১৪ চৈত্র ১৪২৩, বুধবার ২৯ মার্চ ২০১৭ , ৩:৩৭ পূর্বাহ্ণ

যুক্তরাষ্ট্রের রিপোর্ট তথ্যনির্ভর নয়: ইনু


গো নিউজ২৪ | গো নিউজ ডেস্ক আপডেট: ০৬ মার্চ ২০১৭ সোমবার
যুক্তরাষ্ট্রের রিপোর্ট তথ্যনির্ভর নয়: ইনু
ফাইল ফটো

ডেস্ক: বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের রিপোর্ট ‘তথ্যনির্ভর নয়’ দাবি করে তা প্রত‌্যাখ‌্যানের কথা জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।

তিনি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তর বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি দেখেছে ‘ভুল চশমা’ দিয়ে। আর তাদের দেখার চোখটাও ‘ঝাপসা’।

সোমবার সচিবালয়ে এক ব্রিফিংয়ে ওই প্রতিবেদনের বিষয়ে সরকারের এই অবস্থান তুলে ধরেন তথ‌্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, “অন্য দেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ঢালাও মন্তব্য প্রদান আমরা বাংলাদেশ নীতিগতভাবে সমর্থন করি না।”

২০১৬ সালের বৈশ্বিক মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়, যাতে বাংলাদেশে বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ড নিয়ে উদ্বেগ জানানো হয়।

প্রতিবেদনের শুরুতেই বলা হয়, অসাম্প্রদায়িক, বহু মতের সংসদীয় গণতন্ত্রের দেশ বাংলাদেশে নিরাপত্তা বাহিনীর উপর বেসামরিক প্রশাসনের ‘কার্যকর নিয়ন্ত্রণ’ রয়েছে। এরপর জঙ্গিবাদ নিয়ে আলোচনার পর বলা হয়, বাংলাদেশে মানবাধিকারের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় সমস্যা হল বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ড।

এছাড়া অবৈধভাবে আটক, সরকারি বাহিনীর হাতে গুম, জঙ্গিদের মাধ্যমে হত্যাকাণ্ড, বাল্য বিয়ে, নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা, শ্রমিকদের জন্য অনিরাপদ কর্মপরিবেশের বিষয়টি নিয়েও উদ্বেগজনক বলে মনে করছে যুক্তরাষ্ট্র।

ইনু বলেন, “মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর যে রিপোর্ট প্রকাশ করেছে, আমরা তা আনুষ্ঠানিকভাবে প্রত্যাখান করছি। কারণ তা যথাযথ তথ্য নির্ভর নয়।”

তিনি বলেন, বাংলাদেশ সংবিধান ও আইন দ্বারা পরিচালিত একটি দেশ। দেশের সব সংস্থা সংবিধান ও আইনের পাশাপাশি নিজস্ব সংবিধিবদ্ধ বিধিবিধান দ্বারা পরিচালিত হয়।

“আইন বহির্ভূত কোনো কাজ করার সুযোগ সরকারের নাই, কোনো সংস্থারও নেই। কোথাও এর ব্যত্যয় হলে আইনী প্রতিকার পাওয়ার ব্যবস্থা সংবিধান দ্বারা সুরক্ষিত।”

যুক্তরাষ্ট্রের সমালোচনা করে তথ‌্যমন্ত্রী বলেন, “বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্র উভয়ে গণতান্ত্রিক দেশ। বর্তমান বিশ্ব পরিস্থিতিতে সন্ত্রাস দমনসহ বিভিন্ন বিশ্ব ইস্যুতে উভয় দেশে একসাথে কাজ হচ্ছে। আমরা আমাদের অভিজ্ঞতা বিনিময় করে দুই দেশের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা আরও উন্নত করার প্রয়াস চালাব।”

গোনিউজ২৪/এম