৫ মাঘ ১৪২৩, বুধবার ১৮ জানুয়ারি ২০১৭ , ৭:৩৯ পূর্বাহ্ণ

মাশরাফি-সাকিবদের ২০১৬ সালের সিডিউল


গো নিউজ২৪ আপডেট: ৩১ ডিসেম্বর ২০১৫ বৃহস্পতিবার
মাশরাফি-সাকিবদের ২০১৬ সালের  সিডিউল

২০১৫ মাশরাফির বলিষ্ঠ নেতৃত্বে একের পর এক জয়ের স্বাদ পেয়েছে বাংলাদেশ দল। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৬ সালেও বিজয়ের এই ধারা অব্যাহত থাকুক, এই চাওয়া দেশের সকল ক্রিকেট ভক্তদের। টাইগারদের পাশে থাকার অঙ্গীকার নিয়ে এখন অপেক্ষা শুধু বিজয়ের। 

বিশ্বকাপে প্রথমবারের মত কোয়ার্টার ফাইনালে খেলা, পাকিস্তান, ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা ও জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে টানা ওয়ানডে সিরিজ  জয়। এছাড়া ছিল পাঁচটি টেস্ট খেলে চারটিতে ড্র ও একটিতে হার। অন্যদিকে পাঁচটি টি-টোয়েন্টি খেলে দুটিতে জয় ও তিনটিতে হার। আরেকটি বড় অর্জন হচ্ছে, আইসিসি ওডিআই র‌্যাঙ্কিংয়ে পাকিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে পেছনে ফেলে সাত নম্বরে জায়গা করে নেওয়া যা আগামী ২০১৭ সালে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠেয় আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে অংশগ্রহণ নিশ্চিত করেছে । সবমিলিয়ে ২০১৫ সালে বাংলাদেশের ক্রিকেটে উন্নতির বিপ্লব ঘটেছে।

২০১৫ সালের মত ২০১৬ সালেও বাংলাদেশ ক্রিকেট দল পারফরম্যান্সের ধারাবাহিকতা বজায় রাখবে সে প্রত্যাশা সকল ক্রিকেটপ্রেমিদের। চলতি বছরের মত নতুন বছরে বাংলাদেশ ব্যস্ত সিডিউল পাড় না করলেও দেশে ও দেশের বাইরে ক্রিকেট নিয়েই ব্যস্ত থাকবে টাইগাররা।

এক নজরে ২০১৬ সালে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের খেলার আয়োজনঃ

১. জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হোম সিরিজ
২০১৬ এর শুরুতেই জানুয়ারির মাঝপথে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দলের বাংলাদেশ সফরে আসার কথা রয়েছে। একটি টেস্ট ও তিনটি টি-টোয়েন্টি খেলার কথা রয়েছে দুই দেশের।যদিও জিম্বাবুয়ে টেস্টের পরিবর্তে ৪ টি-টোয়েন্টি খেলতে আগ্রহী। আগামী ১৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে সিরিজের প্রথম ম্যাচ। সিরিজের বাকি ম্যাচগুলো অনুষ্ঠিত হবে ১৭, ২০ ও ২২ জানুয়ারি। সবগুলো ম্যাচই অনুষ্ঠিত হবে সিলেট বিভাগীয় স্টেডিয়ামে। 

ফলাফলঃ 

১৫ জানুয়ারি:  ১ম টি-২০ বাংলাদেশ  ৪ উইকেটে জয়ী

১৭ জানুয়ারি:  ২য় টি-২০ বাংলাদেশ  ৪২ রানে জয়ী

২০ জানুয়ারি:  ৩য় টি-২০ জিম্বাবুয়ে  ৩১ রানে জয়ী

২২ জানুয়ারি:  ৪র্থ টি-২০ জিম্বাবুয়ে ১৮ রানে জয়ী

২. এশিয়া কাপ টি-টোয়েন্টি
এটা নিয়ে পরপর তিনবার এশিয়া কাপ টুর্নামেন্ট আয়োজন করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ।  তবে এবারের এশিয়া কাপ হবে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে। ২০১৬ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে ৬ মার্চ পর্যন্ত ঢাকার মিরপুরে এবং নারায়ণগঞ্জ ফতুল্লাতে এশিয়া কাপ আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিসিবি। স্বাগতিক হিসাবে এই টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ সরাসরি খেলবে।

বুধবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি

বাংলাদেশ - ভারত

মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়াম 

শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি

বাংলাদেশ - বাছাই পর্বের দল (আফগানিস্তান/সংযুক্ত আরব আমিরাত/ ওমান / হংকং)
মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়াম

রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি

বাংলাদেশ – শ্রীলঙ্কা
মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়াম

বুধবার, ২ মার্চ 

বাংলাদেশ – পাকিস্তান
মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়াম


৩.আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ
এশিয়া কাপের পরেই শুরু হবে ক্রিকেটের সবচেয়ে উত্তেজনাপূর্ণ ফরম্যাট টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। ৮ মার্চ থেকে ৩ এপ্রিল পর্যন্ত ভারতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ষষ্ঠ আসর বসবে। প্রথম রাউন্ডের বাঁধা টপকে বিশ্বকাপের দ্বিতীয় রাউন্ড বা সুপার টেন খেলতে হবে বাংলাদেশকে। প্রথম রাউন্ডে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ নেদারল্যান্ডস, আয়ারল্যান্ডস ও ওমান। সুপার টেনে উঠতে পারলে টাইগাররা ভারত, পাকিস্তান, অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে খেলবে। 

৪.ভারত সফর
প্রথমবারের মত ২০১৬ সালে ভারত সফরে যাবে টাইগাররা। টেস্ট স্ট্যাটাস পাওয়ার পর এটাই হবে বাংলাদেশের প্রথম দ্বিপাক্ষিক ভারত সফর। আগস্টের শেষ দিকে ভারত সফরে যাবে বাংলাদেশ। সেখানে একমাত্র টেস্ট ম্যাচটি ইডেন গার্ডেনসে হওয়ার কথা রয়েছে। ২৫ বছর পর ইডেন গার্ডেনসে খেলবে বাংলাদেশ।

৫.ইংল্যান্ডের বিপক্ষে হোম সিরিজ
২০১৬ এর অক্টোবরে দেশের মাটিতে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ড। চতুর্থবারের মত বাংলাদেশে আসবে ইংল্যান্ড ক্রিকেট দল। এই সফরে দুটি টেস্ট ও তিনটি ওয়ানডে খেলার কথা রয়েছে দুই দলের। এই সফর সূচিতে কোনো টি-টোয়েন্টি ম্যাচ নেই।

৬. নিউজিল্যান্ড সফরে বাংলাদেশ
২০১৬ সালের শেষ দিকে ডিসেম্বরে নিউজিল্যান্ডে যাওয়ার সিডিউল রয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের। দুটি টেস্ট, তিনটি ওয়ানডে ও দুটি টি-টোয়েন্টি খেলার কথা রয়েছে এই সফরে। চতুর্থবারের মত নিউজিল্যান্ড সফর করবে বাংলাদেশ দল।

*আইসিসির ফিউচার ট্যুর প্ল্যান (এফটিপি) অনুযায়ী  এই সিডিউল তৈরী করা হয়েছে। সময়ের প্রয়োজনে এ সিডিউলে পরিবর্তন আসতে পারে।

গো নিউজ২৪/জা আ/এস এম