৮ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, বুধবার ২২ নভেম্বর ২০১৭ , ১০:৩৭ অপরাহ্ণ

‘দেশে তথ্য প্রযুক্তি খাতে অনেক অগ্রগতি হয়েছে’


গো নিউজ২৪ | স্টাফ করেসপন্ডেন্ট আপডেট: ০১ নভেম্বর ২০১৭ বুধবার
‘দেশে তথ্য প্রযুক্তি খাতে অনেক অগ্রগতি হয়েছে’

ঢাকা: দেশে তথ্য প্রযুক্তি খাতে অনেক অগ্রগতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বুধবার রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে জাতিসংঘের এশিয়া ও প্যাসিফিক বিষয়ক অর্থনৈতিক ও সামাজিক কমিশনের (এসকাপ) এপিআইএস স্টিয়ারিং কমিটির দুইদিনব্যাপী অধিবেশনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ নির্বাচনী ইশতেহারে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার পরিকল্পনা ঘোষণা করে। গত নয় বছরে তথ্য প্রযুক্তি খাতে অনেক অগ্রগতি হয়েছে। দারিদ্র্যের মতো লজ্জা আমাদের কাটিয়ে উঠতে হবে। দারিদ্র্য দূরীকরণে তথ্য প্রযুক্তি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

সম্মেলনে সভাপতিত্ব করছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- অধিবেশনে সড়ক ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব মো. নজরুল ইসলাম, রেলপথ মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব মো. মোফাজ্জল হোসাইন, ইউএনএসকাপের প্রোগ্রাম ইকোনমিকস অ্যান্ড ফাইন্যান্সিংয়ের ডেপুটি এক্সিকিউটিভ সেক্রেটারি হং জো হাম, এপিআইএস ওয়ার্কিং গ্রুপের সভাপতি ও আইসিটি অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বনমালী ভৌমিক প্রমুখ।

সভাপতির বক্তব্যে তিনি বলেন, ‍ভাবতেই ভালো লাগছে যে, আমি এশিয়ান হাইওয়ে ও ট্রান্স এশিয়ান রেলওয়ে নেটওয়ার্কের সাথে আইসিটি ব্যাকবোনকে সম্পৃক্ত করার প্রস্তাব করেছিলাম। এসকাপ কমিটি অন আইসিটি আমার সে প্রস্তাব গ্রহণ করার মাধ্যমে এশিয়া প্যাসিফিক ইনফরমেশন সুপার হাইওয়ে (এপিআইএস) উদ্যোগ গ্রহণ করে, এবং বাংলাদেশকে এই এপিআইএসের ওয়ার্কিং গ্রুপের সভাপতি নির্বাচিত করে।

ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের বিভিন্ন কার্যক্রম তুলে ধরে প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা বাংলাদেশের সকল নাগরিককে ইন্টারনেট সংযোগের আওতায় নিয়ে আসতে কাজ করে চলেছি। ২০২১ সালের মধ্যে আমরা সবার জন্য ইন্টারনেট সুবিধা নিশ্চিত করতে সক্ষম হব।

প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলে তথ্যপ্রযুক্তিভিত্তিক যোগাযোগ ব্যবস্থা নির্বিঘ্ন করতে জাতিসংঘের এসকাপভুক্ত সকল দেশ মিলে এপিআইএসের ওয়ার্কিং গ্রুপ একটি মহাপরিকল্পনা চূড়ান্ত করেছে। এপিআইএসের এ মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে এপিআইএস স্টিয়ারিং কমিটি আগামী দুইদিনে জাতীয়, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক সহযোগিতার ক্ষেত্র সমন্বয় এবং বাস্তবায়নের কার্যকর উপায় বের করতে সক্ষম হবে বলে আমি আশাবাদী।
গোনিউজ২৪/কেআর