৪ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, শনিবার ১৮ নভেম্বর ২০১৭ , ৬:১০ অপরাহ্ণ

ফেসবুকে এই চার বদভ্যাসই আপনার প্রেম ও দাম্পত্য জীবন নষ্ট করছে


গো নিউজ২৪ আপডেট: ২৭ ডিসেম্বর ২০১৬ মঙ্গলবার
ফেসবুকে এই চার বদভ্যাসই আপনার প্রেম ও দাম্পত্য জীবন নষ্ট করছে

ফেসবুক নিঃসন্দেহে মানুষের সঙ্গে মানুষের দূরত্ব ঘোচানোর জন্য অনবদ্য একটি মাধ্যম। হারিয়ে যাওয়া পুরনো বন্ধুর সঙ্গে যেমন পুনর্মিলনের সুযোগ করে দেয় ফেসবুক, তেমনই কর্মসূত্রে বা অন্য কোনও প্রয়োজনে দূরে চলে যাওয়া মানুষের সঙ্গেও তৈরি করে সংযোগ। কিন্তু ফেসবুক অনেক সময়ে কাছের মানুষের সঙ্গে আমাদের দূরত্বও তৈরি করে। ফেসবুকে এমন কিছু কাজ আমরা করি, যা আমাদের ভালবাসার মানুষকে আমাদের থেকে দূরে সরিয়ে দেয়। রিলেশনশিপ ইভেন্ট অর্গানাইজার ওয়ার্ল্ড অফ আমোর চিহ্নিত করেছে চারটি বিশেষ ফেসবুক সংক্রান্ত বদভ্যাসের কথা, যেগুলি আপনার সঙ্গে আপনার সঙ্গী বা সঙ্গিনীর দূরত্ব তৈরি করতে পারে।

কী সেই সমস্ত বদভ্যাস? আসুন, জেনে নিই— 
 

১. ফেসবুকে নিজের প্রেমিক বা প্রেমিকার উপর নজর রাখা বন্ধ করুন। এটা আপনার সঙ্গী বা সঙ্গিনীর কাছে মোটেই কোনও রোম্যান্টিক কাজ বলে বিবেচিত হবে না। যেমন ধরুন, আপনার প্রেমিকার সেলফিতে তাঁর কোনও পুরুষ বন্ধু ‘খুব সুন্দর লাগছে তোমাকে’ কমেন্ট করলে তার জন্য যদি আপনি তেলে-বেগুনে জ্বলে উঠে প্রেমিকার কাছেই জবাবদিহি চেয়ে বসেন, তাহলে তিনি মোটেই খুশি হবেন না নিশ্চয়ই। তেমনই আপনার বয়ফ্রেন্ড কার কোন পোস্ট লাইক করছেন, সেদিকে তীর্থের কাকের মতো যদি আপনি চেয়ে বসে থাকেন, তাহলে তিনি অস্বস্তি বোধ করতে বাধ্য। 
 

২. সঙ্গী বা সঙ্গিনী প্রতি রাগ, অভিমান যা-ই হোক না কেন, সেই আবেগ ফেসবুকে প্রকাশ করবেন না। আপনার বান্ধবী হয়তো আপনাকে ছাড়াই বন্ধুদের সঙ্গে রেস্তোরাঁয় খেতে গিয়েছেন, আপনি তাতে ভয়ানক ক্ষুব্ধ। কিন্তু বান্ধবী নিজের সেই আউটিং-এর ছবি ফেসবুকে পোস্ট করার সঙ্গে সঙ্গে আপনি যদি নীচের কমেন্ট বক্সে সেই রাগ উগরে দেন, তাহলে তাঁর পক্ষে সেটা অত্যন্ত বিরক্তির কারণ হয়ে দাঁড়াবে। তার চেয়ে নিজেদের সমস্যা ব্যক্তিগত স্তরেই মিটিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করুন। 

৩. নিজের প্রাক্তন প্রেমিক বা প্রেমিকার সঙ্গে ফেসবুকে ফ্লার্ট করা বন্ধ করুন। নিজের পুরনো বন্ধু কিংবা ভালবাসার মানুষদের সঙ্গে পুনর্মিলনের চমৎকার সুযোগ ফেসবুক তৈরি করে ঠিকই, কিন্তু তার অর্থ এই নয় যে, আপনি পূর্ণ মাত্রায় সেই সুযোগের সদব্যবহার করবেন। নিজের এক্স-গার্লফ্রেন্ডের ছবিতে ‘সুন্দর লাগছে’ জাতীয় কমেন্ট চলতেই পারে, কিন্তু আপনি যদি লেখেন ‘তোমার হাসিটা এখনও আগের মতোই মিষ্টি রয়েছে’, তাহলে সেটা বাড়াবাড়ি। এতে আপনার বর্তমান প্রেমিকার খারাপ লাগাটা অত্যন্ত স্বাভাবিক।

 

৪. প্রেমিক বা প্রেমিকার কাছে মিথ্যে বলবেন না। কারণ ফেসবুকে আপনার মিথ্যেটা ধরা পড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা অত্যন্ত বেশি। যেমন ধরুন, প্রেমিকাকে বললেন, আপনি ভয়ানক ব্যস্ত, আর তার পর বন্ধুদের সঙ্গে খানাপিনার ছবি পোস্ট করে দিলেন ফেসবুকে, তাহলে গুরুতর বিপদ সম্ভাবনা থেকেই যাচ্ছে। 

গো নিউজ২৪/এএফপি 

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত