১ পৌষ ১৪২৪, শনিবার ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭ , ১:৪৬ পূর্বাহ্ণ

পুঁজিবাজারের উন্নয়নে অংশীদার হতে চায় বিশ্বব্যাংক


গো নিউজ২৪ | নিজস্ব প্রতিবেদক আপডেট: ০৫ ডিসেম্বর ২০১৭ মঙ্গলবার
পুঁজিবাজারের উন্নয়নে অংশীদার হতে চায় বিশ্বব্যাংক

ঢাকা: দেশের পুঁজিবাজারের উন্নয়নে কাজে অংশীদার হতে চায় বিশ্বব্যাংক। এজন্য বিশ্বব্যাংক ও এর সহযোগী আইএফসির প্রতিনিধি দল গতকাল পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) সঙ্গে বৈঠক করেছেন। পরবর্তীতে তারা এ বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গেও আলোচনা করবেন।

চলতি বছরের জুনে বাংলাদেশসহ বিশ্বের আটটি উন্নয়নশীল দেশের পুঁজিবাজার উন্নয়নে একটি যৌথ প্রকল্প হাতে নিয়েছে বিশ্বব্যাংক ও তাদের অঙ্গ সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল ফিন্যান্স করপোরেশন (আইএফসি)।

বিএসইসি’র কর্মকর্তারা জানান, বাংলাদেশ, ভিয়েতনাম, কেনিয়া, মরক্কো, পেরু, ইন্দোনেশিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা ও আর্জেন্টিনার মতো উন্নয়নশীল দেশগুলোর পুঁজিবাজার উন্নয়নে অবদান রাখতে আইএফসি-ওয়ার্ল্ড ব্যাংক জয়েন্ট ক্যাপিটাল মার্কেট ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম (জেসিএপি) চালু হয়েছে।

মূলত তিনটি উদ্দেশ্য সামনে রেখে এ প্রকল্পের মাধ্যমে বিশ্বব্যাংক মিশন কাজ করছে। প্রথমত. ইকুইটি ও ডেটভিত্তিক সম্পদের মাধ্যমে সরকারি ও বেসরকারি খাতের প্রতিষ্ঠানগুলোকে সহায়তা প্রদানের ক্ষেত্রে নিয়ন্ত্রক সংস্থা ও বাজারসংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর দুর্বলতা পর্যালোচনা করবে তারা।

দ্বিতীয়ত. পুঁজিবাজার উন্নয়নে প্রকল্প পরিকল্পনা প্রণয়নে সহায়তা প্রদান।

তৃতীয়ত. দীর্ঘমেয়াদি ডেট ইন্সট্রুমেন্ট, স্পেশাল পারপাস বন্ড, নন-সভেরিন বন্ড, বিভিন্ন সিকিউরিটাইজেশনসহ পুঁজিবাজারের অবকাঠামোগত প্রকল্পে বিশ্বব্যাংক বা আইএফসির বিনিয়োগে নিয়ন্ত্রক সংস্থার কার্যক্রম ও সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য কী করা যায়, সে বিষয়টিও পর্যালোচনা করা হবে।

বিএসইসি’র কর্মকর্তারা আরো জানান, দেশের পুঁজিবাজার উন্নয়নে বিশ্বব্যাংক-আইএফসি সম্পৃক্ত হতে চাইলেও বিষয়টি এখনো প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। এ বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গেও আলোচনা করবে তারা। পরবর্তীতে সবকিছু পর্যালোচনা করে তাদের পক্ষ থেকে সুনির্দিষ্ট প্রস্তাবনা দেয়া হবে।

বিশ্বব্যাংকের মিশন সম্পর্কে জানতে চাইলে বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সাইফুর রহমান সংবাদমাধ্যমকে বলেন, পুঁজিবাজারের উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে চায় বিশ্বব্যাংক। এক্ষেত্রে কোথায় ঘাটতি রয়েছে এবং কোন খাতে তাদের ভূমিকা রাখার সুযোগ রয়েছে, সে বিষয়ে প্রাথমিক ধারণা নিতে আমাদের সঙ্গে আলোচনা করেছে তারা। ডেরিভেটিভস, বন্ড ও সেন্ট্রাল কাউন্টার পার্টি (সিসিপি) নিয়ে কাজ করার আগ্রহ দেখিয়েছে তারা। পাশাপাশি করপোরেট গভর্ন্যান্স গাইডলাইন নিয়েও কাজ করার কথা জানিয়েছে বিশ্বব্যাংক।

তিনি আরো বলেন, এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের সঙ্গে আমাদের উন্নয়ন প্রকল্প চলছে। অবশ্য বিশ্বব্যাংক জানায় এডিবি’র সঙ্গে আলোচনা করেই তারা উন্নয়ন কাজে অংশ নেবে।

উল্লেখ্য, দ্য ইন্টারন্যাশনাল ব্যাংক ফর রিকনস্ট্রাকশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (আইবিআরডি) সিনিয়র ফিন্যান্সিয়াল সেক্টর স্পেশালিস্ট একেএম আব্দুল্লাহ ও আইএফসির সিনিয়র ইনভেস্টমেন্ট অফিসার মিরা নারায়ণস্বামীর যৌথ নেতৃত্বে বিশ্বব্যাংকের প্রতিনিধি দলে অন্যদের মধ্যে ছিলেন— আইএফসির প্রিন্সিপাল ইনভেস্টমেন্ট অফিসার ক্রিস রিচার্ডস, আইবিআরডির লিড ফিন্যান্সিয়াল সেক্টর ইকোনমিস্ট ইলিয়াস স্কেমনেলস ও আইএফসির প্রিন্সিপাল ইন্ডাস্ট্রি স্পেশালিস্ট ফারুক সাইদ জাফরি।

বিএসইসির চেয়ারম্যান ড. এম খায়রুল হোসেনের নেতৃত্বে বৈঠকে আরো উপস্থিত ছিলেন কমিশনার মো. আমজাদ হোসেন, অধ্যাপক স্বপন কুমার বালা ও খোন্দকার কামালুজ্জামান, নির্বাহী পরিচালক মো. সাইফুর রহমান ও মো. মাহবুবুল আলম।

গোনিউজ২৪/কেএইচ