১৩ চৈত্র ১৪২৩, সোমবার ২৭ মার্চ ২০১৭ , ৮:৩০ অপরাহ্ণ

নিজেদের কেন কাপড়ে মুড়ে রাখছেন জাপানের মানুষ?


গো নিউজ২৪
আপডেট: ৩১ ডিসেম্বর ২০১৬ শনিবার
নিজেদের কেন কাপড়ে মুড়ে রাখছেন জাপানের মানুষ?

‘ওতোনামাকি’ নামের এক ধরনের ব্যায়াম জাপানে ইদানিং ব্যাপক জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। বিশেষ ধরনের এ ব্যায়ামে প্রাপ্তবয়স্ক মানুষেরা শিশুদের মতো সারা শরীরে কাপড় পেঁচিয়ে আঁটোসাঁটো হয়ে থাকেন। বড়দের জন্য এ ব্যায়ামের ধারণা ওই কাপড়ে মোড়ানো শিশুদের থেকেই এসেছে। ওতোনামাকির ২০ মিনিটের এক সেশন শরীরের জড়তা বা আড়ষ্টভাব দূর করতে সাহায্য করে। 

জাপানে দিনদিন এ ব্যায়ামের জনপ্রিয়তা বাড়তে থাকায় বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান এখন এ সেবা দিচ্ছে। 
 
এ রকম একটি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি ওরি মাতসুও বলেন, শিশুদের কাপড়ে মোড়ানে অবস্থা দেখেই এ ব্যায়ামটি আবিস্কৃত হয়েছে। শিশুরা কাপড়ে মোড়ানো অবস্থায় হাত-পা ছুড়তে চায়। কিন্তু তাতে তাদের বিকাশে কোনো বিঘ্ন ঘটে না। এটা দেখে মনে হয়, প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তিরাও এ রকম অবস্থায় স্বাস্থ্যসুবিধা পেতে পারেন। এখন পর্যন্ত গ্রাহকদের কাছ থেকে ইতিবাচক সাড়া পাওয়া যাচ্ছে। তাদের অনেকে এই ব্যায়াম করে ভালো লাগার অনুভূতি জানিয়েছেন।   
 
৪০ বছর বয়সী এক ব্যক্তি এই অভিজ্ঞতা নেওয়ার পর বলেছেন, নিজেকে কোঁকড়ানো মনে হলেও খুব বেশি চাপ লাগেনি। বরং উল্টোটাই মনে হয়েছে। এই ব্যায়াম করে তার কাঁধ ও পিঠে আরাম লেগেছে।
 
তিনি বলেন, আরামে আমার ঘুম চলে এসেছিল। আমার ঘাড় ও পশ্চাদ্দেশে এখন উদ্দীপনা বোধ করতে পারছি। আমার স্বামীকেও আমি এ ব্যায়াম করাতে চাই।  
 
 
তবে এ ব্যায়ামে সবাই খুশি নন। টুইটারে এক গ্রাহক লিখেছেন, তার ভয় লাগছিল। অন্যজন এটিকে ভয়ঙ্কর সিনেমার সাথে তুলনা করেছেন। 
 
জাপানের সুপরিচিত ধাত্রী নোকুকো ওয়াতানাবে প্রথম ওতোনামাকি চালু করেন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই ব্যায়ামের অনুশীলন করলে পশ্চাদ্দেশ, পা এবং কাঁধের মাংসপেশি অনেক বেশি শিথিল হয়।
 
নবুকো ওতানাবি নামের এক ধাত্রী সর্বপ্রথম এ ব্যায়ামটি আবিষ্কার করেন। তিনি গর্ভকালীন নারীদের জন্য একটি বিশেষ বেল্প আবিষ্কার করেছিলেন, যা জাপানে এখন অনেক জনপ্রিয়। 
 
ব্যায়ামটি সাধারণত নারীদের জন্য। নারীদের কাছে এটি শারীরীক ম্যাসাজের বিকল্প হিসেবে স্থান করে নিচ্ছে। 
 
২০১৫ সালে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে এই ব্যায়ামের প্রচলন হয় জাপানে। এরপর থেকে প্রায় ৭০ জন ব্যক্তি একটি প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে সেবা নেন। তবে ব্যাপক পর্যায়ে এটির চর্চা শুরু হতে আরও সময় লাগতে পারে। জাপানিজ হোলিস্টিক ক্লিনিকের পরিচালক শিম্পেই ফুকুমোতো বলেন, তিনি কখনো এ রকম ব্যায়ামের নাম শোনেননি। তিনি বুঝতে পারছেন, এটা করলে কী হয়। কিন্তু ঐতিহ্যবাহী ফিজিওথেরাপিতে এমন ওতোনামাকির উল্লেখ নেই। 
 
 
হলমার্ক ফিজিওথেরাপির জ্যেষ্ঠ বিশেষজ্ঞ বিশ্বনাথন রবি বলেন, ‘আমি এই চিকিৎসাপদ্ধতির ঘোর বিরোধী। যেভাবে তারা মানুষকে কাপড়ে শক্ত করে মোড়ায়, তাতে মাংসপেশির দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতি পর্যন্ত হতে পারে। কেউ এভাবে বাঁধা অবস্থায় আধা ঘণ্টা থাকলে মেরুদণ্ডের সমস্যায় আক্রান্ত হতে পারে। তাই এমন চিকিৎসার পরামর্শ দেওয়া উচিত নয়।’
 
সূত্র: বিবিসি