামির একজন। কিন্তু হঠাৎ এতোদিন তিনি কোথা থেকে এলেন, আর এসেই সালমান হত্যা নিয়ে দেশব্যাপী চমকে দিলেন। প্রশ্ন ওঠছে কে এই রুবী?

জানা গেছে, সালমান শাহ হত্যার পর তার মা নীলা চৌধুরী নারাজীতে মাফিয়া ডন আজিজ মোহাম্মদ ভাইসহ ১১ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করেন। সেই দশ জনের একজন রাবেয়া সুলতানা রুবি। যিনি দীর্ঘদিন যাবৎ আমেরিকার পেনসিলভেনিয়ার ফিলাডেলফিয়াতে তার চাইনিজ স্বামী ও দুই সন্তানসহ বসবাস করছেন। ধারনা করা হচ্ছে, স্বামীর সঙ্গে সম্পর্ক ভালো যাচ্ছে না বিধায় এতোদিন ধরে সালমানের খুনের বিষয়টি চেপে থাকলেও এবার সোশাল মিডিয়ার সাহায্যে মুখ খুললেন এই নারী। 

সোমবার থেকে ফেসবুকে রুবির দেয়া সালমান হত্যা নিয়ে এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য শুনে হতবাক সালমান প্রেমী ভক্ত অনুরাগীরা। অনেকে প্রশ্ন তুলছেন, রুবির এমন তথ্যের পরেও কি সামিরা ফেসবুকে এসে সালমান ভক্তদের বলে বেড়াবেন যে সালমান শাহ্‌ আত্মহত্যা করেছেন? এমন চাঞ্চল্যকর ভিডিওটি দেখার পর সালমানের ভক্ত মাসুদ রানা নকীব লিখেছেন,  বহুল আলোচিত এই হত্যা মামলা এখন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) তদন্ত করছেন। আমরা সালমান ভক্তরা আশা করছি রুবির দেওয়া এই তথ্য আপনারা খতিয়ে দেখবেন এবং সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্ত করার মাধ্যমে রহস্যজনক এই মৃত্যুর প্রকৃত রহস্য উদঘাটন করা হবে। সকল চক্রান্তকে নস্যাৎ করে সত্যের জয় হোক এটাই একমাত্র চাওয়া।

অন্যদিকে ভিডিওতে শুধু সালমান হত্যাকারীদের নামই বললেন না ওই নারী। জানালেন তাকেও খুন করার চেষ্টা করা হচ্ছে। এ বিষয়ে ভিডিও বার্তায় রুবি জানান, আমাকেও খুন করার চেষ্টা করা হচ্ছে, দয়া করে আমার জন্য দোয়া করেন। আমি ভাল নাই, আমি কী করবো আমি জানি না, এতটুক জানি যে সালমান শাহ ইমন আত্মহত্যা করে নাই। ইমনরে সামিরা, আমার হাজব্যান্ড ও সামিরার সমস্ত ফ্যামিলি সবাই মিলে খুন করছে। প্লিজ দয়া করে কিছু করেন।

সালমান সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে আত্মহত্যা করেনি। তাকে নিজের ছোট ভাই রুমিকে দিয়ে খুন করানো হয়েছে জানিয়ে ভিডিও বার্তায় রুবি আরো বলেন, এরা কী মানুষ, পুরা চাইনিজ কমিউনিটি, আপনারা জানেন না। আমি ভেগে আসছি এখানে, কোনো রকমে। দয়া করে একটুখানি কারোরে জানান। কারোরে জানান যে, এটা আত্মহত্যা না, এটা খুন। খুন হইছে। আমার ছোট ভাই রুমিরে দিয়া খুন করানো হইছে। রুমিরেও খুন করা হইছে। আমি জানি না রুমির কবর কোথায় আছে! রুমির যদি কবর থেকে লাশ তুলে যদি ঠিকমত আবার পোস্টমর্টেম করে, তাহলে দেখা যাবে যে ওরা গলা টিপে মাইরা ফেলছে।

সালমান খুনের সঙ্গে যারা যারা জড়িত তাদের নাম অকপটে ভিডিওতে স্বীকার করে রুবি আরো বলেন, খুনের পরিকল্পনায় আমার খালু মুন্তাজ হাসান আছে, আমার খালাত ভাই জুম্মান থাকতে পারে, হামার হাজব্যান্ড চ্যাং লিং চ্যাং, জন চ্যাং নামে বাংলাদেশে পরিচিত ছিল। সাংহাই চাইনিজ রেস্টুরেন্টের মালিক ছিল ধানমন্ডি ২৭ নম্বর রোডে। দয়া করে কাউরে জানান। আগি ভেগে আসছি আমার জানের ওপর, আমি লাস্ট মানুষ যে কি না জানে যে, এটা খুন। আমি এটা প্রমাণ করতে পারব ইনশাআল্লাহ।

উল্লেখ্য, ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর সালমান শাহের লাশ ১১/বি নিউ ইস্কাটন রোর্ডের ইস্কাটন প্লাজার বাসার নিজ কক্ষে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। পরে তাকে প্রথমে হলি ফ্যামিলি এবং পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করে। এ নিয়ে সালমান শাহের পিতা কমর উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী একটি অপমৃত্যুর মামলা করেন।  

রুবির ভিডিও বার্তা:

গো নিউজ/এমটিএল