১০ শ্রাবণ ১৪২৪, মঙ্গলবার ২৫ জুলাই ২০১৭ , ৮:৪৪ পূর্বাহ্ণ

কখন এবং কেন খতনা করা প্রয়োজন?


গো নিউজ২৪ | অনলাইন ডেস্ক আপডেট: ০৮ জুলাই ২০১৭ শনিবার
কখন এবং কেন খতনা করা প্রয়োজন?

খতনা বা মুসলমানি নিয়ে বিভিন্ন জন বিভিন্ন মত দেন। তবে কখন এটি করা প্রয়োজন? এ বিষয়ে এনটিভির নিয়মিত আয়োজন স্বাস্থ্য প্রতিদিন অনুষ্ঠানের ২৭৮৫তম পর্বে কথা বলেছেন ডা. মো. নজরুল ইসলাম আকাশ। বর্তমানে তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিশু সার্জারি বিভাগের পরামর্শক হিসেবে কর্মরত।

প্রশ্ন : ছেলে শিশুর সারকামসসেশন বা মুসলমানদের বেলায় মুসলমানি করার কথা বলে থাকেন, এর কারণ কী?

উত্তর : শিশুর ইউরোলজিক্যাল বিভিন্ন সমস্যায় অনেকে ভাবেন যে সারকামসসেশন বা মুসলমানি করিয়ে দিলেই ভালো হয়ে যাবে। আসলে সব  সময় এটি সঠিক নয়। কখনো কখনো এটি সঠিক। কোন কোন ক্ষেত্রে ? দেখা যায় প্রস্রাবের রাস্তার মুখটা প্রদাহ হয়ে বন্ধ হয়ে গেল, তখন সে প্রস্রাব করতে পারে না। প্রস্রাব করার সময় সামনের রাস্তাটা ফুলে যায়। সামনের চামড়াটা ফুলে যায়। সেই ক্ষেত্রে মুসলমানি প্রয়োজন, সেটি নয়। 

সে ক্ষেত্রে আমরা অনেক সময় বলতে শুনি বাচ্চাকে মুসলমানি করিয়ে দেন। মুসলমানি করিয়ে দিলে সবসময় এই সমস্যার সমাধান হবে না। প্রস্রাবের এই সমস্যা হওয়ার অন্য কোনো কারণ রয়েছে। শুধু ফাইমোসিস অথবা কখনো যদি কোনো কিছু লাগে, চুলকায়- এসব থেকে এ রকম হতে পারে বা ইউটিআই যদি হয়, ইউরিনারি ট্রাক্ট ইনফেকশনের সময়, বাচ্চা প্রস্রাব ফোঁটা ফোঁটা করে। অথবা কান্নাকাটি করে। সেই ক্ষেত্রে মুসলমানি করার দরকার হয় না। মুসলমানি করার জন্য একটি নির্দিষ্ট বয়স আছে।

সাধারণত আমরা যারা মুসলমান, তাদের থেকেই এটি এসেছে। জিউসরাও করে। তবে অন্য অনেক ধর্মের লোকেরা এই  খতনাটা করে না।

যেহেতু আমাদের মুসলিম দেশ, এটি আমরা কখন করব? কেউ বলে জন্মের সঙ্গে সঙ্গে করবে, কেউ বলে ছয় মাস বয়সে করবে, কেউ বলে বাচ্চা বড় হোক, আট/১০ বছরে করব। আসলে এর এ্কটি আদর্শ সময় রয়েছে। প্রস্রাবের রাস্তার মাথার যে অতিরিক্ত চামড়া, এটি ফেলে দেওয়ার অনেক যুক্তি রয়েছে। সাধারণত বাচ্চা একটি ছেলেকে সাত/ আট বছর বয়সে নামাজ পড়ার জন্য বলা হয়। 

পাক পবিত্র হওয়ার সুবিধার জন্য সামনের চামড়াটা আমরা ফেলে দিতে বলি। সেই ক্ষেত্রে আমরা যেহেতু আরেকটু আধুনিক, আমরা চাই স্কুলে ভর্তি হওয়ার আগেই, আমরা এই সারকামসসেশনটা করে ফেলতে চাই, যাতে পরে তাঁর স্কুল কামাই না হয়। এই জন্য আমরা প্রি-স্কুল বয়সে এটি করতে বলি। 

তবে দুই বছরের আগে করার দরকার হয় না। যদি আমরা জোর করে করি তখন সেখানে আঘাত পায়। সেটা থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য দুই বছর বয়সের পরে বা স্কুলে যাওয়ার আগে এই কাজটি করার সঠিক সময় মনে করি।


গো নিউজ২৪/এএইচ

ইসলাম বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত