৯ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, শুক্রবার ২৪ নভেম্বর ২০১৭ , ১১:৫২ পূর্বাহ্ণ

ঋত্বিক সম্মাননা পদক নিলেন ব্রাত্য-জয়া


গো নিউজ২৪ | স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, রাজশাহী আপডেট: ০৭ নভেম্বর ২০১৭ মঙ্গলবার
ঋত্বিক সম্মাননা পদক নিলেন ব্রাত্য-জয়া

প্রখ্যাত চলচ্চিত্রকার ঋত্বিক ঘটকের নামে প্রবর্তিত ‘ঋত্বিক ঘটক সম্মাননা পদক-২০১৭’ গ্রহণ করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মন্ত্রী ও প্রখ্যাত অভিনেতা ব্রাত্য বসু এবং বাংলাদেশের জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান। সিনেমা ও থিয়েটারের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদানের জন্য ২০০৯ সাল থেকে এই পদক দিয়ে আসছে ঋত্বিক ঘটক ফিল্ম সোসাইটি।

ঋত্বিক ঘটকের ৯২তম জন্মদিন উপলক্ষে রাজশাহীতে আয়োজিত ঋত্বিক সম্মাননা পদক ও চলচ্চিত্র উৎসবের সমাপনি অনুষ্ঠানে ব্রাত্য বসু ও জয়া আহসানের হাতে সম্মাননা পদক তুলে দেয়া হয়। ঋত্বিক ঘটকের পৈত্রিক নিবাস এখনকার রাজশাহী হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ মিলনায়তনে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

পদক গ্রহণ করে অভিনেতা ব্রাত্য বসু বলেন, ‘জীবনে প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তিনি এমন পদক পেলাম। আয়োজকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানানোর ভাষা নেই। আমি খালি বলতে পারি- এই ধরনের পুরস্কার আমাকে সামনের দিনে আমার যে অবসাদ, আমার যে বিষণœতা এবং আমার যে উৎসাহ- এ সব মিলিয়ে আমাকে এমন কোনো রসায়নে পৌঁছে দেবে, যার জন্য আমি আরও একদিন, আরও একবার, আরও এক মুহুর্তের জন্য আরও একটি কাজ করার উৎসাহ পাব।’

অভিনেত্রী জয়া আহসান বলেন, রাজশাহী আমার কাছে পূণ্যভূমি। যার দুটি কারণ। একটি হলো ঋত্বিক ঘটক এবং অপরটি কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক। ঢাকার বাইরে এমন আয়োজন চমৎকার। ঋত্বিক ঘটকের নামে প্রবর্তিত এ পদক আমার কাছে সর্বশ্রেষ্ঠ। দেশ-বিদেশে পুরস্কার হয়তো অনেক পেয়েছি, কিন্তু এটার ওপরে আর কিছুই নেই।’

ঋত্বিক সম্মাননা পদকের জন্য এবার ব্রাত্য বসু ও জয়া আহসান ছাড়াও গুণী অভিনেতা আসাদুজ্জামান নূর, ভারতের চলচ্চিত্র নির্মাতা ভিকে জোসেফ, রাজশাহীর কবি রুহুল আমিন প্রামানিক এবং লেখক অধ্যাপক ফজলুল হককে মনোনীত করা হয়। অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে গত শনিবার ভিকে জোসেফ, রুহুল আমিন প্রামানিক ও অধ্যাপক ফজলুল হকের হাতে পদক তুলে দেয়া হয়।

সমাপনি অনুষ্ঠানে সংষ্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরের পক্ষে পদক গ্রহণ করেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর সাইদুর রহমান খান। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপমহাদেশের প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক। তিনি বলেন, ‘আমরা যাদের পদক প্রদান করতে পারলাম, এটা আমাদের সৌভাগ্য। আর এখানে যারা এসেছেন, এটা তাদের আমাদের প্রতি ভালোবাসা।’

সভাপতিত্ব করেন অনুষ্ঠানের আয়োজনকারী সংগঠন ঋত্বিক ঘটক ফিল্ম সোসাইটির সভাপতি ডা. এফএমএ জাহিদ। রাজশাহীতে নিযুক্ত ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনার অভিজিৎ চট্টোপাধ্যায়, ফেডারেশন অব ফিল্ম সোসাইটিজের কাউন্সিল সদস্য প্রেমেন্দু মজুমদার ও ভাষা সৈনিক আবুল হোসেন অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে ‘ঋত্বিক কুমার ঘটক: এক বিরলপ্রজ প্রতিভার নাম’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হয়। গত শনিবার ছিল কালজয়ী চলচ্চিত্র নিমার্তা ঋত্বিক ঘটকের জন্মদিন। সেদিন থেকেই শুরু হয়েছিল সম্মাননা পদক ও চলচ্চিত্র উৎসব। এবার উৎসবে রাজশাহী মাহনগরীর পদ্মা পাড়ের লালন মে  ৮টি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

ঋত্বিকের পুরো নাম ঋত্বিক কুমার ঘটক। তিনি ১৯২৫ সালের ৪ নভেম্বর ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭৬ সালের ৬ ফেব্রæয়ারি মারা যান কলকাতায়। তার জীবনের একটা বড় অংশ কেটেছে রাজশাহীতে। তিনি চতুর্থ ও প ম শ্রেণির পাঠ শেষ করেন রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুল থেকে। ১৯৪৬ সালে আইএ পরীক্ষা দেন রাজশাহী কলেজ থেকে। ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের পরপরই পরিবারের সঙ্গে চলে যান ভারতে। তার নির্মিত চলচ্চিত্রগুলো এখনও দর্শকদের বিমোহিত করে।

গুণী চলচ্চিত্র নির্মাতা হিসেবে আজও স্মরণীয় তিনি। তার সিনেমাগুলো বহুল প্রশংসিত।  তার নির্মিত সিনেমাগুলোর মধ্যে রয়েছে  ‘নাগরিক’, ‘অযান্ত্রিক’, ‘বাড়ি থেকে পালিয়ে’, ‘মেঘে ঢাকা তারা’, ‘কোমল গান্ধার’, ‘সুবর্ণরেখা’, ‘তিতাস একটি নদীর নাম’ ‘যুক্তি তক্কো আর গপ্পো’।

গোনিউজ২৪/কেআর

শিল্প-সাহিত্য ও সংষ্কৃতি বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত