৫ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, সোমবার ২০ নভেম্বর ২০১৭ , ১০:০৩ পূর্বাহ্ণ

মুমিনুল-তামিমের ব্যাটিংএ প্রথমদিন শেষে সুবিধাজনক স্থানে বাংলাদেশ


গো নিউজ২৪ আপডেট: ১২ জানুয়ারি ২০১৭ বৃহস্পতিবার
মুমিনুল-তামিমের ব্যাটিংএ প্রথমদিন শেষে সুবিধাজনক স্থানে বাংলাদেশ

বাংলাদেশ ও নিউজিল্যান্ডের প্রথম টেস্টের প্রথম দিন শেষে মুমিনুল ও তামিমের অর্ধশতকের সুবাদে বাংলাদেশ সুবিধাজনক স্থানে রয়েছে।  যদিও বৃষ্টি ও আলোর স্বল্পতার জন্য ৯০ ওভারের খেলা হয়েছে মাত্র ৪০.২ ওভার। প্রথমদিন শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৩ উইকেটের বিনিময়ে ১৫৪ রান। 

ওয়েলিংটনের বেসিন রিজার্ভে আজ টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামে বাংলাদেশ। টাইগারদের পক্ষে ব্যাটিংয়ের শুরুটা করেন তামিম ইকবাল ও ইমরুল কায়েস। ওয়েলিংটনের তীব্র বাতাস থাকায় তা পেস বোলারদের জন্য আদর্শ কন্ডিশন। তাই টস জিতে ফিল্ডিং নিতে ভুল করেননি কেন উইলিয়ামসন।

সিরিজের প্রথম টেস্টে বাংলাদেশ দলে অভিষেক হয়েছে পেসার তাসকিন আহমেদ এবং শুভাশীষ রায়ের।  তাসকিনের অভিষেকটা অবশ্য অনুমিত ছিল তবে তবে শুভাশীষের অভিষেক অনেকটা চমকেরই। আজকের একাদশে  তিন পেসার রেখেছে বাংলাদেশ। দলে জায়গা পেয়েছেন মিরাজ। তাসকিন, শুভাশীষের সঙ্গে দলে আরেক পেসার কামরুল ইসলাম।

ব্যাটিং এ শুরুটা ভালো হয়নি বাংলাদেশের। দলীয় ১৬ রানে টিম সাউদির বলে ট্রেন্ট্র বোল্টকে ক্যাচ দিয়ে ফিরেন ইমরুল কায়েস। মাত্র এক রান করেন ইমরুল। এরপর দলীয় ৩১ রানে দ্বিতীয় উইকেট হারাতে পারত টাইগাররা। কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমের বলে জোরালো আবেদন করেন কিউই ফিল্ডারা। বল তামিমের প্যাডে লাগে। আম্পায়ারের সাড়া না মিললে রিভিউ নেন কেন উইলিয়ামসন। সে যাত্রায় অবশ্য বেচে যান তামিম। এরপর শুরু হয় বৃষ্টি।

বৃষ্টির পর খেলা শুরু হলে টানা কয়েকটি চার মেরে অর্ধশতক পূর্ণ করেন তামিম ইকবাল। মাত্র ৪৮ বলে টেস্ট ক্যারিয়ারের ২০তম হাফ সেঞ্চুরি করেন তামিম। দলীয় ৬০ রানে বোল্টের বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়েন তামিম। এরপর মমিনুলকে নিয়ে জুটি বাঁধেন মাহমুদউল্লাহ। দারুণ খেলতে থাকেন মমিনুল। অন্যপ্রান্তে বেশ ধৈর্য্যের পরীক্ষা দেন রিয়াদ। ১০ ওভারেই ৪৪ রান তুলে ফেলেন তারা। এরপর আবার শুরু হয় বৃষ্টি। বাংলাদেশের রান তখন ২ উইকেটে ১১৯।

পরে খেলা শুরু হলে দলীয় ১৪৫ রানে আউট হয়ে যান মাহমুদুল্লাহ। তিনি ওয়েগনারের বলে উইকেটকিপারের হাতে তালুবন্দী হন। এরপর সাকিব ও মুমিনুল অবিচ্ছিন্ন থেকে প্রথমদিন শেষ করেন। শেষ পর্যন্ত ৩ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ করে ১৫৪ রান। আলোর স্বল্পতায় শেষ দিনের খেলা আর হয়নি। শেষ পর্যন্ত মুমিনুল অপরাজিত থাকেন ৬৪ রানে। এই রান করতে তিনি ১১০টি বল খেলেন যাতে ছিল ১০টি চার ও ১টি ছয়ের মার। সাকিব অপরাজিত আছেন ৫ রান করে।

এখন দেখা যাক বাংলাদেশ এই ইনিংসকে কতটা লম্বা করতে পারে।

গো নিউজ ২৪/ বিএস