২ ভাদ্র ১৪২৪, বৃহস্পতিবার ১৭ আগস্ট ২০১৭ , ৭:৩৯ পূর্বাহ্ণ

কে খুলল বিটিআরসির বন্ধ পর্নোসাইটগুলো?


গো নিউজ২৪ | গো নিউজ ডেস্ক আপডেট: ০২ মার্চ ২০১৭ বৃহস্পতিবার
কে খুলল বিটিআরসির বন্ধ পর্নোসাইটগুলো?

ডেস্ক: বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা (বিটিআরসি) মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তে সম্প্রতি পর্নোসাইটসহ ৫০০টি ওয়েবসাইট বন্ধ করেছিল। 

তবে সম্প্রতি আবারও সাইটগুলো চালু হয়েছে। কোনো ধরনের প্রক্সি সার্ভার ছাড়া অবাধেই লগইন করা যাচ্ছে সাইটগুলো।
 
২০১৬ সালের ২৮ নভেম্বর ইন্টারনেটে পার্নোগ্রাফিসহ আপত্তিকর কনটেন্ট প্রকাশ ও সামাজিক অবক্ষয়ের জন্য দায়ী প্রায় ৫০০ ওয়েবসাইট বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয় ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়।  এ সিদ্ধান্তে শতভাগ সম্মতি ছিল প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিমেরও। এরই পরিপ্রেক্ষিতে একটি কমিটি গঠন করে পর্নো এবং বেট থ্রি সিক্সটি ফাইভের মতো অনলাইনে বাজি ধরা ও জুয়ার ৫০০ ওয়েবসাইট বন্ধ করেছিল বিটিআরসি।  তবে এগুলো এখন অবাধেই অ্যাক্সেস করা যাচ্ছে।
 
কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পর্নো সাইট বন্ধে মুঠোফোন অপারেটর, ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান (আইএসটি), ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়েসহ (আইআইজি) বন্ধের কার্যক্রম পরিচালনাকারী সংশ্লিষ্ট সব পক্ষকে একটি তালিকা পাঠানো হয়েছিল।  কাজও হয়েছিল দুই মাস। কিন্তু এখন আবারো আগের দশা।  সর্বশেষ ডিসেম্বরে বন্ধ করে দেয়া হয় ১২টি বেটিং ওয়েবসাইট।  তবে এর মধ্যে ১১টি এখন অ্যাক্সেস করা যাচ্ছে।
 
দেখা গেছে, বন্ধ পর্নো সাইটগুলোর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষস্থানীয় কয়েকটি ওপেন হচ্ছে।  ওয়েবসাইটের ট্রাফিক সম্পর্কে ধারণা দেয়ার নির্ভরযোগ্য প্রতিষ্ঠান অ্যালেক্সাতে বাংলাদেশে ওয়েবসাইটগুলোর র‌্যাংকিং অনেক কমে এসেছে।  অর্থাৎ ওয়েবসাইটগুলোতে বাংলাদেশ থেকে হিট পড়ছে বলেই জানায় অ্যালেক্সা।
 
ওয়েবসাইটগুলো বন্ধের আগে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেছিলেন, “ইন্টারনেটে পর্নোগ্রাফি ও আপত্তিকর কনটেন্টের সহজলভ্যতা অপ্রাপ্তবয়স্কসহ সব নাগরিকের ওপর সামাজিকভাবে বিরূপ প্রভাব সৃষ্টি করছে।  তাই বন্ধ করা হচ্ছে।  তবে প্রশ্ন হচ্ছে দুই মাসের মধ্যেই কীভাবে খুললো সাইটগুলো?” 

বিটিআরসির হিসাব অনুযায়ী, ২০১৬ সালের অক্টোবর পর্যন্ত দেশে মোট ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ছিল ৬ কোটি ৬৯ লাখ। তবে রাজধানীর  স্কুলগামী শিশুদের প্রায় ৭৭ শতাংশ পর্নোগ্রাফিতে আসক্ত বলে এক গবেষণায় জানিয়েছে বেসরকারি সংস্থা মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন।  
 
জানতে চাইলে বিটিআরসির চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ বলেন, বন্ধ সাইটগুলো ওপেন হচ্ছে কিনা জানি না। তবে বন্ধের আগে আমরা জানিয়েছিলাম এগুলো স্থায়ীভাবে বন্ধ হয়নি।  হতে পারে বন্ধ সাইটগুলো অন্য নামে, অন্য প্রযুক্তি বা কৌশল ব্যবহার করেছে বলেই আবারও দেখা যাচ্ছে। 
 
গোনিউজ২৪/এম