১ পৌষ ১৪২৪, শনিবার ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭ , ১:৪৪ পূর্বাহ্ণ

এরশাদের ভাতিজা আসিফ একি বললেন!


গো নিউজ২৪ | ফরহাদুজ্জামান ফারুক, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, রংপুর আপডেট: ০৫ ডিসেম্বর ২০১৭ মঙ্গলবার
এরশাদের ভাতিজা আসিফ একি বললেন!

রংপুর: দলীয় চেয়ারম্যানের নির্দেশ অমান্য উল্টো চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে অংশ নেয়ার পরও জাতীয় পার্টি থেকে বহিষ্কারাদেশ বার্তা না পাওয়ায় বিস্ময় প্রকাশ করেছেন এরশাদের ভাতিজা হোসেন মকবুল শাহরিয়ার আসিফ। দল বহিষ্কার না করলে নিজেই দল থেকে পদত্যাগ করবেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী হিসেবে হাতি প্রতীক নিয়ে সোমবার সন্ধ্যায় অনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরুর সময় গোনিউজ২৪ডটকমকে একথা জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির যুগ্ম মহাসচিব হোসেন মকবুল শাহরিয়ার আসিফ।

সাবেক এই সংসদ সদস্য বলেন, আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছি। আমাকে কেন এখনও দল থেকে বহিস্কার করা হচ্ছে না বিষয়টি আমার বোধগম্য নয়। আমাকে যদি ওনারা বহিস্কার করেন, তাহলে আমার জন্য ভালো। তা না হলে আমাকেই পদত্যাগ করতে হবে। 

আসিফ বলেন, প্রতীক বরাদ্দের দিন জাতীয় পার্টি ও আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা ব্যাপক লোকজন নিয়ে এসেছিলেন। এটা তারা করতেই পারেন। আমি স্বতন্ত্র প্রাথী হিসেবে খুব সাবধান আছি। তবে আমি ইচ্ছা করলে ওনাদের চেয়েও বড় শোডাউন করতে পারতাম। 

বিএনপির সেনাবাহিনী মোতায়েনের দাবি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমি বিএনপি প্রার্থীর মতো সেনাবাহিনী মোতায়েনের দাবি জানাচ্ছি না। তবে তাদের আশংকার সাথে আংশিকভাবে আমিও একমত পোষণ করি। 

এসময় এরশাদের ছোট ভাইয়ের ছেলে আসিফ বলেন, রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সারা বিশে^র চোখ থাকায় আমি মনে করি নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে। আর ফলাফলই বলে দেবে রংপুরের মানুষ কাকে চায়।  

প্রসঙ্গত: রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ৩৩টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২১১ জন এবং ১১টি সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৬৫ জন নারী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। 

আগামী ২১ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টির প্রার্থীসহ মোট ৭ জন মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।  

বর্তমানে এ সিটি কর্পোরেশনে ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৯৩ হাজার ৯৯৪। এর মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৯৬ হাজার ৩৫৬ ও মহিলা ১ লাখ ৯৭ হাজার ৬৩৮ জন।

এরআগে ২০১২ সালের ২০ ডিসেম্বর নবগঠিত রংপুর সিটিতে প্রথমবারের মতো নির্দলীয় ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টু প্রথম মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন জাতীয় পার্টির মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা। 

গো নিউজ২৪/এবি