৩ কার্তিক ১৪২৪, বুধবার ১৮ অক্টোবর ২০১৭ , ৬:০৬ পূর্বাহ্ণ

খেলাপাগল তরুণী নিশির গল্প


গো নিউজ২৪ | নাসরিন জাহান জয়া, বেরোবি (রংপুর) প্রতিনিধি আপডেট: ০১ অক্টোবর ২০১৭ রবিবার
খেলাপাগল তরুণী নিশির গল্প
তানজিনা তানিন (নিশি)

রংপুর: আমাদের বেশিরভাগ স্কুল-কলেজে ছেলে-মেয়েদের খেলাধুলার সমান সুযোগ থাকে। তবে বরাবরই দেখা যায়, খেলাধুলার প্রতি ঝোঁক মেয়েদের চেয়ে ছেলেদেরই বেশি থাকে। স্কুল কলেজে পড়াকালীন মেয়েরা নিয়মিত খেলাধুলায় অংশ নিলেও এক পর্যায়ে গিয়ে আর খেলতে দেখা যায় না। তবে বিপরীত চিত্র দেখা যায় ছেলেদের ক্ষেত্রে। প্রতিদিন বিকেলে তারা খেলতে বের হয়। ক্রিকেট কিংবা ফুটবল যাই-ই হোক। শুধু কি তাই? ব্যাডমিন্টন, টেনিস কিছুই বাদ যায় না।

তবে খেলাধুলার ঝোঁকও থাকে একেকজনের একেক রকম। বেশিরভাগ ছেলেই কোনো একটা খেলায় যুক্ত থাকে। আর সে তুলনায় মেয়েরা অনেক বেশি পিছিয়ে। স্কুল-কলেজের গন্ডি পেরোনোর পর কেউ-ই আর তেমনভাবে খেলাধুলায় নিজেদের ব্যস্ত রাখে না। যে সময় ছেলেরা মাঠে খেলাধুলা করে, ঠিক সে সময় মেয়েরা ঘরে বসে পড়াশোনা কিংবা ঘরকন্নায় ব্যস্ত থাকে। 

তারপরেও কিন্তু সবদিক দিয়েই আমাদের মেয়েরা এগিয়ে যাচ্ছে সব বাধা উপেক্ষা করে। প্রতিটা বিভাগেই এখন মেয়েদের জয়জয়কার। সুযোগ পেলেই দেশে-বিদেশে গিয়ে সফলতা বয়ে আনছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখার পাশাপাশি নিয়মিত খেলাধুলায় নিজেকে ব্যস্ত রাখা অনেক মেয়ের মধ্যে এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত তানজিনা তানিন। ডাকনাম নিশি। স্কুল, কলেজ কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ের অতি পরিচিত মুখ সবার প্রিয় এই মেয়েটি এখন খেলাধুলাতেই পার করছেন জীবনের বেশিরভাগ সময়।

বেশিরভাগ সময় খেলাধুলাতেই পার করেন নিশি

কিছুদিন আগে প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ থেকে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর শেষ করেছেন। স্নাতকোত্তর শ্রেণীতে গবেষণা করেছেন সাংবাদিকতা ও জাতীয়তাবাদ  বিষয়ে। জন্ম চুয়াডাঙ্গাতে হলেও জীবনের অধিকাংশ সময়ই কেটেছে উত্তরবঙ্গের প্রাণকেন্দ্র রংপুর শহরে। তার বাবা আবু জাফর ছিলেন রংপুর জেলা ক্রীড়া কর্মকর্তা। মা হালিমা খাতুন একজন গৃহিনী। 

বাবা খেলাধুলার সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকার কারণেই পরিবার থেকে সব সময়ই পেয়েছে উৎসাহ অনুপ্রেরণা। বাবার হাত ধরেই খেলা শিখেছেন নিশি। যে কোনো খেলায় বাবা যেমন উৎসাহ দিতেন তেমনি দিতেন দিকনির্দেশনাও। তার খেলার কোচের দায়িত্বটা বাবা খুব যত্ন করেই পালন করেছেন। 

নিশির শিক্ষাজীবন শুরু হয় পাবনার ওয়াইডব্লিউসিএ স্কুলে। বলতে কি, সেখানেই হয় তার খেলোয়াড় জীবনের হাতেখড়ি। এরপর বাবার চাকরির সুবাদে চলে আসেন রংপুরে। পড়ালেখা করেন রংপুর সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় ও রংপুর সরকারি কলেজের বিজ্ঞান বিভাগে।

সব খেলায় পারদর্শী নিশি

খেলাধুলার প্রতি নিশির আগ্রহ শুরু হয় সেই শিশু শ্রেণী থেকেই। স্কুলে পড়াকালীন স্কুল কিংবা জাতীয় পর্যায়ের যে কোনো ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় নিশির নাম ঘোষণা করতে করতে ঘোষকরাও ক্লান্ত হয়ে যেতেন। আর দর্শক ও উপস্থিত জনতার মুখে মুখে ঘুরতো নিশি নামটি। যেসব ক্রীড়া বিভাগে অংশ নিতেন কখনোই বিফল হতেন না নিশি। প্রতিটাতেই প্রথম, দ্বিতীয় কিংবা তৃতীয় স্থানের মাঝেই থাকতেন।

২০০৫ ও ২০০৬ সালে ব্যাডমিন্টনে আন্তঃস্কুল ও মাদরাসার শীতকালীন বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় রংপুর জেলার চ্যাম্পিয়ন তিনি। ২০০৭ সালে গোলক নিক্ষেপে তৃতীয় হয়েছিলেন। এ ছাড়া আন্তঃস্কুল প্রতিযোগিতায় ২০০৫ থেকে ২০০৮ পর্যন্ত পরপর চারবারের চ্যাম্পিয়ন তিনি। এরপর কলেজে দুই বছর পড়ার সময় ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় সরাসরি অংশগ্রহণ করার সুযোগ হয়নি। তবে যখনই সুযোগ পেতেন খেলতে নেমে যেতেন। বাসায় মা বোনদের সাথে নিয়মিতই চলতো লুডো, দাবা কিংবা ক্যারম খেলা।

সুযোগ পেলেই খেলতে নেমে যেতেন

 ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির পর পুরোদমে শুরু করেন খেলাধুলা। অংশ নেন বিভিন্ন প্রতিযোগিতায়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তঃহল ব্যাডমিন্টন প্রতিযোগিতা ২০১৩ (একক), ২০১৪ (যুগলে) ও ২০১৫ সালে একটানা  চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন নিশি। অর্জন করেছেন বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হলের ২০১৩ থেকে ২০১৫ সালের অন্তঃহল ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় তিনবারের চ্যাম্পিয়ন হবার গৌরব। আন্তবিশ্ববিদ্যালয় ক্যারাম প্রতিযোগিতায় ২০১২ ও ২০১৪ সালে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার বড় অর্জনও করেন।

তবে শুধু খেলাধুলাতেই নয়। পড়াশোনাতেও চ্যাম্পিয়ন তানজিনা তানিন নিশি। স্কুল-কলেজে সর্বোচ্চ রেজাল্ট করার পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়েও ছিলেন প্রথম সারিতে। বর্তমানে নিশি পরবর্তী জীবনের জন্য নিজেকে প্রস্তুত করছেন। নিচ্ছেন চাকরির প্রস্তুতি। তবে তার ইচ্ছা ভবিষ্যতে খেলাধুলা নিয়েই থাকবেন।

নিশির সখ কিংবা নেশা সবকিছুই খেলা ঘিরে। খেলাধুলার বাস্তব জ্ঞান ও সাংবাদিকতা নিয়ে পড়াশোনা- দুটোই খুব ভালোভাবে আছে তার। তাই তার সখ ছিল ভবিষ্যতে ক্রীড়া সাংবাদিক হবেন। তবে পেশাগতভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকতা করতে চান।

গোনিউজ২৪/এন/পিআর

ওমেন`স কর্নার বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত