১ পৌষ ১৪২৪, শনিবার ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭ , ৫:২৬ পূর্বাহ্ণ

উই পোকা খেল ২ হাজার পরীক্ষার খাতা!


গো নিউজ২৪ | নিউজ ডেস্ক আপডেট: ১২ অক্টোবর ২০১৭ বৃহস্পতিবার
উই পোকা খেল ২ হাজার পরীক্ষার খাতা!

ভারতের বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএ প্রথম বর্ষ পরীক্ষার অন্তত দুই হাজার খাতার বান্ডিল উইপোকায় নষ্ট করেছে। এরমধ্যে ১৫০টি খাতার অস্তিত্ব মাটি হয়ে গেছে৷ বিশ্ববিদ্যালয়টির পরীক্ষা নিয়ামক বিভাগের চূড়ান্ত অবহেলা ও উদাসীনতার জেরে প্রশ্নের মুখে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন বিভিন্ন কলেজের স্নাতক-স্তরের প্রথম বর্ষের বহু পড়ুয়ার ভবিষৎ৷

বুধবার সন্ধ্যায় এই ঘটনা নজরে আসার পরই বিশ্ববিদ্যালয়জুড়ে তীব্র আলোড়ন ছড়িয়ে পড়ে৷ তবে গোটা বিষয়টিকে ধামা চাপা দেবার জন্য গঠিত হয়েছে একটি ইন্টারনাল কমিটিও৷ এমনকি এব্যাপারে বাইরে কোনও ঘটনা প্রকাশিত হলে তার দায়ভার সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির ঘাড়েই বর্তাবে বলে ভয়ও দেখানো হয়েছে বলে শোনা যাচ্ছে। যদিও, খোদ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক নিমাই সাহা জানান, এব্যাপারে তাঁর কিছু জানা নেই। এমনকি পরীক্ষা নিয়ামক দফতর সূত্রেও তাঁকে কিছু জানানো হয়নি৷

বিশ্ববিদ্যালয় জানা যায়, চলতি বছরের মে-জুন মাস নাগাদ স্নাতক স্তরের প্রথম বর্ষের পরীক্ষা হয়েছে। সেই পরীক্ষার ফলাফল এখনও প্রকাশিত হয়নি। নিয়মানুযায়ী এই ধরণের পরীক্ষার সমস্ত খাতাপত্রই এপি বিভাগে জমা থাকে। নিয়মমাফিক এই এপি বিভাগ তথা উত্তরপত্র ও প্রকাশনা বিভাগ (এ্যানসার সিট এণ্ড পাবলিকেশন ডিপার্টমেন্ট) সহ বেশ কিছু দফতরে বহিরাগত এজেন্সির মাধ্যমে প্রতি মাসে উইপোকা নিধনের জন্য স্প্রে করা হয়। কিন্তু গত তিন মাস সংশ্লিষ্ট সংস্থার টাকা বাকি থাকায় তারা আর স্প্রে করেনি। আর স্প্রের অভাবেই রীতিমত জাঁকিয়ে বসেছে উইয়ের সাম্রাজ্য।

জানা যায়, সবথেকে বেশি ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা কলা বিভাগের একটি বিষয়ের। ওই বিষয়ের বেশ কিছু খাতা একেবারেই নষ্ট হয়ে যাবার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। এদিকে, এই ঘটনা নজরে আসার পরই এসএফআইও সরব হয়েছে। এসএফআইয়ের রাজ্য কমিটির সদস্য বিনোদ ঘোষ জানিয়েছেন, এই ঘটনার কথা তারাও জেনেছেন।

তিনি জানান, বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তথা পরিচালন সমিতি এবং বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের উত্তরপত্র ও প্রকাশনা বিভাগের সম্পূর্ণ উদাসীনতার ফলেই এই ঘটনা ঘটেছে। তাদের ব্যর্থতার জেরেই আজ বহু পরীক্ষার্থীর ভবিষ্যৎ প্রশ্ন চিহ্নের সামনে এসে দাঁড়িয়েছে। কারণ এখনও গ্রাজুয়েটের পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়নি। স্বাভাবিকভাবেই ওই উত্তরপত্রের গুরুত্ব অসীম। এমতাবস্থায় কার অবহেলায় এই ঘটনা ঘটল তা তদন্ত করে দেখে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানাচ্ছে এসএফআই।

গো নিউজ২৪/এসআর