৬ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, সোমবার ২০ নভেম্বর ২০১৭ , ৩:৪৪ অপরাহ্ণ

এই একটি রেকর্ডে গেইলের থেকে এগিয়ে ইউসুফ পাঠান


গো নিউজ২৪ আপডেট: ২০ এপ্রিল ২০১৭ বৃহস্পতিবার
এই একটি রেকর্ডে গেইলের থেকে এগিয়ে ইউসুফ পাঠান

রেকর্ড ছুটে ক্রিস গেইলের পিছনে। তিনি ছোটেন না রেকর্ডের পিছনে। কিন্তু একটা রেকর্ড এখনও ‘ক্যারিবিয়ান দৈত্য’র ধরাছোঁয়ার বাইরে। সেই রেকর্ডের মালিক আবার ইউসুফ পাঠান। 

জমে উঠেছে আইপিএলের দশম সংস্করণ। জ্বলে উঠেছেন গেইল। গুজরাট লায়ন্স-এর বিরুদ্ধে ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ওপেনার ৩৮ বলে ৭৭ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলেছেন। তার পরেই ‘ধন্য ধন্য’ করছেন আরসিবি অধিনায়ক বিরাট কোহলি।

চলতি আইপিএলে গেইলের ব্যাট থেকে এখনও সেঞ্চুরি আসেনি। যদিও পরিসংখ্যান বলছে, আইপিএলেই পাঁচ-পাঁচটি শতরান করে বসে রয়েছেন গেইল। একাধিক সেঞ্চুরি হাঁকালেও আকাশচুম্বী স্ট্রাইক রেট কিন্তু পাঠানেরই ঝুলিতে। পাঠানের এই রেকর্ড এখনও অধরা থেকে গিয়েছে গেইলের কাছে। ১৩ মার্চ ২০১০-এ মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে ৩৭ বলে ১০০ রানের ইনিংস খেলেছিলেন পাঠান। হাঁকিয়েছিলেন ৯টি বাউন্ডারি ও ৮টি বিশাল ছক্কা। সেদিন পাঠানের স্ট্রাইক রেট ছিল ২৭০.২৭। পাঠান অবশ্য তখন রাজস্থান রয়্যালসের ক্রিকেটার।

এই স্ট্রাইক রেট এখনও পর্যন্ত নেই গেইলেরও। স্ট্রাইক রেটের নিরিখে বিচার করলে ক্যারিবিয়ান ওপেনার রয়েছেন তিন নম্বরে। পাঠান একনম্বরে। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার ডেভিড মিলার। তিনি ৬ মে, ২০১৩ সালে ৩৮ বলে ১০১ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেছিলেন। কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের মিলার সেদিন রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুর বিরুদ্ধে ৮টি চার ও ৭টি ছক্কায় সাজিয়েছিলেন নিজের ইনিংস। মিলারের স্ট্রাইক রেট ছিল ২৬৫.৭৮।

তৃতীয় স্থানে গেইল। ২০১৩-এর ২৩ এপ্রিল পুণে ওয়ারিয়র্সের বিরুদ্ধে গেইল ৬৬ বলে ১৭৫ (অপরাজিত) রানের ইনিংস খেলেছিলেন। গেইলের স্ট্রাইক রেট ছিল ২৬৫.১৫। ১৩টি বাউন্ডারি ও ১৭টি ছক্কা সেই ম্যাচে মেরেছিলেন গেইল।

পাঠান অবশ্য এখন কলকাতা নাইটরাইডার্সের প্রাণভোমরা। দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের বিরুদ্ধে পাঠানের মারমুখী ইনিংসে জিতেছে কেকেআর। পাঠানের কাছ থেকে আগামীদিনে আরও কয়েকটা ঝোড়ো ইনিংস হয়তো দেখবেন দর্শকরা। গেইলও ব্যাটে ঝড় তুলবেন। চলতি আইপিএলেই হয়তো পাঠানের স্ট্রাইক রেট ছাপিয়ে যাবেন গেইল। ‘ক্যারিবিয়ান দৈত্য’কে যে বিশ্বাস নেই! 

গো নিউজ২৪/এএফ