৬ শ্রাবণ ১৪২৪, শুক্রবার ২১ জুলাই ২০১৭ , ৬:৪৭ পূর্বাহ্ণ

মৃত্যুর আগে কিশোরীর কাকুতি মিনতি, সাড়া দিলেন না বাবা (ভিডিও)


গো নিউজ২৪ | আন্তর্জাতিক ডেস্ক আপডেট: ১৭ মে ২০১৭ বুধবার
মৃত্যুর আগে কিশোরীর কাকুতি মিনতি, সাড়া দিলেন না বাবা (ভিডিও)

সাই শ্রী।  ভারতের অন্ধ্র প্রদেশের ১৩ বছরের এই কিশোরীর একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। যা শুধু লক্ষ লক্ষ মানুষকেই নয়, নাড়িয়ে দিয়েছে দেশটির মানবাধিকার কমিশনকেও। জড়িয়ে গিয়েছে স্থানীয় রাজনৈতিক নেতার নামও।

সাইয়ের ক্যান্সার ধরা পড়ে ২০১৬ সালের অগস্টে। তখনই সাইয়ের মা তাকে হায়দরাবাদের স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যান চিকিৎসার জন্য। চিকিৎসকেরা বলেন, সাইয়ের বোন ম্যারো ট্রান্সপ্লান্ট করতে হবে। 

সাইয়ের মা দাবি করেছেন, তাঁকে বলা হয় কেমোথেরাপির জন্য ১০ লক্ষ টাকা ও বোন ম্যারো ট্রান্সপ্লান্ট করার জন্য ৩০ লক্ষ টাকা লাগবে। কিন্তু অত টাকা তাঁর কাছে ছিল না।

সাই যখন ছোট ছিল, তখন থেকে তার বাবা-মা আলাদা থাকেন। সাইয়ের মা তখনই স্বামীকে ফোন করেন। তিনি বেঙ্গালুরুতে মেয়ের চিকিৎসা করাবেন বলে কথা দিয়েও তা শেষপর্যন্ত করাননি। 

এমনকী, তাঁরা বিজয়ওয়াড়াতে যে বাড়িতে থাকতেন তাও বিক্রি করতে দেননি। তখনই সাই একটি ভিডিও রেকর্ড করে বাবাকে পাঠায়। সেখানে কাঁদতে কাঁদতে সে বলে, ‘বাবা তুমি বলছ তোমার টাকা নেই। কিন্তু আমাদের এই বাড়িটা তো আছে। দয়া করে এই বাড়িটা বিক্রি করে সেই টাকায় তো আমার চিকিৎসা করাতে পারো বাবা। না হলে ডাক্তাররা বলেছে, আমি বেশি দিন বাঁচবো না। দয়া করে কিছু করো আর আমাকে বাঁচাও।’

এই ভিডিওটিই ভাইরাল হয়েছে। সেখানে সে আরও বলছে, ‘মাসের পর মাস আমি স্কুলে যেতে পারছি না। আমি বন্ধুদের সঙ্গে খলতে চাই। আমার চিকিৎসা শেষ হয়ে গেলে আমি আবার স্কুলে ফিরে যেতে চাই। আমার হাত পা ব্যথা করে। আমার চিকিৎসার দরকার। মায়ের কাছে সত্যিই টাকা নেই। যদি তোমার মনে হয় মা তোমার টাকা নিয়ে নেবে, তাহলে তুমি নিজে আমাকে হাসাপাতালে নিয়ে যাও।’

এর পরেও সাইয়ের বাবা বাড়ি বিক্রি করার অনুমতি দেননি। অভিযোগ, উল্টে স্থানীয় তেলুগু দেশম পার্টির বিধায়ক বোন্ডা উমামহেশ্বরা রাওকে কাজে লাগিয়ে বাড়ি বিক্রিতে বাধা দেন সাইয়ের বাবা। গত ১৪ মে সাই প্রায় বিনা চিকিৎসাতেই মারা যায়।

তার পরেই নড়েচড়ে বসেছে মানবাধিকার কমিশন। হায়দরাবাদ সিটি পুলিশের কমিশনারের কাছেও অভিযোগ দায়ের হয়েছে। তদন্তও শুরু হয়েছে। কিন্তু অভিযুক্ত বিধায়ক এই বিষয়ে তাঁর কোনও দায় অস্বীকার করেছেন।

দেখুন সেই ভিডিওটি-


গো নিউজ২৪/এএইচ