১৩ আষাঢ় ১৪২৪, মঙ্গলবার ২৭ জুন ২০১৭ , ১১:১৯ পূর্বাহ্ণ

মুসলিম উম্মাহর সুখ-শান্তি, সমৃদ্ধি কামনায় শেষ হল আখেরি মোনাজাত


গো নিউজ২৪ আপডেট: ২২ জানুয়ারি ২০১৭ রবিবার
মুসলিম উম্মাহর সুখ-শান্তি, সমৃদ্ধি কামনায় শেষ হল আখেরি মোনাজাত

মুসলিম জাহানের সুখ, শান্তি, সমৃদ্ধি, আল্লাহর রহমত ও মাগফেরাত কামনার মধ্যদিয়ে শেষ হলো দ্বিতীয় পর্বের বিশ্ব ইজতেমার আখেরী মোনাজাত। আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করেন তাবলীগ জামাতের দিল্লিস্থ মারকাজের শুরা সদস্য, ইসলামি চিন্তাবিদ মাওলানা সা’দ কান্ধলভী।

সকাল ১১ টা ১০ মিনিটে শুরু হওয়া আখেরি মোনাজাত শেষ হয় বেলা সাড়ে ১১টা ৪৩ মিনিটে। আখেরি মোনাজাতকালে গোটা ইজতেমা ময়দানে যেন এক পুণ্যময় ভূমিতে পরিণত হয়েছে। এ সময় মোনাজাতে মহান আল্লাহর দরবারে দুই হাত তুলে কেঁদে কেঁদে ক্ষমা চেয়েছেন লাখ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসল্লি। তাঁরা পাপ থেকে মুক্তির জন্য আকুতি-মিনতি করেছেন। মোনাজাতে আত্মশুদ্ধি ও নিজ নিজ গুনাহ মাফের পাশাপাশি দুনিয়ার সব বালা-মুসিবত থেকে হেফাজত করার জন্য দুই হাত তুলে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের দরবারে রহমত প্রার্থনা করেন ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা।

আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে টঙ্গীর তুরাগতীরে আজ লাখো মুসল্লির ঢল নামে। এবারের এজতেমায় বিভিন্ন দেশের প্রায়্ ৮ হাজার মুসল্লী অংশ নেন। টঙ্গী শহর, ইজতেমাস্থল, উত্তরা, কামারপাড়া ও এর আশপাশ এলাকা জনসমুদ্রে পরিণত হয়। যত দূর চোখ যায় শুধু মানুষ আর মানুষ দেখা যায়। বিশ্ব ইজতেমার ময়দান ও আশপাশের কয়েক কিলোমিটার এলাকাজুড়ে লাগানো মাইকের মাধ্যমে সেই ধ্বনি ছড়িয়ে পড়ে সবজায়গায়। নারী-পুরুষ-শিশুসহ সকল বয়সের মানুষ মোনাজাতে অংশ নিতে টঙ্গী এলাকায় পৌঁছান।

আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে বিশ্ব ইজতেমা ময়দানের আশপাশের মহাসড়ক-সড়কে (ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ভোগড়া বাইপাস থেকে ঢাকা র‌্যাডিসন পর্যন্ত, টঙ্গী-কালীগঞ্জ স্টেশন রোড থেকে মীরেরবাজার পর্যন্ত, আশুলিয়া সড়কের আব্দুল্লাহপুর থেকে বাইপাইল সড়ক পর্যন্ত) গণপরিবহন চলাচল বন্ধ থাকায় ওই সব সড়ক দিয়ে রোববার ভোর থেকে মুসল্লিরা হেঁটে দলে দলে লোক ইজতেমা স্থলে আসেন। মুসল্লিদের যাতায়াতের সুবিধার্থে বিশ্ব ইজতেমা উপলক্ষে টঙ্গী জংশন দিয়ে চলাচলকারী সব ট্রেন এ জংশনে যাত্রা বিরতি দিচ্ছে। আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে এ জংশন দিয়ে ১৪টি বিশেষ ট্রেন চলাচল করছে। এ ছাড়া বিআরটিসির ২২৮টি বাস যাতায়াত করেছে।

বিশ্ব ইজতেমা সুষ্ঠুভাবে সম্পাদন করতে বিপুল সংখ্যক র‍্যাব, পুলিশ এবং অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মোতায়েন করা হয়। দেশি-বিদেশি লাখো মুসল্লির নিরাপত্তায় ইজতেমা মাঠে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ৭ হাজার পুলিশ সদস্যের পাশাপাশি, বোম ডিস্পোজাল এবং ডগ স্কোয়াড ইউনিট মোতায়েন করা হয়। পাশাপাশি ইজতেমা মাঠে এবং মাঠের কয়েকটি নিয়ন্ত্রণ কক্ষ ও ওয়াচ টাওয়ার বসিয়ে পর্যবেক্ষণ করা হয়। পুরো ইজতেমা ময়দানের প্রতিটি মোড়ে বসানো হয় চারমুখী সিসি ক্যামেরা।

তুরাগতীরে গত শুক্রবার বাদ ফজর ভারতের মাওলানা মোহাম্মদ শামীমের বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব এবং আজকে আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে এই পর্ব সমাপ্তি হলো। গত ১৫ জানুয়ারী সমাপ্ত হয় প্রথম পর্বের ইজতেমা।

 

গো-নিউজ২৪/বিএস