৯ ভাদ্র ১৪২৪, বৃহস্পতিবার ২৪ আগস্ট ২০১৭ , ৭:১০ পূর্বাহ্ণ

ঋতুবতী মেয়েদের ঘরের বাইরে রাখা শাস্তিযোগ্য অপরাধ


গো নিউজ২৪ | আন্তর্জাতিক ডেস্ক আপডেট: ১১ আগস্ট ২০১৭ শুক্রবার
ঋতুবতী মেয়েদের ঘরের বাইরে রাখা শাস্তিযোগ্য অপরাধ

ঋতুবতী মেয়েদের ঋতুকালীন ঘরের বাইরে রাখার নিয়ম বাতিল এবং এ ধরনের কাজকে শাস্তিযোগ্য অপরাধ বিবেচনা করে একটি আইন পাস করেছে নেপালের পার্লামেন্ট। ‘চৌপদী’ নামের প্রাচীন এই হিন্দু রীতিটি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই দেশটিতে বিতর্ক চলছিল।

নারীদের অধিকতর নিরাপত্তার স্বার্থে নেপালের অ্যাসিড নিক্ষেপ শাস্তি আইন এবং যৌতুকবিরোধী আইনও আরো কঠোর করা হয়েছে। চৌপদী প্রথা রদে ওই আইনটি ২০১৮ সালের আগস্ট মাস থেকে কার্যকর হবে। আইন লঙ্ঘন করলে তিনমাস পর্যন্ত জেল কিংবা ৩ হাজার রুপি জরিমানা হতে পারে।

নেপালের দীর্ঘদিনের ওই প্রথা অনুসারে, বাড়ির মেয়ে ঋতুবতী হলেই ঘর থেকে দূরে তাকে পাঠিয়ে দেয়া হতো গোয়ালঘর বা এরকম নোংরা কোনো জায়গায়। ঋতুবতী হওয়া মানেই মেয়ে অপবিত্র হয়ে গেছে বলে ধারণা তাদের। সমাজ যতই এগিয়ে চলুক, এ নিয়মের ব্যতিক্রম ছিল না এতদিন।

এমনিতেই ঋতুকাল মানেই নারীদের জন্য কষ্টকর একটি সময়। সেই অবস্থায়ই প্রাচীন এই হিন্দু প্রথা মেনে তাকে ‘নির্বাসনে’ দেয়া হতো অস্বাস্থ্যকর আর অনিরাপদ স্থানে। ধর্মীয় সম্পৃক্ততা থাকায় এ নিয়মের কোনো ব্যাত্যয় হতো না। এতদিন ধরে তাই-ই সহ্য করেছে নেপালী নারীরা।

বিভিন্ন সময়ে দেখা যেতো, একাকী কুঁড়েঘরে বাস করার সময় তীব্র শীতে আক্রান্ত হয়ে অসুস্থ পড়তো মেয়েরা। কখনো কখনো হিংস্র জন্তুর আক্রমণেরও শিকার হতে হতো। কিছুদিন আগে নেপালে গোয়ালঘরে সাপের ছোবলে মৃত্যু হয়েছিল এমন এক কিশোরীর। এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হয় আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলোতে। এরপরই সরব হন মানবাধিকার কর্মীরা।

অবশ্য অনেক আগে থেকেই এর বিরুদ্ধে আন্দোলন করে আসছিলেন তারা।। কিন্তু যেহেতু সেরকম কোনও কঠোর আইন এতদিন ছিল না, তাই কোনো আন্দোলনেই লাভ হচ্ছিলো না। দেশের সর্বোচ্চ আদালত এ প্রথাকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে এর আগে রায় দেয়ার এক দশক পার হয়ে গেলেও এ অভ্যাস বন্ধ হয়নি। বরং দিনে দিনে তা বেড়েছে।

শেষ পর্যন্ত অবশ্য সুরাহা হল। বুধবার নেপালের সংসদে এই ‘চৌপদি’কে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। জানানো হয়েছে, ‘চৌপদি’র নামে কোনো নারীকে নির্বাসিত করে রাখা দণ্ডনীয় অপরাধ। দীর্ঘদিন এই বঞ্চনা ও অবিচার সহ্য করতে হয়েছে দেশটির নারীদের। ঋতুকাল নারীদের সন্তানধারণের উপযুক্ত করে তোলে, সমাজকে অবলুপ্তির হাত থেকে বাঁচায়। আর সেটাই ছিল অভিশাপ।

তবে শুধু নেপালই নয়, এই প্রথা বিশ্বের আরো কিছু সংস্কৃতিতে দেখা যায়। এর মধ্যে অন্যতম উল্লেখযোগ্য ভারত। ঋতুকালে দেশটিতে মেয়েদের অপবিত্র বিবেচনা করা হয়। তাদের সংসর্গ এড়িয়ে চলা হয়। বাড়ির বাইরে থাকতে হয় এসব মেয়েকে। এ নিয়ে ভারতে নেই কোনো আইনও। অবশ্য নেপাল নতুন করে আইন করার পর ভারত এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেবে কি না- সেটিই দেখার অপেক্ষায় দেশটির মানবাধিকার কর্মীরা।

গো নিউজ২৪/ আরএস