২ কার্তিক ১৪২৪, মঙ্গলবার ১৭ অক্টোবর ২০১৭ , ১১:৪৬ পূর্বাহ্ণ

মুফতি হান্নানকে বহনকারী প্রিজন ভ্যানে বোমা নিক্ষেপ


গো নিউজ২৪ আপডেট: ০৬ মার্চ ২০১৭ সোমবার
মুফতি হান্নানকে বহনকারী প্রিজন ভ্যানে বোমা নিক্ষেপ

ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি জঙ্গি নেতা মুফতি হান্নান ও তার সহযোগীদেরকে বহনকারী প্রিজন ভ্যান লক্ষ্য করে হাতবোমা নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে।

সোমবার বিকালে গাজীপুরের টঙ্গী কলেজ গেট এলাকায় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় হাতবোমাসহ মোস্তফা কামাল (২২) নামে এক যুবককে হাতেনাতে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃত মোস্তফা কামাল ময়মনসিংহ জেলার তারাকান্দা থানার পাগলী গ্রামের মোজাম্মেল হোসেনের ছেলে।

গাজীপুর ট্রাফিক বিভাগের ইন্সপেক্টর মো. হাফিজুল ইসলাম জানান, বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে প্রিজন ভ্যানটি টঙ্গীর কলেজ গেট এলাকায় পৌঁছলে সেটিকে লক্ষ্য করে দুটি হাতবোমা নিক্ষেপ করেন ওই যুবক। তবে বোমা দুটি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে রাস্তায় পড়ে বিস্ফোরিত হয়।

বিস্ফোরণের শব্দ পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে স্থানীয়দের সহায়তায় ওই যুবককে ১০-১৫টি হাতবোমা এবং নগদ সাড়ে সাত হাজার টাকাসহ আটক করা হয়। এতে কেউ আহত হয়নি।

তিনি আরও জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ওই যুবক ১০ হাজার টাকার বিনিময়ে প্রিজন ভ্যান লক্ষ্য করে বোমা নিক্ষেপের কথা স্বীকার করেছেন। আটক ওই যুবককে টঙ্গী থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

এদিকে টঙ্গী থানার ওসি ফিরোজ তালুকদার জানান, আটককৃতের কাছ থেকে সাতটি তাজা হাতবোমা, একটি সাউন্ড গ্রেনেড ও দুটি চাপাতি উদ্ধার করা হয়েছে।

গাজীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাসেল শেখ জানান, আটককৃত যুবককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তার সঙ্গে আর কোনো সহযোগী ছিল কি না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

আকস্মিক ব্যস্ততম কলেজ গেট এলাকায় পরপর দুটি হাত বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় ওই এলাকায় আতংক ছড়িয়ে পড়ে। টঙ্গী থানার পুলিশ ঘটনাস্থল ঘিরে রাখে।

কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কারাগারের জেলার বিকাশ রায়হান জানান, ব্রিটিশ হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরী হত্যাচেষ্টা মামলায় ফাঁসির দণ্ডপাপ্ত আসামি হরকাতুল জিহাদ নেতা মুফতি হান্নান ও তার সহযোগীরা গাজীপুরের কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি আছেন।

তিনি জানান, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার হাজিরা দিতে সোমবার সকাল ৭টার দিকে একটি প্রিজন ভ্যানে করে মুফতি হান্নানসহ ১৯ জন আসামিকে ঢাকায় পাঠানো হয়। হাজিরা শেষে তারা সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কারাগারে নিরাপদে ফিরেছেন।