২ পৌষ ১৪২৪, রবিবার ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭ , ৬:২১ পূর্বাহ্ণ

লেকহেড স্কুলের বিরুদ্ধে ‘ভয়াবহ’ অভিযোগ


গো নিউজ২৪ | স্টাফ করেসপন্ডেন্ট আপডেট: ০৫ ডিসেম্বর ২০১৭ মঙ্গলবার
লেকহেড স্কুলের বিরুদ্ধে ‘ভয়াবহ’ অভিযোগ

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছেন, ‘জঙ্গি কার্যক্রমে পৃষ্ঠপোষকতার অভিযোগে বন্ধ করে দেওয়া লেকহেড স্কুলের বিরুদ্ধে গোয়েন্দা প্রতিবেদনে ভয়াবহ তথ্য ছিল।’ তিনি বলেন, ‘ওই স্কুলের সাবেক পরিচালনা পর্ষদ, সাবেক কিছু শিক্ষক ও অভিভাবকের বিরুদ্ধে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ পাওয়া গেছে।’

অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ‘এই স্কুলের শিক্ষক, অভিভাবক ও পরিচালনা পর্ষদের কয়েকজন সদস্য সিরিয়ায় আইএসের সঙ্গে জড়িত ছিলেন বলেও অভিযোগ রয়েছে।’

আজ মঙ্গলবার নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন অ্যাটর্নি জেনারেল। অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ‘আমার মতে, আপিল বিভাগে আমরা যে গোয়েন্দা প্রতিবেদন দাখিল করেছি তাতে ভয়াবহ পরিস্থিতির কথা উল্লেখ ছিল। এই স্কুলের সাবেক পরিচালনা পর্ষদ, সাবেক কিছু শিক্ষক ও অভিভাবকের বিরুদ্ধে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ছাড়া এই স্কুলের সঙ্গে যুক্ত একজন সেনা কর্মকর্তা (মেজর) মিরপুরে একটি বাড়িতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে মারা গেছেন।’

অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ‘জঙ্গি কার্যক্রমে পৃষ্ঠপোষকতা ও ধর্মীয় উগ্রবাদে উৎসাহ দেওয়ার অভিযোগে বন্ধ করে দেওয়া লেকহেড গ্রামার স্কুলে সাতদিনের মধ্যে নতুন পরিচালনা পর্ষদ গঠনের নির্দেশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।’

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে গঠিত ওই পর্ষদের সভাপতি হবেন ঢাকার বিভাগীয় কমিশনার। সেনাবাহিনীর শিক্ষা কোরের কর্মকর্তাদেরও ওই কমিটিতে রাখতে হবে। অধ্যক্ষও হবেন সেনাবাহিনী থেকে আসা।

লেকহেড গ্রামার স্কুল খুলে দিতে হাইকোর্টের দেওয়া রায়ের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের লিভ টু আপিলের শুনানি শেষ না হওয়া পর্যন্ত স্কুলটি খোলা থাকবে। ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি আবদুল ওয়াহহাব মিঞার নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারকের আপিল বিভাগের বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ‘লেকহেড স্কুলটির অনেক অনিয়ম। এটির গভর্নিং বডি নাই, শিক্ষকদের বিজ্ঞাপন দিয়ে নিয়োগ করা হয়নি ইত্যাদি ইত্যাদি। এ ছাড়া স্কুলটির বিরুদ্ধে সরকারের সবচেয়ে বড় অভিযোগ হলো- স্কুলটির প্রতিষ্ঠাতা, অনেক সাবেক শিক্ষক, বর্তমান শিক্ষক, কিছু অভিভাবকের সঙ্গে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা আছে।’

মাহবুবে আলম বলেন, ‘এ ব্যাপারে আমরা আদালতের কাছে কিছু ক্লাসিফায়েড তথ্য দিয়েছি। এর ভিত্তিতে দেশের সর্বোচ্চ আদালত আদেশ দিয়েছে আগামী সাতদিনের ভেতরে শিক্ষাসচিবের অধীনে ঢাকার ডিভিশনাল কমিশনারকে প্রধান করে সাত সদস্যের একটি কমিটি করার জন্য।’ তিনি আরো বলেন, ‘এই কমিটি স্কুল পরিচালনার ব্যাপারে দেখভাল করবে। এই কমিটি সেনাবাহিনীর শিক্ষা কোরের কর্মকর্তাদের ভেতর থেকে একজনকে প্রধান শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেবে। সাতদিনের মধ্যে এসব হলেই স্কুলটি আবার চালু করতে পারবে।’

আপিল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত স্কুলটি এই পরিচালনা পর্ষদের অধীনেই পরিচালিত হবে জানিয়ে মাহবুবে আলম বলেন, ‘হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের লিভ টু আপিল গ্রহণ করেছে। এখন আপিল শুনানি হবে। কোন কোন গ্রাউন্ডে শুনানি করব ইতিমধ্যে (আজ একটু আগে) সে নোট আদালতে জমা দিয়েছি।’

আদেশের পর স্কুলের আইনজীবী ব্যারিস্টার রাশনা ইমাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘সাতদিনের মধ্যে কমিটি গঠন করা হলেই স্কুল খুলে দেওয়া যাবে বলে আমরা আশা করছি।’

রাশনা ইমাম বলেন, ‘শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে সাতদিনের মধ্যে ঢাকার বিভাগীয় কমিশনারের নেতৃত্বে একটি পরিচালনা পর্ষদ গঠন করতে হবে। এই কমিটিতে সেনাবাহিনীর দুজন প্রতিনিধিকে রাখতে বলা হয়েছে। দুই সেনা প্রতিনিধির মধ্যে শিক্ষা কোরের কর্মকর্তাকে স্কুলটির অধ্যক্ষ করতে বলা হয়েছে। এই কমিটি স্কুলটির নিয়মিত শিক্ষা কার্যক্রম নিশ্চিত করবে।’

জঙ্গি কার্যক্রমে পৃষ্ঠপোষকতা, ধর্মীয় উগ্রবাদে উৎসাহ দেওয়াসহ কয়েকটি অভিযোগে গত ৬ নভেম্বর শিক্ষা মন্ত্রণালয় ঢাকায় লেকহেড গ্রামার স্কুল বন্ধের নির্দেশ দেয়। ঢাকা জেলা প্রশাসনের ম্যাজিস্ট্রেট ইলিয়াস মেহেদী পরদিন ওই স্কুলে গিয়ে সিলগালা করে দেন।

ওই স্কুলের মালিক খালেদ হাসান মতিন এবং ১২ শিক্ষার্থীর অভিভাবক শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওই পদক্ষেপের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে যান। তাঁদের দুটি রিট আবেদনের শুনানি করে বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি মো. আতাউর রহমান খানের হাইকোর্ট বেঞ্চ গত ৯ নভেম্বর রুল জারি করেন।

লেকহেড গ্রামার স্কুলের গুলশান ও ধানমণ্ডি শাখা বন্ধের আদেশ কেন আইনগত কর্তৃত্ববহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না, কেন স্কুলের মালিককে স্কুল খোলা ও পরিচালনা করতে দেওয়ার জন্য বিবাদীদের নির্দেশ দেওয়া হবে না এবং কোনো রকম প্রতিবন্ধকতা ছাড়া স্কুলের শিক্ষার্থীদের সকল ধরনের শিক্ষা কার্যক্রম চালু রাখতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না- তা জানতে চাওয়া হয় রুলে।

গত ১৪ নভেম্বর ওই রুলের চূড়ান্ত শুনানি নিয়ে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে স্কুলটি খুলে দেওয়ার রায় দেয় হাইকোর্ট। কিন্তু রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনে চেম্বার আদালত হাইকোর্টের রায়ের কার্যকারিতা স্থগিত করে দেয়। বিষয়টি আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে এলে স্থগিতাদেশের মেয়াদ আরো ১০ দিন বাড়িয়ে রাষ্ট্রপক্ষকে লিভ টু আপিল করতে বলেন সর্বোচ্চ আদালত। এরপর রাষ্ট্রপক্ষ লিভ টু আপিল করলে আপিল বিভাগ শুনানি নিয়ে আদেশ দেন।

গোনিউজ২৪/কেআর