২ কার্তিক ১৪২৪, মঙ্গলবার ১৭ অক্টোবর ২০১৭ , ৯:১৮ অপরাহ্ণ

আমি মানসিকভাবে অসুস্থ, আমার চিকিৎসা দরকার: রুবি


গো নিউজ২৪ | বিনোদন প্রতিবেদক আপডেট: ১০ আগস্ট ২০১৭ বৃহস্পতিবার
আমি মানসিকভাবে অসুস্থ, আমার চিকিৎসা দরকার: রুবি

ঢাকা: গত ৭ আগস্ট সোমবার রাবেয়া সুলতানা রুবি নামের একজন নারী যুক্তরাষ্ট্র থেকে সোশাল সাইটে একটি ভিডিও বার্তা পাঠিয়ে কালজয়ী চিত্রনায়ক সালমান মৃত্যুরহস্যটি জাগিয়ে তুলেন। যিনি কিনা আবার সালমান হত্যাকাণ্ডের সন্দেহভাজন আসামিদের একজন। আর খুনীর এমন স্বীকারোক্তির পর একুশ বছর পরও সালমান শাহ্’র মৃত্যু রহস্যটি নিয়ে সরব হয় গোটা বাংলা। 

সালমান হত্যাকাণ্ডে আচমকা রুবির পাঠানো এই বক্তব্যকে কেন্দ্র করে ফের তদন্তে নামে পুলিশের ইনভেস্টিগেসন দল। কিন্তু মাঝখানে মাত্র একদিনের ব্যবধানেই সালমান হত্যাকাণ্ড নিয়ে যে বক্তব্য রুবি নামের নারীটি দিয়েছিলেন তা থেকে সরে আসেন। সালমান আত্মহত্যা করেনি, তাকে খুন করা হয়েছে বলে ভিডিও বার্তায় নারীটি প্রথমে বললেও এখন তিনি এসব অস্বীকার করছেন। এবং নিজেকে ভারসাম্যহীন বলেও একাধিক ভিডিও বার্তা পাঠাচ্ছেন।

সালমানকে খুন করা হয়েছে, এবং সেই খুনের সঙ্গে নিজের স্বামী, ভাই এবং সালমানের স্ত্রী সামিরা চৌধুরীর কথা উল্লেখ করে গত ৭ আগস্ট একটি ফেসবুক লাইভে এসে জানান দেন রাবেয়া সুলতানা রুবি। তার এমন ভিডিও পুরো বাংলাদেশে ভাইরাল হয়ে যায়। তার কথার সূত্র ধরে ইনভেস্টিগেশনে নামে পুলিশও। কিন্তু এমন ভিডিও বার্তার একদিনের ব্যবধানে ৯ আগস্ট সম্পূর্ণ বিপরীত কথা বলেন ওই নারী। 

নিজেকে ভারসাম্যহীন দাবী করে ওই নারী ৯ আগস্ট রাতে ফেসবুক লাইভে এসে বলেন, আমি রাবেয়া সুলতানা রুবি। আজকে আমি স্বীকার করছি, গত কয়েকদিন ধরে যে ভিডিওগুলো সালমান শাহকে নিয়ে আমি পোস্ট করে যাচ্ছি সেগুলো আমার মনগড়া কাহিনী ছিলো। নিউইয়র্কে একা একা বসে বসে আমি এগুলো কাহিনী বানিয়েছি। আমি মানসিকভাবে অসুস্থ, আমার চিকিৎসা দরকার। এবং চিকিৎসা নিচ্ছিও। আর এটা আমেরিকার মতো জায়গায় দোষের কিছু না। মানসিক ভারসাম্যহীনতা বা মেন্টাল আনস্ট্যাবেলিটি যে কারোরই থাকতে পারে। এটা দোষ বা লজ্জারও কিছু না। 

৭ আগস্টে দেয়া নিজের বক্তব্যকে অস্বীকার করে রবি আরো বলেন, সালমান শাহ্’র হত্যা বা আত্মহত্যার ব্যাপারে যা কিছু আমি বলেছি আমি সেগুলো জানি না। এগুলো ইনভেস্টিগেশন চলছে, সেটা তখন জানবে। এখন আমার মাথা ঠিক আছে বলে আমি ভালোভাবে বলছি। যেহেতু এনভেস্টিগেশন চলছে, তাই এসব নিয়ে আমি ভীত নই। 

এরপর তিনি বলেন, কেউ কেউ আমাকে ধমকি দিচ্ছে খুন করার। আমি সামিরার সাথে যে অন্যায় করেছি, তার প্রতিদান হিসেবে আমি এখন নিজেকে মানসিক রুগী হিসেবেই উপস্থাপন করছি। এতে আমার অন্যায় বা কোনোকিছু ফিল করছি না। সবাই যেনো জানে, সালমানকে নিয়ে আমি যা বলেছি তা সমস্ত কিছুই আমার মনগড়া। এখন আমি অসুধ খেয়ে কিছুটা সুস্থ আছি, এইজন্য আমার মাথাটা ঠিক আছি। একা থাকতে থাকতে আসলেই আমার মাথা খারাপ হয়ে গেছে। আর মাথা খারাপ হয়ে গেছিলো বলেই স্বামীর নামে এসব বলছি, মৃত ভাইয়ের নামে আত্মীয় স্বজনের নামে যা তা বলছি।

প্রথমে কেঁদেকেটে ফেসবুক লাইভে এসে বললেন সালমানকে খুন করা হয়েছে, তিনি সব জানেন। কিন্তু মাঝখানে মাত্র একদিনে কি এমন হলো যে এই নারী এখন সেই অবস্থান থেকে সরে এসেছেন? পেছনে কি কারো হাত আছে, সন্দেহ সালমান ভক্তদের। অনেকে মনে করছেন, এই নারীর কাছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পৌঁছাতে পারলেই সালমান শাহ্’র মৃত্যুরহস্য উদঘাটন হবে। অন্যথায় আরো একুশ বছর চলে গেলেও সালমান রহস্যের কোনো সুরাহা হবে না। 

নিজেকে মানসিকভাবে ভারসাম্যহীন দাবি করলেন রুবি:

গো নিউজ/এমটিএল