৫ শ্রাবণ ১৪২৪, বৃহস্পতিবার ২০ জুলাই ২০১৭ , ১০:৪৬ অপরাহ্ণ

এফবিসিসিআইকে আরও গতিশীল করার সুযোগ পেলেন মুনতাকিম আশরাফ


গো নিউজ২৪ | স্টাফ করেসপন্ডেন্ট আপডেট: ১৫ মে ২০১৭ সোমবার
এফবিসিসিআইকে আরও গতিশীল করার সুযোগ পেলেন মুনতাকিম আশরাফ

ব্যবসায়ীদের স্বার্থ আদায়ে তাদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইকে আরও গতিশীল ও উন্নত করার সুযোগ পেলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও তরুণ উদ্যোক্তা মুনতাকিম আশরাফ। গতকালের এফবিসিসিআই নির্বাচনে এক হাজার ১০৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও তরুণ এ উদ্যোক্তা। তার ভোট নম্বর ছিল ৩৫৯।

বাংলাদেশ কোল্ড স্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের মুনতাকিম আশরাফ ব্যবসায়ীদের স্বার্থ রক্ষার জন্য যেকোনো পদক্ষেপকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়ে তা বাস্তবায়নে নিজের সবটুকু বিলিয়ে দেন তিনি। ব্যবসায়ীদের উন্নয়ন ছাড়াও তরুণ এ উদ্যোক্তা নিজের এলাকার উন্নয়নে এগিয়ে এসেছেন। নিজ এলাকা কুমিল্লা চান্দিনার রাস্তা-ঘাট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে তার অবদান অনস্বিকার্য। এলাকার সুবিধা বঞ্চিত মানুষের পাশে তাকে অধিকাংশ সময়ই দেখা যায়।

সুযোগ্য রাজনৈতিক পরিবারে জন্ম নেয়া তরুণ এ ব্যাসায়ী বলেন, ব্যবসায়ীদের স্বার্থ রক্ষায় এফবিসিসিআইকে আরো গতিশীল করে একটি শিল্প বিপ্লব ঘটানোই আমার স্বপ্ন। তরুণ এ ব্যবসায়ী জাতীয় সংসদের সাবেক ডেপুটি স্পিকার কুমিল্লা-৭ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক মো. আলী আশরাফের ছেলে। নিজের যোগ্যতা দিয়েই ব্যবসায়ীদের উন্নয়ন করতে তিনি এবারের নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছেন।

সবার কাছে দোয়া চেয়ে তারুণ্যের অহংকার এ উদ্যোক্তা বলেন, ব্যবসায়ীদের উন্নয়নের জন্য নির্বাচনে এসেছি, ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠনকে ব্যবসায়ীদের স্বার্থ আদায়ে আরও গতিশীল করতে চাই। তাকে নির্বাচিত করায় সকল ভোটারকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। 

উল্লেখ্য, এফবিসিসিআইয়ের এক হাজার ৯০৫ জন ভোটারের মধ্যে নির্বাচনে ভোট দেওয়ার যোগ্য ছিলেন এক হাজার ৮৯৮ জন। এর মধ্যে এক হাজার ৬৬৯ জন ভোটার ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। ভোট গণনা শেষে গতকাল রাত ১১টার পর ফল ঘোষণা করেন নির্বাচন বোর্ডের চেয়ারম্যান সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ মো. আলী আশরাফ।

নির্বাচনে সর্বোচ্চ এক হাজার ২০৬টি ভোট পেয়েছেন খন্দকার রুহুল আমিন। দ্বিতীয় স্থানে থাকা আবু মোতালেব পেয়েছেন এক হাজার ১৯৫ ভোট। তৃতীয় স্থানে থাকা নাজিম উদ্দিন পেয়েছেন এক হাজার ১৪৫ ভোট। এক হাজার ১৪১ ভোট পেয়ে চতুর্থ স্থান অধিকার করেছেন শফিকুল ইসলাম ভরসা। পঞ্চম স্থানে থাকা মুনতাকিম আশরাফ পেয়েছেন এক হাজার ১০৫ ভোট। আর এক হাজার ৭৭ ভোট পেয়ে ষষ্ঠ স্থান দখল করেছেন শমী কায়সার।

এ ছাড়া নির্বাচিতদের মধ্যে রয়েছেন—রাশেদুল হোসাইন চৌধুরী রনি (১০৫২), হাবিব উল্লা ডন (১০৩৪), সাফকাত হায়দার (১০১৭), ড. কাজী এরতেজা হাসান (১০০১), হেলেনা জাহাঙ্গীর (৯৮৪), আমজাদ হোসাইন (৯৭৭), নিজামুদ্দিন রাজেশ (৯৭৬), হাফেজ হারুন (৯৭৪), এস এম জাহাঙ্গীর হোসাইন (৯৬৫), আবুল আয়েছ খান (৯৬২), আবু নাছের (৯২৮) এবং খন্দকার মঈনুর রহমান জুয়েল (৯২৩)।

এদের মধ্যে ন্যাশনাল অ্যাসোসিয়েশন অব স্মল অ্যান্ড কটেজ ইন্ডাস্ট্রিজ অব বাংলাদেশের (নাসিব) হেলেনা জাহাঙ্গীর এবং ল্যান্ড ডেভেলপারস অ্যাসোসিয়েশনের ড. কাজী এরতেজা হাসান ব্যবসায়ী ঐক্য ফোরামের ব্যানারে নির্বাচন করে জয়লাভ করেন।

চেম্বার  গ্রুপ  থেকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিতরা : বাগেরহাট চেম্বারের হাসিনা নেওয়াজ, বরিশাল চেম্বারের মো. নিজাম উদ্দিন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া চেম্বারের আজিজুল হক, চুয়াডাঙ্গা চেম্বারের দীলিপ কুমার আগারওয়ালা, কুমিল্লা চেম্বারের মাসুদ পারভেজ খান ইমরান, ফেনী চেম্বারের এ কে এন শাহেদ রেজা, গাজীপুর চেম্বারের মো. আনোয়ার শাদাত সরকার, গোপালগঞ্জ চেম্বারের শেখ ফজলে ফাহিম, জামালপুর চেম্বারের মো. রেজাউল করিম রঞ্জু, কিশোরগঞ্জ চেম্বারের গাজী গোলাম আশরিয়া, লালমনিরহাট চেম্বারের শেখ আবদুল হামিদ, মানিকগঞ্জ চেম্বারের তাবারুকুল তোদাদ্দেক হোসেন খান টিটু, মুন্সীগঞ্জ চেম্বারের মো. কহিনূর ইসলাম, নরসিংদী চেম্বারের প্রবীর কুমার সাহা, নোয়াখালী চেম্বারের আতাউর রহমান ভুঁইয়া, রাঙামাটি চেম্বারের মো. বজলুল রহমান, সুনামগঞ্জ চেম্বারের খায়রুল হুদা চপল টাংগাইল চেম্বারের আবুল কাশেম আহমেদ।

আগামী ১৬ মে পরিচালকদের ভোটে এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি, প্রথম সহসভাপতি ও সহসভাপতি নির্বাচিত হবেন। ১৭ মে পরিচালক পদের বিপরীতে আপিল করা যাবে। আর ২০ মে ঘোষণা করা হবে চূড়ান্ত ফলাফল।


গো নিউজ২৪/এএইচ/ এস বি