১০ আশ্বিন ১৪২৪, সোমবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭ , ৭:১৮ অপরাহ্ণ

বিশ্বে ঝড় তুললো ‘হালাল সেক্স গাইড’!


গো নিউজ২৪ | আন্তর্জাতিক ডেস্ক আপডেট: ১৮ জুলাই ২০১৭ মঙ্গলবার
বিশ্বে ঝড় তুললো ‘হালাল সেক্স গাইড’!

ঢাকা: গোটা বিশ্বে ঝড় তুলেছে ‘হালাল সেক্স গাইড’ নামের একটি বই। গত সপ্তায় বইটি প্রকাশ হয়েছে পশ্চিমা বিশ্বে। লেখিকা তার নাম গোপন করলেও অনেকেই বলছেন মার্কিন ওই মুসলিম লেখিকার নাম উম্মু লাদাত। তবে লেখক যেই হোক না কেন, সেক্সের আগে ‘হালাল’ কথাটিই বিশ্বকে কাঁপিয়ে দিচ্ছে।

বইটির পুরো নাম ‘দ্য মুসলিমাহ সেক্স ম্যানুয়াল- এ হালাল গাইড টু মাইন্ড ব্লোয়িং সেক্স’। মুসলিম নারীদের যৌন জীবনকে আরো উন্নত করে তোলার জন্যই মূলত বইটি লেখা। একজন মুসলিম নারী কীভাবে সুস্থ যৌনজীবন উপভোগ করতে পারেন, তার নানা পদ্ধতিও ব্যাখ্যা করা হয়েছে বইটিতে। আর এটা ঘিরেই যত বিতর্ক।

লেখিকা উম্মু লাদাত জোর দাবি করেছেন, একজন ভালো স্ত্রী হতে বইটি সাহায্য করবে। এখানে শুধু বিয়ের পর মুসলিম নারী-পুরুষের যৌনজীবনের যে বৈধতা রয়েছে তাই তুলে ধরা হয়েছে। কেন এমন বই লিখলেন- এমন প্রশ্নের ব্যাখ্যাও দিয়েছেন তার নিজের ওয়েবসাইটে। এ বইটি লেখার কিছুদিন আগে এক মুসলিম নারীর সঙ্গে লেখিকার দেখা হয়েছিল। ওই নারী জানিয়েছিলেন বিয়ের পর যৌনতা নিয়ে তিনি একাধিক সমস্যায় পড়েছেন। লেখিকার কাছে এ ব্যাপারে কিছু পরামর্শও চান। এই ঘটনা থেকেই মূলত গাইড লেখার ভাবনার সূত্রপাত।

একাধিক নারী যে এসব সমস্যায় ভুগছেন তা আঁচ করতে পারেন লেখিকা। আর সে কারণেই এসব নারীর সমস্যা সমাধানে আস্ত একটি বই-ই লিখে ফেললেন। মূলত ওই নারীকে লেখিকা যা লিখে পাঠিয়েছিলেন, সেটি ওই নারীর একাধিক বান্ধবীও দেখেছিলেন। তাতে প্রত্যেকেই উপকৃত হয়েছিলেন। এরপরই ওইসব গাইডলাইন বই হিসেবে প্রকাশ করার কথা ভাবেন লেখিকা। গেল সপ্তায় বইটি বাজারে ছেড়েছেন।

লেখিকার মতে, নিজেদের যৌনজীবন নিয়ে বহু মুসলিম নারীই সংশয়ে থাকেন। যৌনতায় কোনো কোনো বিষয় ধর্মসম্মত, আবার কোনো কোনোটি নয়, তা নিয়েই যতো ধন্দ। আর অনেকে এ নিয়ে একেবারে অপরাধবোধেও ভুগতে থাকেন। এ ব্যাপারে ভারসাম্য রেখেই যৌনতার পরিপূর্ণ আনন্দ উপলব্ধির সমস্ত উপায় ব্যাখ্যা করা হয়েছে হালাল সেক্স গাইডে।

লেখিকার দাবি, তিনি কখনোই বিকৃত যৌনতায় উৎসাহ দেননি। বরং নিজের সঙ্গীর সঙ্গেই কীভাবে যৌনতায় পূর্ণতা লাভ করা যায় তারই হদিশ দেবে তার বই। স্বামীর থেকে পূর্ণ তৃপ্তি পাওয়ার অধিকার যে স্ত্রীর রয়েছে- এই ব্যাপারটিই ভয় ভাঙিয়ে নারীদের মনে প্রতিষ্ঠিত করতে চেয়েছেন গাইডটিতে।

বাজারে আসতে না আসতেই বইটি ব্যাপকভাবে যেমন বিতর্কিত, একইভাবে জনপ্রিয়তাও পেয়েছে পশ্চিমা বিশ্বে। রোববার (১৬ জুলাই) ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য অবজারভারকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে লেখিকা উম্মু বলেন, ‘আমি বইটিতে স্বামীর সঙ্গে যৌনমিলনে উৎসাহিত করেছি। বইটি পড়ে দক্ষতার সাথে যৌনমিলন করতে পারবে।’ লেখিকা আরো বলেছেন, ইসলামের দৃষ্টিতে বিয়ের মধ্য দিয়েই কোনো পুরুষের সঙ্গে নারীর যৌনমিলন ঘটতে পরে। এটা শুধু সন্তান জন্ম দেয়ার জন্যই নয়। একজন স্ত্রীর অধিকার আছে নিরাপদভাবে স্বামীর সঙ্গে যৌনমিলনের।’

লেখিকা উম্মু লাদাত তার বইটিতে স্বামীর সঙ্গে কোন কোন উপায়ে যৌনমিলন করতে পরবে ন, ইসলামী আইনে তা জায়েজ কি না সেটাও তুলে ধরেছেন। সেখানে- ডগি, ফ্রন্ট-ব্যাক, ওরাল থেকে শুরু করে সর্বশেষ সেক্সের যে সব উপায় বের হয়েছে সবকিছু নিয়েই আলোচনা করেছেন।

কোনো পাঠক হয়তো বিখ্যাত মার্কিন লেখিকা ব্রোকি ম্যাগনানাতি ‘বেলে ডি জোর’ উপন্যাসটি পড়ে থাকতে পারেন। সেখানে একজন সদ্য বয়ঃপ্রাপ্ত কিশোরীর যৌনজীবন ও নবদম্পতির জীবনের নানা সমস্যার কথা তুলে ধরা হয়েছে। তার স্বামীর সঙ্গে কীভাবে যৌনমিলন করবে- এমন নানা প্রশ্নের উত্তর খুঁজে বেড়ায় উপন্যাসের নায়িকা। তাহলে কি ওই কিশোরীর মতোই যারা গোপনসব প্রশ্নের উত্তর খুঁজে বেড়ায় তাদের জন্যই মার্কিন মুসলিম লেখিকা লিখে বসলেন এই সেক্স ম্যানুয়েল?

গো নিউজ২৪/এন