১১ শ্রাবণ ১৪২৪, বুধবার ২৬ জুলাই ২০১৭ , ৪:৪১ অপরাহ্ণ

নৈসর্গিক প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে ভ্রমণ করুণ ভুটানে


গো নিউজ২৪ আপডেট: ০৪ মার্চ ২০১৭ শনিবার
নৈসর্গিক প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে ভ্রমণ করুণ ভুটানে

এশিয়ার অন্যতম সুন্দর দেশ ভুটান। ভুটান মানেই বৌদ্ধ মনাস্ট্রি ও গুম্ফা। সারা দেশজুড়েই রয়েছে অনেক বৌদ্ধ গুম্ফা ও জং। তাছাড়াও রয়েছে নয়নাভিরাম নৈসর্গিক প্রাকৃতিক সৌন্দর্য৷ সারা দেশটি পাহাড়ে ঘেরা। পাহাড়ি চু নদী যেন কটিবন্ধের মতো বেষ্টন করে রেখেছে এই সুন্দরী দেশকে. ভ্রমণের ফাঁকে ফাঁকে কখনও দূরে বা কখনও কাছে এসে ধরা দেবে চু নদী।

গন্তব্য থিম্পু

কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসে হাসিমারা নেমে অটো বা গাড়িতে জয়গাঁও থেকে লাগোয়া ভুটানের প্রবেশদ্বার দিয়ে ফুন্টসেলিং থেকে গাড়িতে বা বাসে করে চলুন থিম্পু। থিম্পু ভুটানের রাজধানী৷ ফুন্টসেলিংয়ে প্রবেশের পাঁচ কিলোমিটারের মধ্যে দেখে নিন বৌদ্ধ গুম্ফা৷ অপূর্ব সুন্দর, শান্ত, স্নিগ্ধ পরিবেশের সাক্ষী হতে পারেন এ স্থানে এসে৷ ফুন্টসেলিং থেকে থিম্পুর দূরত্ব প্রায় ২৭২ কিলোমিটার, ছ’ঘণ্টার যাত্রাপথ। পাহাড়ের কোলে সাজানো এই সুন্দর শহর থিম্পুতে দেখে নিন নরজিন ল্যম, টিভি টাওয়ার ভিউ পয়েন্ট, চিড়িয়াখানা, থিম্পু গুম্ফা, হস্তশিল্পকেন্দ্র এবং সিমতোখা জং৷ এই জংয়ে সূর্যাস্তের আগে পৌঁছতে পারলে শোনা যাবে সমবেত লামা ও দ্রাপাদের মন্ত্রোচ্চারণ ও গ্রন্থপাঠ এবং বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্রের গম্ভীর শব্দ৷ নির্জন এই পর্বতের উপর এই ঘটনার স্মৃতি মনের মণিকোঠায় অক্ষয় হয়ে থাকবে৷ জংয়ের বাইরে বেরিয়েই বৌদ্ধ লামারা পরিবেশন করেন গরম চা ও বিস্কুট৷ নির্জন পাহাড়ে, ঠান্ডায় সেই চায়েও যেন পাওয়া যায় অমৃতের স্বাদ৷ এছাড়াও শহরের মধ্যেই রয়েছে মেমোরিয়াল চোর্তেন, এটি রাজা জিগমে দোরজি ওয়াংচুর স্মৃতিমন্দির৷ নদীর ধারে রয়েছে দেশের প্রধান জং তাশি চো জং তার বিপরীতেই রয়েছে সার্ক বিল্ডিং৷ তারপর চলুন নবনির্মিত বৌদ্ধমন্দির৷ এখানে রয়েছে পৃথিবীর সর্ববৃহৎ বুদ্ধমূর্তি, থিম্পু ভ্রমণপথে প্রত্যক্ষ করা যায় এই মূর্তিটি৷

এবার পুনাখা:

থিম্পু থেকে চলুন পুনাখা৷ প্রায় ৮৬ কিমি এই পথ যেতে সময় লাগে প্রায় তিন ঘণ্টা৷ এই যাত্রাপথে রয়েছে দোচুলা পাস৷ এই পাসের উপর রয়েছে শতাধিক চোর্তেন ও বৌদ্ধমন্দির৷ এই পাসের সর্বোচ্চ স্থানটি থেকে বিভিন্ন হিমশৃঙ্গ দৃশ্যমান৷ ঝলমলে রোদ থাকলে পরিষ্কার দেখা যায় শৃঙ্গগুলি৷ এই পাসের বৌদ্ধমন্দিরটির বাইরে দাঁড়িয়ে পাহাড়ি প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করা ভাগ্যের ব্যাপার৷ পুনাখা পৌঁছতে সময় লাগে আড়াই ঘণ্টা৷ পুনাখার মুখ্য দ্রষ্টব্য পুনাখা জং৷ ভুটানের অন্যতম পবিত্র এই জং৷ জংয়ের দু’পাশ দিয়ে বইছে ফচু এবং মচু নদী৷ সে এক অপূর্ব দৃশ্য৷ পুনাখা আপাত নির্জন ছোট উপত্যকা৷ এছাড়াও এখানে দেখুন গঞ্জের মধ্যে নামগিয়াল চোর্তেন৷ পুনাখা থেকেই দেখে নিন ওয়াং দি ফোদরং জং৷ এটিও বেশ প্রাচীন জং৷ থিম্পু থেকে সারাদিনের টুরেও ঘুরে আসা যায় এই জং৷

পারোর পথে:

থিম্পু থেকে চলুন পারো উপত্যকায়৷ যাত্রাপথ ৫১ কিলোমিটার, সময় দেড় ঘণ্টা৷ যেতে যেতেই পথে দেখা হয়ে যাবে পারো বিমানবন্দর৷ এই স্থাপত্যটি যেন পটে আঁকা ছবি৷ পাহাড়ের গায়েই রয়েছে সিটি ভিউ পয়েন্ট, রিভারসাইড পাহাড়ে ঘেরা এই উপত্যকায় রয়েছে প্রধান জং- রিংপুং জং৷ এই জংয়ের গঠনশৈলী অসাধারণ৷ জংয়ের দেওয়ালের চিত্রকলা ও ভিতরের বৌদ্ধমন্দিরটি সযত্নে সুসজ্জিত৷ এই জংয়ের পিছনের অংশ থেকে পাহাড়ি উপত্যকা ও নদীর দৃশ্য অপূর্ব৷ পারো থেকে সারাদিন ট্রেকিং করে দেখে নিতে পারেন পাহাড়ের গায়ে নির্মিত টাকসাং বা টাইগার মনাস্ট্রি অথবা টাইগার নেস্ট৷ ট্রেকিং করে যেতে সময় লাগে প্রায় তিন ঘণ্টা৷ সাত কিলোমিটারের যাত্রাপথ৷ এই গুম্ফা থেকে উপত্যকার সৌন্দর্য সত্যিই অপূর্ব৷

চেলেলার সৌন্দর্য:

পারো থেকেই চলুন চেলেলা পাস৷ পাহাড়ের পাকদণ্ডির পথ পেরিয়ে ঘণ্টা দু’য়েকের এই যাত্রাপথে উপভোগ করুন নয়নাভিরাম প্রাকৃতিক সৌন্দর্য৷ বিভিন্ন পাখ-পাখালির কলকাকলি মুখরিত করেছে সমস্ত পথটি৷ প্রকৃতিপ্রেমীদের জন্য ভুটান ভ্রমণ আদর্শ৷ জয়গাঁ থেকে ভুটানে প্রবেশের পর চমকিত হতে হয় দেশের পরিচ্ছন্নতা দেখে৷ বিভিন্ন হোটেল, রেস্তোরাঁ, দোকান, গাড়ি চালকদের ব্যবহার মুগ্ধ করে পর্যটকদের৷ যান চলাচল ব্যবস্থা যেন প্রকৃতির সঙ্গে সামঞ্জস্য রক্ষা করে চলে৷ পারো বিমানবন্দর থেকে বা জয়গাঁ থেকে গাড়িতে হাসিমারা স্টেশনে এসে কাঞ্চনকন্যা এক্সপ্রেসে ফিরুন কলকাতা৷

**প্রত্যেক স্থানের হোটেল ভাড়া ১৫০০ থেকে শুরু৷ হোটেল ও সুবিধা অনুযায়ী, পর্যটনের সময় অনুসারে ভাড়া ওঠানামা করে৷ গাড়িভাড়া গাড়ি অনুসারে ৩০০০-৫০০০ পর্যন্ত (দিনপ্রতি)৷

ইনারলাইন পারমিট: ভুটান বেড়ানোর জন্য পারমিট লাগবে৷ বিনামূল্যে এই পারমিট পাবেন ফুন্টসেলিংয়ের ভুটান গেট ও পারো বিমানবন্দরে৷ সঙ্গে রাখবেন ছ’কপি ছবি আর নাগরিকত্বের প্রমাণস্বরূপ সচিত্র সরকারি আইডেন্টিটি কার্ড৷ এই পারমিট সবসময় সঙ্গে রাখবেন৷ ভুটানে যে ক’দিন থাকবেন, তার থেকে বেশিদিনের পারমিট করিয়ে রাখবেন৷ পারমিট হারালে জেল-জরিমানা হতে পারে৷ কলকাতার ভুটান কনস্যুলেটের অফিস থেকেও পারমিট পেতে পারেন৷ সঙ্গে ছবি ও ভোটার কার্ডও রাখবেন৷

গো নিউজ২৪/ভিকে 

পর্যটন বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত