৯ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, শুক্রবার ২৪ নভেম্বর ২০১৭ , ১১:৫১ পূর্বাহ্ণ

ঢাকার রাজপথে উবারের এক বছর: সাকিব আল হাসান ছিলেন প্রথম রাইডার


গো নিউজ২৪ | সজীব রায় আপডেট: ০৬ নভেম্বর ২০১৭ সোমবার
ঢাকার রাজপথে উবারের এক বছর: সাকিব আল হাসান ছিলেন প্রথম রাইডার

যান্ত্রিক নগরী ঢাকায় সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে বেড়ে চলেছে মানুষের ঢল। জীবন আর জীবিকার তাগিদে নগরীর অলি গলি পেরিয়ে ব্যস্ত মানুষের গন্তব্যে  ছুটে চলা ছুটে চলার এই গতিকে রোধ করে দেয় অসহনীয় যানজট। গনপরিবহনের সংকট, সিএনজি অটোরিক্সা ও ট্যাক্সি ক্যাবের বাড়তি ভাড়া ও যাত্রী হয়রানি এই সব সমস্যার সমাধান দিতে কাজ করে যাচ্ছে প্রযুক্তি ভিত্তিক অ্যাপ “উবার”।বাংলাদেশে উবার তার যাত্রার এক বছর পূর্তি করতে যাচ্ছে আগামী ২২ নভেম্বর ২০১৭। ঢাকায় প্রযুক্তি ভিত্তিক রাইড শেয়ারিং উবারের বর্ষ পূর্তির নানা দিক নিয়ে প্রচ্ছদটি লিখেছেন- সজীব রায়। 

উবারঃ উবার মোবাইল অ্যাপ-ভিত্তিক রাইড শেয়ারিং সেবা। সারা বিশ্বের একটি সাধারণ সমস্যা সমাধানের লক্ষ্য নিয়ে ২০১০ সালে যাত্রা শুরু করে উবার। যাত্রা শুরুর কিছুদিনের মধ্যেই এক অবিশ্বাস্য সারা পায় প্রতিষ্ঠানটি। পৃথিবীর বড় শহরগুলোতে এক বৈপ্লবিক পরিবর্তন এনেছে এই সেবাটি। বিশ্বের ৭৪টি দেশের সাড়ে চারশ শহরে উবার অ্যাপ দিয়ে ট্যাক্সি ভাড়া করা যায়। শহরগুলোতে প্রতিদিন গড়ে ৫০ লক্ষেরও বেশিবার উবার ব্যবহার করে ট্যাক্সি ভাড়া করা হয়, সেখানে প্রতিনিয়তই সামগ্রিক যোগাযোগ ব্যবস্থা রূপান্তরে কাজ করে চলেছে। উবারের লক্ষ্য হচ্ছে যাতায়াত ব্যবস্থাকে সহজ করে তোলা- সবার জন্য, সবখানে।

ঢাকায় যাত্রা শুরুঃ দক্ষিণ এশিয়ায় ৩৩তম শহর হিসাবে ২০১৬ সালের ২২ নভেম্বর ঢাকায় উবার তার যাত্রা শুরু করে। যাত্রা শুরুর মাত্র কিছু দিনের মধ্যেই বেশ আলোচনায় উঠে আসে।স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের  নিকট জনপ্রিয় হয়ে উঠে এই সেবা। বাংলাদেশে সাকিব আল হাসান উবারের প্রথম রাইডার ছিলেন । 

উবার রাইডারে সাকিব আল হাসান 

উবারে সার্ভিসের ক্যাটাগরিঃ উবার বর্তমানে  উবার এক্স এবং উবার প্রিমিয়ার সেবা দিচ্ছে। একই সাথে খুব সম্প্রতি উবার মটো সেবা দিতে যাচ্ছে তারা। উবার প্রিমিয়ারে বেইজ ভাড়া ৮০ টাকা। এরপর প্রতি কিলোমিটারে ভাড়া ২২ টাকা আর ওয়েটিং চার্জ মিনিটে ৩টাকা এবং  উবার এক্সে বেইজ ভাড়া ৪০ টাকা সেই সাথে ১৮ টাকা প্রতি কিলোমিটার এবং ওয়েটিং চার্জ ৩টাকা। যাত্রী তার যাত্রা শুরুর আগে গন্তব্য ঠিক করে সম্ভাব্য ভাড়া জানাতে পারবেন। নগদ টাকা বা কার্ডে ভাড়া পরিশোধ করা যাবে।

যেভাবে কাজ করে উবারঃ উবার দিয়ে বেশ সহজে ট্যাক্সি ভাড়া করা যায়। এর জন্য অ্যাপল স্টোর বা গুগল প্লে থেকে ফ্রি উবার অ্যাপ ডাউনলোড করে ফোন নম্বর এবং ইমেইল দিয়ে সাইন আপ করে গন্তব্য নির্বাচন করতে হবে। এর কিছুক্ষণের মধ্যেই একজন চালক ট্যাক্সি নিয়ে পৌঁছে যাবে গ্রাহকের কাছে। 

উবার আমাদের দৈনন্দিন পরিবহণ ব্যবস্থাকে আরও সহজ করে তুলবে। এই সেবার জন্য  উবারের নিজস্ব কোনো ট্যাক্সি নেই। ব্যক্তিগত গাড়ি আছে এমন যে কেউ অ্যােপ ডাউনলোড করে নিবন্ধনের মাধ্যোমে উবারের চালক হয়ে যেতে পারেন। একই অ্যাউপ ব্য বহার করে সেবা পাবেন যাত্রীরা। উবার ম্যাটপে যাত্রীরা চালকদের তাৎক্ষণিক অবস্থান জেনে নিয়ে তাকে ডাকতে পারবেন। রিকোয়েস্ট পাঠানোর সঙ্গে সঙ্গে গাড়ির নম্বর, চালকের নাম ও ফোন নম্বর পেয়ে যাবেন তিনি। গাড়ির গতি, দূরত্ব, সময় অনুযায়ী উবার ম্যাফপ তাদের মাণদণ্ড অনুযায়ী ভাড়া হিসাব করে দেবে। যাত্রা শেষে নগদ টাকা বা ক্রেডিট-ডেবিট কার্ড ব্যবহার করে মেটানো যাবে ভাড়া। কোনো কারণে চালক যাত্রা বাতিল করতে চাইলে জরিমানা গুণতে হবে। ভাড়া হিসাব করা হবে যাত্রী ওঠার পর থেকে। বাজে আচরণের জন্যা যাত্রী বা চালক অ্যারপে রেটিং দিতে পারবেন।

নিয়ম-কানুন:  কোন যাত্রী ট্যাক্সির জন্য কোন উবার চালককে এ্যাপে রিকোয়েস্ট পাঠালে তিনি আসতে বাধ্য থাকবেন। রিকোয়েস্ট পাঠানোর সঙ্গে সঙ্গে গাড়ির নম্বর, চালকের নাম ও ফোন নম্বর পেয়ে যাবেন তিনি। কোনো কারণে চালক যাত্রা বাতিল করতে চাইলে জরিমানা গুণতে হবে। ভাড়া হিসাব করা হবে যাত্রী ওঠার পর থেকে।  

সুযোগ সুবিধাঃ প্রচলিত অফিস টাইম মেনে চলতে হয় না বিধায়, অন্য পেশায় থেকেও সুবিধাজনক সময়ে ভাড়ায় গাড়ি চালিয়ে বাড়তি রোজগারের সুযোগ তৈরি হওয়ায় এবং যাত্রীদের জন্য সেবা পাওয়া সহজ হওয়ায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশে দারুণ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে উবার।

বর্তমানে ঢাকায় যে সকল ব্যক্তিগত গাড়ি ব্যবহার হচ্ছে সেগুলো যদি  প্রযুক্তি ভিত্তিক রাইড শেয়ারিং সেবা  উবার এর আওতায় আসে তবে এক দিকে যেমন গনপরিবহনের উপর যাত্রীর চাপ কমবে। অন্যদিকে অর্থনীতিতে অনেক বড় ধরনের ভূমিকা পালন করবে। সেই সাথে বাড়তি আয়ের সুযোগ সৃষ্টি হবে। অনেক বেকার যুবক তারা এই ট্যাক্সি সেবা প্রদান করে আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হতে পারবেন। 

উবার ব্যবহার করেছেন এমন অনেকের সাথে কথা বলে জানা যায় তারা এই সার্ভিসটি পেয়ে মোটামুটি সন্তুস্ট। উবার ব্যবহারকারী এমনই  একজন হল জর্জ অলড্রিন ঘোষ  পড়াশুনা করছেন নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে। বাসা ফার্মগেট এলাকার মনিপুরী পাড়ায় ক্লাস করার জন্য প্রতিদিন তাকে মনিপুরী পাড়াথেকে বসুন্ধারাতে আসতে হয়। এর জন্য তিনি কখনো সিএনজি আবার কখনো বাস ব্যবহার করতেন। একদিকে বাসে  সিট পাওয়া মুশকিল অন্য দিকে সিএনজির বাড়তি ভাড়া। এ সব কিছুর অবসান ঘটিয়ে তিনি নিয়মিত উবার ব্যবহার করছেন। জর্জ  বলেন, উবার ব্যবহার করে খুব সহজেই বাসায় বসেই আমি ট্যাক্সি ডাকতে পারি। ভাড়া ও অপেক্ষাকৃত কম আর সব থেকে বড় কথা কোন রকম ঝামেলা নেই। আমার মত অনেকই আছে যারা নিয়মিত এই সার্ভিসটি ব্যবহার করেন।

উবারের টপ রাইডার আদিব শামস


উবার টপ রাইডারের অভিজ্ঞতাঃ তরুণ উদ্যোক্তা আদিব শামস সম্প্রতি ঢাকায় শীর্ষ উবার ব্যবহারকারীদের একজন নির্বাচিত হয়েছেন। ২০১৩ সালে যুক্তরাষ্ট্রে পড়ার সময় থেকে তিনি উবার ব্যবহার শুরু করেন এবং এখন ঢাকাতেও উবার ব্যবহার করছেন। সম্প্রতি মোবাইল অ্যাপ ভিত্তিক রাইড শেয়ারিং সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান উবারের সাথে এক সাক্ষাতকারে  নিজের অনুভূতি জানান তিনি। আদিব বলেন, “ঢাকায় উবার তাদের সার্ভিস চালু করেছে বিষয়টি আমার জন্য ছিল অনেক খুশির সংবাদ, যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফেরার পর অফিসের কাজ সহ নানা কারণে বাইরে বের হতে হয়। বিশ্বাস ছিল আমেরিকার মত বাংলাদেশেও উবার তাদের সেবার মান অক্ষুন্ন রাখবে। ঢাকায় যথাযথ সেবার মান আমার সেই বিশ্বাসকে অপরিবর্তিত রেখেছে”। তিনি জানান তার পাশাপাশি তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরাও নিয়মিত উবার ব্যবহার করছেন। 

উবারের টপ ড্রাইভার সাইফুল ইসলাম 

সতর্কতাঃ হাজারো ভালোর মাঝে যেমন খারাপ থাকে। তেমনি উবারের ক্ষেত্রেও আছে নানা রকম ঝুঁকি। যেমন অপহরণ,ধর্ষণ, ছিনতাই,সহ নানা রকম অপরাধ হবার সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে ব্যক্তিগত সতর্কতা সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আবার অনেক সময় যাত্রীর সাথে দুর্ব্যবহার সহ অতিরিক্ত ভাড়া চাওয়ার মত ঘটনা ঘটেছে। এসব ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট ঐ ড্রাইভারের  সম্পর্কে তথ্য ভিত্তিক অভিযোগের সুযোগ আছে। অভিযোগ পেলে কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা গ্রহন করবেন। নারীদের উবার ব্যবহারের ক্ষেত্রে একটু বাড়তি সতর্কতা রাখা উচিৎ। বিশেষ করে যদি রাতে কোন রাইড নেওয়া হয়। সরকারের পক্ষ থেকেও  আশা করা যাচ্ছে খুব দ্রুত যথাযথ নীতিমালা ও আইন প্রনয়ন করে তা কার্যকর করা হবে। সম্ভাবনাময় বাংলাদেশ এগিয়ে চলছে সারা বিশ্বের সাথে। নানা সমস্যার কার্যকরী সমাধান নিয়ে কাজ চলছে। প্রযুক্তির  ব্যবহার জীবন যাত্রাকে আরও সহজ করে তুলছে। সেই ধারাবাহিকতায় উবার বাংলাদেশের জন্য এক নতুন সংযোজন। ধারনা করা হচ্ছে সেবার মানসহ সব কিছু ঠিক থাকলে  ঢাকাসহ  বিভাগীয় শহর গুলোতেও এই সার্ভিসের ব্যপ্তি বাড়বে। 

গো নিউজ ২৪/ এ আই/ সজীব রায়