১০ শ্রাবণ ১৪২৪, মঙ্গলবার ২৫ জুলাই ২০১৭ , ১০:৩৪ অপরাহ্ণ

গ্যারাথ বেল কে থামিয়ে ইংল্যান্ডের রোমাঞ্চকর জয়


গো নিউজ২৪ | স্পোর্টস ডেস্ক আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬ বৃহস্পতিবার
গ্যারাথ বেল কে থামিয়ে ইংল্যান্ডের রোমাঞ্চকর জয়

গ্যারাথ বেল, অসাধারণ, দুর্দান্ত! দুই ম্যাচে দুই গোল করলেন আর দুটোই ফ্রি কিক থেকে। রিয়াল মাদ্রিদ তারকা গ্যারাথ বেলের ফ্রি কিক থেকে গোল দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই যেন শত বছরের কষ্টে ব্যথিত কন্ঠগুলো একসঙ্গে জেগে উঠলো ফ্রান্সের লেন্স স্টেডিয়ামে।

 

ড্যানিয়েল স্টারিজের শেষ মুহূর্তের গোলে নাটকীয় জয় পেল ইংল্যান্ড। যোগ করা সময়ের গোলের সুবাদে গ্যারেথ বেলের ওয়েলসের বিপক্ষে ২-১ গোলে জিতেছে সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা।এবার ইউরোর শুরুটা ভালো হয়নি ইংল্যান্ডের। প্রথম ম্যাচে ড্র করেছিল রাশিয়ার সঙ্গে। ম্যাচের পারফরম্যান্সে যতটা না আলোচিত হয়েছিল, তার চেয়ে বেশি আলোচিত হয়েছে সমর্থকদের সংঘর্ষে।

 

সেই ঘটনার রেশ কাটাতে দ্বিতীয় ম্যাচে মাঠে নেমেছিলেন রুনি-ভার্ডি-স্টারিজরা। কিন্তু প্রতিপক্ষ দলের গ্যারেথ বেল শুরুতে তাদেরকে হতাশ করে দিয়েছিলেন। প্রথমার্ধে রিয়াল মাদ্রিদ তারকার গোলে এগিয়ে যায় যুক্তরাজ্যের দল ওয়েলস। তবে অভিজ্ঞতার কাছে হেরে গেল প্রথমবারের মতো ইউরো খেলতে আসা দলটি।

 

এদিন শুরু থেকে খেলা এগিয়ে চলছিল আক্রমণ আর পাল্টা আক্রমণে। তবে ওয়েলস নিজেদের গোলপোস্ট নিরাপদ রাখতে পারলেও ইংল্যান্ডের খেলোয়াড়রা গ্যারেথ বেলকে আটকাতে পারেনি। ম্যাচের ৪২ মিনিটে ৩৫ গজ দূর থেকে ফ্রি-কিকে গোলরক্ষক জো হার্টকে পরাস্ত করেন বেল। তাতে ১-০ গোলে এগিয়ে যায় ওয়েলস।

 

বিরতির সময় হ্যারি কেনের বদলি হিসেবে মাঠে নামেন জ্যামি ভার্ডি। আর স্টার্লিংয়ের পরিবর্তে মাঠে নামেন ড্যানিয়েল স্টারিজ। এই দুই ফুটবলারই শেষ পর্যন্ত ওয়েলসকে কাঁদিয়ে মাঠ থেকে বিদায় নিয়েছেন।

 

লেস্টার সিটির হয়ে এবার দুর্দান্ত মৌসুম কাটিয়েছেন ভার্ডি। ইংলিশ ক্লাবটিকে প্রথমবারের মতো প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা এনে দিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছিলেন। তুলনামূলক ছোট দল ওয়েলসের বিপক্ষে তিনিই দলের ত্রাণকর্তা হিসেবে আর্বিভাব হলেন। খেলার ৫৭ মিনেটে অসাধারণ এক গোলে ইংল্যান্ডকে সমতায় ফেরান এই স্ট্রাইকার।

 

দ্বিতীয়ার্ধে ওয়েলস অনেকটা রক্ষণভাগ সামলাতেই ব্যস্ত হয়ে পড়ে। আর জয়ের জন্য মরিয়া রয় হডসনের শিষ্যরা একের পর এক আক্রমণ চালাতে থাকে। কিন্তু ১-১ সমতায় ৯০ মিনিটের লড়াই শেষ হয়ে যায়।

 

তিন মিনিট ইনজুরি টাইম পায় ইংল্যান্ড ও ওয়েলস। এই সময়টাকেই কাজে লাগাল ১৯৬৬ বিশ্বকাপজয়ীরা। ৯২ মিনিটে দুর্দান্ত এক গোল করেন ড্যানিয়েল স্টারিজ। তার এই গোলে জয় নিশ্চিত হয় ইংল্যান্ডের।

 

ম্যাচ যখন নিশ্চিত ড্রয়ের পথে এগুচ্ছে ঠিক তখনই ইংল্যান্ডের ত্রাতার ভূমিকায় আবির্ভাব হয় ড্যানিয়েল স্টারিজের। ডি বক্সের ভেতর দেলে আলির ক্রসে জটলা থেকে গোল করে দলকে অবিস্মরণীয় এক জয় এনে দেন এই লিভারপুল তারকা। গ্রুপের শেষ ম্যাচে স্লোভাকিয়ার বিপক্ষে লড়বে ইংল্যান্ড। অন্যদিকে ওয়েলসের প্রতিপক্ষ রাশিয়া।

 

শেষ মুহূর্তে গ্যারেথ বেল অসাধারণ একটি হেড করলেও বল জালে জড়াতে পারেননি। ফলে হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় তাদেরকে।

 

গো নিউজ ২৪/ এস কে