৮ আশ্বিন ১৪২৪, শনিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭ , ১:২৭ অপরাহ্ণ

যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি তরুণীকে যৌন হয়রানি : বিএনপি নেতা গ্রেফতার


গো নিউজ২৪ | নিউজ ডেস্ক আপডেট: ১৪ মে ২০১৭ রবিবার
যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি তরুণীকে যৌন হয়রানি : বিএনপি নেতা গ্রেফতার

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে বাংলাদেশি এক তরুণীকে অপহরণ ও যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। যৌন হয়রানির অভিযোগে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) নিউইয়র্ক সিটি’র সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ খালেককে গ্রেফতার করেছে দেশটির পুলিশ।

এবিসি৭নিউইয়র্ক টেলিভিশনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে খালেকের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নিপা মোনালিসা নামের ওই তরুণী। খালেকের ট্যাক্সিতে বন্ধুত্বপূর্ণ যাত্রা শুরুর পর কীভাবে তা ভয়ঙ্কর অপহরণে রূপ নেয় সে চিত্র তুলে ধরেছেন তিনি।

মোনালিসা বলেন, আমি ভয় পেয়েছিলাম। এই লোক কী করতে যাচ্ছে। ২৭ বছর বয়সী মোনালিসার সময় কাটছে এখনো ঘোর আতঙ্কে। তিনি বলেন, গত ৭ এপ্রিল রাতে ব্রঙ্কসের কর্মস্থল থেকে ফেরার পথে ওই ঘটনা ঘটেছে।

মোনালিসা বলেন, কর্মস্থল থেকে ফেরার পথে বন্ধু খালেক তাকে নিজের ট্যাক্সিতে করে বাড়িতে পৌঁছে দেয়ার প্রস্তাব দেন। পরে খালেক তাকে গাড়িতে তুলে নিয়ে কানেকটিকাটে যায়। এ সময় তাকে এক হাজার ডলারের বিনিময়ে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হওয়ার প্রস্তাব দেয়।

মোনালিসা বলেন, নিপা, এখানে এক হাজার ডলার আছে। তুমি এটা নিতে পারো। আমার সঙ্গে ঘুমাবে। তাহলে এই অর্থ তোমার হবে।

ভয়াবহ এই পরিস্থিতি থেকে বাঁচতে যুক্তরাষ্ট্রের এই নতুন অভিবাসী ট্যাক্সি থেকে লাফিয়ে পালিয়ে আসেন। পরে ৯১১’তে ফোন করেন মোনালিসা। এছাড়া তিনি যে নিউইয়র্কে নেই সেবিষয়টিও বুঝতে পারেন। কানেকটিকাটের নরওয়াক থেকে ৪০ মাইল দূরে ছিলেন ওই সময়।

মোনালিসা বলেন, সে আমাকে ধর্ষনের চেষ্টা করেছে। কিন্তু সৃষ্টিকর্তাকে ধন্যবাদ যে, আমি নিজেকে রক্ষা করতে পেরেছি।

বাংলাদেশি এই তরুণীর স্বামী শহিদুল ইসলাম বলেন, সে আমার স্ত্রীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করতে চেয়েছিল। এটাই হচ্ছে মূলকথা। ঘটনাক্রমে ওই সময় এক মোটরসাইকেল আরোহী তাকে নিরাপদ স্থানে নিয়ে পুলিশের জন্য অপেক্ষা করেন।

গত বৃহস্পতিবার ট্যাক্সি চালক খালেককে গ্রেফতার করে পুলিশ। কিন্তু পরদিন আদালত থেকে মুক্তি পায় সে। শহিদুল-মোনালিসা দম্পতি যে বাসায় থাকেন; সেই বাসার নিচতলায় থাকেন বিএনপি নেতা খালেক। তবে এ ব্যাপারে খালেকের পরিবার কোনো মন্তব্য করেনি।

৪৭ বছর বয়সী খালেক ১৯৯৯ সাল থেকে দেশটিতে ট্যাক্সি চালক হিসেবে কাজ করছে। মার্কিন পরিসংখ্যান বলছে, এখন পর্যন্ত পাঁচবার গ্রেফতার হয়েছিলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এই নাগরিক।

কর্তৃপক্ষ বলছে, এর আগে গত গ্রীষ্মে খালেক এক নারীকে তার ট্যাক্সিতে ডেকে তুলে নেয়। পরে ওই নারীকে পর্নোগ্রাফি দেখিয়ে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের আহ্বান জানায় সে। পরে এ ঘটনায় দায়ের করা এক মামলায় এক হাজার ডলার জরিমানা গুণতে হয় তাকে। তবে বর্তমানে তার লাইসেন্স স্থগিত করা হয়েছে।

খালেক মুক্ত হওয়ায় এখন মোনালিসা ও তার স্বামী আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন। বাংলাদেশি এই দম্পতি বলছেন, খালেক মুক্ত থাকায় তারা এখন ভয়ের মধ্যে আছেন।

মোনালিসা বলেন, সে আমার জীবনের আরো ক্ষতি করবে। অন্য তরুণীদের সঙ্গেও সে একই কাজ করতে পারে।


গো নিউজ২৪/এএইচ