১ পৌষ ১৪২৪, শনিবার ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭ , ৯:১৩ পূর্বাহ্ণ

কর্মী সংকট, তবুও সোচ্চার জবির বাম সংগঠনগুলো


গো নিউজ২৪ | নিজস্ব প্রতিবেদক আপডেট: ১১ অক্টোবর ২০১৭ বুধবার
কর্মী সংকট, তবুও সোচ্চার জবির বাম সংগঠনগুলো

জবি: শিক্ষার্থীদের অধিকার আদায়সহ বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রামে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) বাম রাজনৈতিক সংগঠনগুলো।  যদিও তাদের জনশক্তি খুবই কম।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে চারটি বাম সংগঠন আছে। এগুলো হল- ছাত্র ফেডারেশন, ছাত্র মৈত্রী, ছাত্র ইউনিয়ন ও সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট।  এই চারটির সমন্বয়ে গঠিত হয়েছে প্রগতিশীল ছাত্রজোট। ক্যাম্পাসে বাম সংগঠনগুলোর অধিকাংশ কর্মসূচি প্রগতিশীল ছাত্রজোটের ব্যানারেই অনুষ্ঠিত হতে দেখা যায়। ক্যাম্পাসে সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিয়ে হল আন্দোলন, ক্যান্টিনে খাবারের মান বৃদ্ধি, সন্ধ্যাকালীন কোর্স বন্ধ সহ গত এক দশকের মধ্যে সবচেয়ে বড় বড় আন্দোলন করেছে প্রগতিশীল ছাত্রজোট।

এছাড়া শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন দাবিসহ দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে ক্যাম্পাসে বাম সংগঠনগুলো আন্দোলন, প্রতিবাদ কর্মসূচি ঘোষণা করে।  তবে এসব কর্মসূচিতে হাতে গোনা কয়েকজন জনশক্তির উপস্থিতি থাকে বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

জবি ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি রুহুল আমিন বলনে, ‘সামগ্রকিভাবে আমি মনে করছি না ছাত্ররা মাঠে নামছে না বা কাজ করছে না। সমস্যা হচ্ছে দেশের রাজনৈতিক পরিবেশ ও শিক্ষার পরিবেশ যখন ঠিক না থাকে তখন ছাত্রদের মধ্যে কী করব, কী করব না এরকম একটি সংশয় তৈরি হয়। গণতান্ত্রিক পরিবেশ যদি একটি প্রতিষ্ঠানে নিশ্চিত থাকে তাহলে সেখানে ছাত্র সংগঠনগুলোও বাড়তে থাকে। গণতান্ত্রিক পরিবেশ যদি কোনো প্রতিষ্ঠানে বজায় না থাকে তাহলে দুয়েকটি হাতেগোনা সংগঠন যারা ক্ষমতার কাছাকাছি থাকে তারা বাড়তে থাকবে।’

এদিকে সংগঠনগুলো মনে করছে জনশক্তি কম থাকার কারণে তাদের বিভিন্ন দাবিগুলোতে প্রশাসন সাড়া দিচ্ছে না। জবি সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের সভাপতি মেহেরাব আজাদ বলনে, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে যদি কখনো সাধারণ শিক্ষার্থীদের স্বার্থ কেন্দ্রীক কোনো আঘাত হানে সেই অবস্থায় বাম সংগঠনগুলো মূলত সামনে এগিয়ে আসে। কিন্তু বর্তমানে বাংলাদেশের রাজনীতিতে যে অবস্থার বিরাজ করছে সেখানে সবকিছু হয়ে গেছে ক্ষমতা ও স্বার্থকেন্দ্রীক। ছাত্র সংসদ না থাকায় বামপন্থী রাজনীতিতে এক ধরনের দুর্দশা বিরাজ করছে। এছাড়াও সাধারণ শিক্ষার্থীদের সচেতনতার অভাব রয়েছে।’

গোনিউজ২৪/এমবি