১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪, বুধবার ২৪ মে ২০১৭ , ৭:৩৩ অপরাহ্ণ

নাসির আবারও গিনিপিগ


গো নিউজ২৪ আপডেট: ২১ এপ্রিল ২০১৭ শুক্রবার
নাসির আবারও গিনিপিগ

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নাসির হোসেনের অভিষেক হয়েছে ২০১১ সালে। এরই মধ্যে ১৭টি টেস্ট, ৫৮টি ওয়ানডে ও ৩১টি টি২০ খেলেছেন তিনি। গত বছর অক্টোবরে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তৃতীয় ওয়ানডেও ছিলেন তিনি। অথচ গতকাল চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ও আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজের দল ঘোষণার মঞ্চে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন জানালেন, নাসির নাকি অনেক দিন ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নেই। তাই তাকে আবার প্রস্তুত করতে হবে। এ কারণে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির দলে রাখা হয়নি তাকে।

প্রস্তুতির সুযোগের জন্য তাকে রাখা হয়েছে আয়ারল্যান্ডের ত্রিদেশীয় সিরিজ ও সাসেক্সে ক্যাম্পের ১৮ জনের দলে। তাই জাতীয় দলে ফিরেও যেন ফেরা হলো না নাসিরের! তাকে আবারও গিনিপিগ বানানো হলো। ৬ বছর আগে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রাখা একজন খেলোয়াড়কে কেন আবার নতুন করে অভ্যস্ত করার প্রয়োজন হয়ে পড়ল!

শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তেমন জুতসই ব্যাখ্যা দিতে পারলেন না প্রধান নির্বাচক, 'নাসির এক বছর ধরে দলের সঙ্গে সফর করছে না। সেই হিসেবে আমরা তাকে একটি প্রক্রিয়ার মধ্যে এনেছি। সে ইমার্জিং কাপে ভালো খেলেছে, ঘরোয়া ক্রিকেটেও যথেষ্ট ভালো খেলছে। সাসেক্সে প্রস্তুতি ক্যাম্প আছে। তা ছাড়া আয়ারল্যান্ড সফরে নিয়ে তাকে অভ্যস্ত করা দরকার। সে টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে কাজ করবে। যেহেতু আমাদের ১০ দিনের প্রস্তুতি ক্যাম্প আছে ইংল্যান্ডে। সেখানে তাকে দেখা হবে। আর যেহেতু তার অভিজ্ঞতা আছে, আশা করি দ্রুত আগের ছন্দে ফিরবে।' তার পরও নাসিরের মতো একজন ক্রিকেটারকে নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা কতটুকু যুক্তিযুক্ত!
 
অবশ্য আয়ারল্যান্ড সফরে ১৮ জনের দলে থাকলেও নাসির একাদশে সুযোগ পাবেন কি-না তা নিয়ে একটা সন্দেহ থেকেই যাচ্ছে। এতদিন একই পজিশনে একাধিক ক্রিকেটার থাকায় নাসির দলে জায়গা পাননি বলেও জানান প্রধান নির্বাচক। এখন একটি জায়গা খালি হয়েছে বলে আশার আলোও দেখিয়েছেন প্রধান নির্বাচক, 'নাসিরের পজিশনে তিনজন খেলোয়াড় ছিল। এখন যেহেতু সাবি্বরকে তিন নম্বরে তুলে আনা হয়েছে তাই একটি জায়গা খালি হয়েছে। সে জন্যই নাসির।

মাহমুদুল্লাহ, মোসাদ্দেক ও নাসির_ এ তিনজনের মধ্য থেকে আমরা ছয় ও সাত নম্বরে দু'জনকে নেব। এ জন্য নাসিরকে প্রস্তুত করতে হবে। ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অনেক ব্যবধান। সেই হিসেবে তাকে যথাযথভাবে প্রস্তুত করার জন্যই দলে রাখা হয়েছে।' প্রধান নির্বাচকের কথাতেই বিষয়টি পরিষ্কার। যদি মাহমুদুল্লাহ ও মোসাদ্দেকের মধ্যে কেউ একজনকে না পাওয়া যায় তখনই নাসিরের সুযোগ আসবে।

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির দলটা ১৫ জনের বলেই সেখানে নাসিরের জায়গা হয়নি। তাই বলে একেবারে হিসাবের বাইরেও নেই তিনি। নুরুল হাসান সোহান, শুভাশীষ রায় সাইফুদ্দিনের সঙ্গে স্ট্যান্ডবাই আছেন নাসির। যদি কেউ চোটে পড়ে তখন কপাল খুলে যেতে পারে নাসিরের। স্ট্যান্ডবাইদের মধ্যে একমাত্র নুরুল হাসান চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সময় দলের সঙ্গে থাকবেন। বাকিরা আয়ারল্যান্ড থেকে দেশে ফিরে আসবেন।